DreamAchive (@DreamAchive)

শুক্রতারল্য ও পুরুষাংগের বক্রতা কি?

DreamAchive
May 31, 2020-এ প্রশ্ন করেছেন

জামিয়ার ভাই উত্তরটা দিবেন প্লিজ।?

DreamAchive
May 31, 2020-এ প্রশ্ন করেছেন

ভাই, আমি হামদর্দের দোকানে গিয়ে অশ্বগন্ধা চূর্ণ পাউডারের কথা বলছি ওরা বলে এটা তাদের দোকানে নাই।। তবে এটার সিরাপ আছে। এটার সিরাপ নাকি পাউডারের থেকে ভালো হবে। কিন্তু আমি নি নাই ।আমি পরে নেবো বলে চলে আসছি এখন সিরাপ কি ভালো হবে ? এটা কি সত্যি পাউডারের থেকে ভালো হবে? আর অশ্বগন্ধার পাউডার বা সিরাপ খেলে নাকি ভালো ঘুম হবে। কিন্তু ভাই আমার ঘুমের তো কোনো সমস্যা নাই, আমার ওমনি ভালো ঘুম হয়। তাহলে আমার কি এটা খাওয়া উচিত হবে? আমি তো মূলত যৌনশক্তির বৃদ্ধির জন্য খেতে চাইছি। পরামর্শ দিবেন প্লিজ। 

ভাই, আমি অনলাইনে বা ইউটুবে বেশ কয়েকজন ডাক্তারকে ফলো করি। তাদের কথা, ইন্সট্রাকশন আমার সঠিক ও ভালোই মনে হয়। আর তারা যেটা বলে তারা কোনো মনগড়া কথা বলে না তারা যে কথাই বা ইন্সট্রাকশন দেয় তার প্রুভ ও দেয়। এই রকম একজন ডাঃ হলেন ডাঃ ফায়েজুল হক (Dr. Faijul huq)... উনি একজন ভেষজ চিকিৎসক।। উনার চেম্বারও আছে ধামরার, ঢাকা। উনি বিভিন্ন রোগ নিয়ে পরামর্শ দেন যা আমার কাছে মনে হয় অত্যন্ত কার্যকরী। তার মধ্যে যৌন বিষয় নিয়ে বেশি সাজেশন করেন।। যাই হোক ইদানীং উনি একটা ভিডিওতে বলেছেন ছেলেদের বীর্য গাঢ়, শুক্রাণু বৃদ্ধি, সহবাসে সময় বেশি পাওয়া ইত্যাদি যৌনশক্তি বৃদ্ধিতে অশ্বগন্ধার চূর্ণ, শিমুলের চূর্ণ, শতমূলির চূর্ণ, তেতুলের চূর্ণ এই ৪ টা পাউডার এক সাথে আদা চামুচ করে এক গ্লাস পানিতে রাতে ভিজিয়ে রেখে সকালে শুধু পানি টা খেতে আবার সকালে ভিজিয়ে রেখে রাতে পানি খেতে। এটা তে টানা ৩ মাস খেলে নাকি খুব ভালো ফলাফল আসবে। এটার নিশ্চয়তা ১০০% দিচ্ছে। এখন আমাদের বাজারে এইগুলা পাওয়া খুব কঠিন এক ব্যাপার।। এখন উনাদের নিজস্ব একটা ওয়েবসাইট আছে(www.faijulhuq.com) এখানে ওর্ডার দিয়ে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে আনতে পারব। আমি তাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে ভেষজের বিভিন্ন পণ্য দেখেছি। এখন তারা বলছে প্রত্যেকটি পণ্য অরজিনাল এবং এতে কোনো ক্যামিকেল ব্যবহার করা হয়নি এবং কোনো প্বার্শপ্রতিক্রিয়াও নেই।। যদি তাদের কোনো পণ্য নেওয়ার পর আসল মনে না হয় তা হলে ফোন করলে টাকা ব্যাক করবে।। এখন আমার প্রশ্ন হলো ভাই, প্লিজ আপনারা কেউ ওই ওয়েবসাইটে গিয়ে প্রোডাক্টগুলো দেখে আমাকে নিশ্চিত করেন যে আসলে আমি তাদের পণ্যগুলো অর্ডার করা উচিত হবে তাদের কি বিশ্বাস করতে পারি। যেহেতু বর্তমানে অনলাইনে ধোকা জিনিসটা অহরহ চলছে। এত ধোকামির মধ্যে আসল বা ভালো জিনিস খুঁজে নেওয়া খুব কঠিন। তাই প্লিজ আপনারা আমাকে একটু যাচাই করে নিশ্চিত করে জানালে আমি আমার প্রয়োজনীয় পণ্য অর্ডার করতাম? যদি সেটা ভালো হয়?

প্রত্যেক প্রশ্নের যথাযথ উত্তর চাই।?

DreamAchive
May 27, 2020-এ প্রশ্ন করেছেন

আমি এই সংশ্লিষ্ট ২/৩ টা প্রশ্ন পূর্বেও করেছি। এখন একটু ভালোভাবে জানতে চাই। আমি আগে হস্তমৈথুন করতাম। ২/৩ দিন পর পর ওই হস্তমৈথুন করতাম এই ভাবে ৩/৪ বছর করেছি। তবে আল্লাহর অশেষ রহমতে আমি আমার ভুল বুঝতে পেরে সব খারাপ কাজ ছেড়ে দিয়েছি। আমি প্রতিদিন ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি। এখন আমি সকল খারাপ ও নেতিবাচক চিন্তা থেকে নিজেকে বিরত রাখছি ও নিজেকে সৎ পথে রাখার চেষ্টায় আছি। চেষ্টা করছি বেশি বেশি ভালো কাজ করার। যাই হোক ভাই আমি হস্তমৈথুনও ছেড়ে দিয়েছি আজ প্রায় ৪ মাস।এবং সকল অশ্লীল কিছু দেখা ও শুনা থেকেও নিজেকে বিরত রাখছি। হস্তমৈথুন ছাড়ার পর থেকে অর্থ্যাত এই ৪ মাসে নিয়মিত পুষ্টিকর খাবারও খাচ্ছি পাশাপাশি ডিম, দুধ,মধু, কালোজিরা, কলা, কিসমিস, ইসুবগুলির ভুষি ও তোকমার শরবত এইগুলা নিয়মিত খাই। এই রমজাম মাস ছাড়া বাকি মাস গুলোও ব্যায়ামও করেছি বা এখনও করছি। এই ৪ মাসে আমার মাত্র ১ বার স্বপ্নদোষ হয়েছে। তবে মাঝে মাঝে প্রসাবের সাথে হালকা বীর্য বের হয়। বলে রাখা ভালো ভাই আমি প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর পূর্বে ওযু করে ঘুমাই, এর পর সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক, সূরা, নাস, আয়াতুল কুরসী, দুরুদে ইব্রাহিম ও মাঝে মাঝে কুরআন তেলাওয়াত করি ও মুনাজাত দিয়ে আল্লাহর কাছে বলি আল্লাহ আপনি আমাকে একটা নিরাপদ ঘুম দান করুন, আমি পবিত্র অবস্থায় নিদ্রা যাইতেছি তুমি আমাকে পবিত্র অবস্থায় জাগরণ করিও। আলহামদুলিল্লাহ ভাই আমি ঘুমে একদিনও খারাপ বা ভয়ংকর কোনো স্বপ্ন দেখি না ও স্বপ্নদোষও হয় নাই। যাও একবার হইছে তাও রমজান মাসে সেহরি খাবার পর ঘুমানোর মধ্যে হইছে।। এখন আমার প্রশ্নগুলো শুনেনঃ

১/ আমি কি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ ও স্বাভাবিক আছি।। আমি ৩/৪ বছর যে হস্তমৈথুন করেছি তার ঘাটতি কি পূরণ হয়েছে। 

২/ আমি জানি যে যারা হস্তমৈথুন করে না বা হস্তমৈথুন ছেড়ে দিয়েছে অনেকদিন হইছে তাদের মাসে কমপক্ষে ৪/৫ বার স্বপ্নদোষ হয়।। কিন্তু আমার ৪ মাসে স্বপ্নদোষ হয়েছে মাত্র ১ বার। তাহলে আমার যৌন কোনো সমস্যা আছে কি বা অন্য কোনো সমস্যা? নাকি আমার সঠিকভাবে বীর্য উৎপাদন হচ্ছে না? 

৩/ আমার কি কোনো যৌন চিকিৎসা নেওয়ার প্রয়োজন আছে?

৪/ আগে আমি যখন হস্তমৈথুন করতাম তখন আমি যেকোনো অশ্লীল কিছু দেখলে,অশ্লীল চিন্তা করলে বা মোবাইলে মেয়েদের সাথে কথা বললে শরীরে ঠিকই যৌনউত্তেজনা আসতো কিন্তু লিংগ সহজে দাঁড়াতো না বা দাঁড়ালেও আবার তারাতারি নিস্তেজ হয়ে যেত। এখন এইগুলা বাদ দেওয়ার পরেও অনিচ্ছায় স্বত্তেও কখনও মোবাইলে চোখের সামনে অশ্লীল ছবি চলে আসলে বা ভুলে মেয়েদের দিকে একটু নজর চলে গেলেই বা হালকা একটু যৌন চিন্তা চলে আসলেই সাথে সাথে লিংগ দাঁড়ায় যায় এবং সহজেই তা নিস্তেজ হয় না। অনেক কষ্টে নিস্তেজ হয়। এটা কি সুস্থতার লক্ষণ।।

ভাই প্রত্যেকটা প্রশ্নের উত্তর আমি আপনার কাছে ভালোভাবে আশা করছি। হয়ত আপনাদের উত্তর আমাকে অনেক হেল্প করবে। ধন্যবাদ। উত্তরের অপেক্ষায় আছি।

আমি এই সংশ্লিষ্ট ২/৩ টা প্রশ্ন পূর্বেও করেছি। এখন একটু ভালোভাবে জানতে চাই। আমি আগে হস্তমৈথুন করতাম। ২/৩ দিন পর পর ওই হস্তমৈথুন করতাম এই ভাবে ৩/৪ বছর করেছি। তবে আল্লাহর অশেষ রহমতে আমি আমার ভুল বুঝতে পেরে সব খারাপ কাজ ছেড়ে দিয়েছি। আমি প্রতিদিন ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি। এখন আমি সকল খারাপ ও নেতিবাচক চিন্তা থেকে নিজেকে বিরত রাখছি ও নিজেকে সৎ পথে রাখার চেষ্টায় আছি। চেষ্টা করছি বেশি বেশি ভালো কাজ করার। যাই হোক ভাই আমি হস্তমৈথুনও ছেড়ে দিয়েছি আজ প্রায় ৪ মাস।এবং সকল অশ্লীল কিছু দেখা ও শুনা থেকেও নিজেকে বিরত রাখছি। হস্তমৈথুন ছাড়ার পর থেকে অর্থ্যা এই ৪ মাসে নিয়মিত পুষ্টিকর খাবারও খাচ্ছি পাশাপাশি ডিম, দুধ,মধু, কালোজিরা, কলা, কিসমিস, ইসুবগুলির ভুষি ও তোকমার শরবত এইগুলা নিয়মিত খাই। এই রমজাম মাস ছাড়া বাকি মাস গুলোও ব্যায়ামও করেছি বা এখনও করছি। এই ৪ মাসে আমার মাত্র ১ বার স্বপ্নদোষ হয়েছে। তবে মাঝে মাঝে প্রসাবের সাথে হালকা বীর্য বের হয়। বলে রাখা ভালো ভাই আমি প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর পূর্বে ওযু করে ঘুমাই, এর পর সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক, সূরা, নাস, আয়াতুল কুরসী, দুরুদে ইব্রাহিম ও মাঝে মাঝে কুরআন তেলাওয়াত করি ও মুনাজাত দিয়ে আল্লাহর কাছে বলি আল্লাহ আপনি আমাকে একটা নিরাপদ ঘুম দান করুন, আমি পবিত্র অবস্থায় নিদ্রা যাইতেছি তুমি আমাকে পবিত্র অবস্থায় জাগরণ করিও। আলহামদুলিল্লাহ ভাই আমি ঘুমে একদিনও খারাপ বা ভয়ংকর কোনো স্বপ্ন দেখি না ও স্বপ্নদোষও হয় নাই। যাও একবার হইছে তাও রমজান মাসে সেহরি খাবার পর ঘুমানোর মধ্যে হইছে।। এখন আমার প্রশ্নগুলো শুনেনঃ

১/ আমি কি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ ও স্বাভাবিক আছি।। আমি ৩/৪ বছর যে হস্তমৈথুন করেছি তার ঘাটতি কি পূরণ হয়েছে। 

২/ আমি জানি যে যারা হস্তমৈথুন করে না বা হস্তমৈথুন ছেড়ে দিয়েছে অনেকদিন হইছে তাদের মাসে কমপক্ষে ৪/৫ বার স্বপ্নদোষ হয়।। কিন্তু আমার ৪ মাসে স্বপ্নদোষ হয়েছে মাত্র ১ বার। তাহলে আমার যৌন কোনো সমস্যা আছে কি বা অন্য কোনো সমস্যা? নাকি আমার সঠিকভাবে বীর্য উৎপাদন হচ্ছে না? 

৩/ আমার কি কোনো যৌন চিকিৎসা নেওয়ার প্রয়োজন আছে?

৪/ আগে আমি যখন হস্তমৈথুন করতাম তখন আমি যেকোনো অশ্লীল কিছু দেখলে,অশ্লীল চিন্তা করলে বা মোবাইলে মেয়েদের সাথে কথা বললে শরীরে ঠিকই যৌনউত্তেজনা আসতো কিন্তু লিংগ সহজে দাঁড়াতো না বা দাঁড়ালেও আবার তারাতারি নিস্তেজ হয়ে যেত। এখন এইগুলা বাদ দেওয়ার পরেও অনিচ্ছায় স্বত্তেও কখনও মোবাইলে চোখের সামনে অশ্লীল ছবি চলে আসলে বা ভুলে মেয়েদের দিকে একটু নজর চলে গেলেই বা হালকা একটু যৌন চিন্তা চলে আসলেই সাথে সাথে লিংগ দাঁড়ায় যায় এবং সহজেই তা নিস্তেজ হয় না। অনেক কষ্টে নিস্তেজ হয়। এটা কি সুস্থতার লক্ষণ।।

ভাই প্রত্যেকটা প্রশ্নের উত্তর আমি আপনার কাছে ভালোভাবে আশা করছি। হয়ত আপনার উত্তর আমাকে অনেক হেল্প করবে। ধন্যবাদ। উত্তরের অপেক্ষায় আছি।

ভাই, আমার অন্ডকোষে ছোট ছোট গুটি আছে। আজ প্রায় ২/৩ বছর ধরে এইগুলো। মাঝে মাঝে খুব চুলকায় আর চুল্কানের সাথে সাথে ছাতাও উঠে। খুব পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকি তাও এই অবস্থা। কয়েকদিন পূর্বে এটা বিস্ময়কে জানালে পরামর্শ দেয় নারকেলের তেল অন্ডকোষে মাখতে। কিন্তু আমি তা করেছি কোনো উপকার পাই নাই। এখন আমি কি এর জন্য হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা নিলে ভালো হবে নাকি হামদর্দ চিকিৎসা ভালো হবে? 

ভাই এখন তো অনেক গরম তাই গোসল করার সময় পুকুরে নামলে খুব শান্তি লাগে, পুকুর থেকে উঠতেই ইচ্ছে করে না। পানিতে বসে থাকতেই ভালো লাগে। কিন্তু অনেকেই বলে পানিতে নাকি বেশিক্ষণ থাকলে পশমের ভেতর দিয়ে শরীরের ভিতর পানি প্রবেশ করে। এতে নাকি রোজা ভেংগে যায় বা হালকা হয়ে যায়? এটার মূলত সহিহ হাদিস কি আমি জানতে চাই?

আমরা জানি বাজারের অধিকাংশ ফলগুলোত ফরমালিন মেশানো থাকে। ওসব ফল গুলো বাসায় নিয়ে এসে ঘরোয়া ভাবে বিভিন্ন পদ্ধতিতে ফরমালিন দূর করা যায়। যেমনঃঃ আপেল,মাল্টা,ডালিম ইত্যাদি ফল। কিন্তু কলা ও কমলা এই গুলো তো নরম জাতিয় ফল এই গুলো কিভাবে ফরমালিন দূর করব? এই গুলো তো পানিতে ভিজিয়ে রাখলে আরও নরম স্যাঁতস্যাঁতে হয়ে যাবে? এসব ফলেও তো ফরমালিন থাকে। তাহলে এই গুলোর ফরমালিন কিভাবে দূর করব? উপায় বলুন প্লিজ? 

গতকাল নামাজে ইমাম সাহেব ভুলে ৩ রাকাত তারাবি আদায় করে ফেলে এবং ইমামের পিছনে যারা নামাজ পড়ে তারাও কোনো তাকবীর দেয় নাই এবংকি ইমাম সাহু সেজদাও দেয় নাই। পরে নামাজ পড়া শেষে সবাই যখন বুঝতে পারল তারাবী ৩ রাকাত হয়ে গেছে তখন ইমাম সাহেব পুনরায় আবার ২ রাকাত তারাবী পড়ান। এতে কি আমাদের নামাজ হয়েছে আর এর জন্য কি সাহু সেজদা দিলে নামাজ শুদ্ধ হত না? একটু বুঝিয়ে বলুন।

নফল নামাজে আমরা জানি রুকু ও সেজদায় যত ইচ্ছা তত তাসবিহ পড়া যায়, কিন্তু আমার প্রশ্ন হলো ফরজ ও সুন্নত সালাতে তাসবিহগুলো বেজোড় করে পড়তে হয় তেমনি নফল নামাজেও কি তাসবিহ বেজোড় করেই পড়তে হবে। কারন নফল নামাজে যেহেতু অনেক তাসবীহ পড়া যায় তাই এটা তো বেজোড় হচ্ছে নাকি জোড় হচ্ছে তা তো হিসাব রাখা সম্ভব হয় না। এক্ষেত্রে যদি আমার তাসবীহ জোড় হয়ে যায় আর আমি রুকু ও সেজদা সম্পূর্ণ করে ফেলি এতে কি আমার গুনাহ হবে? জানাবেন প্লিজ। 

এই দোয়াটির অর্থ চাই?

DreamAchive
May 18, 2020-এ প্রশ্ন করেছেন

" আলহামদুলিল্লাহ হিল্লাযি আতয়ামানি হাজা ওয়া রাজাক্বনিহি মিন ঘইরি হাউলিন মিন্নি ওয়া লা কুউওয়াহ" এই দোয়াটির অর্থ কি?

আপনি ধরেই কিন্তু মোটা হয়ে যেতে পারবেন না, আপনাকে কিছু নিয়ম মেনে চললে ইনশাআল্লাহ আপনি কয়েক মাসের মধ্যে ধীরে ধীরে স্বাস্থ্যবান হবেনঃ ১/ কোনো খারাপ বা বদ অভ্যাস থাকলে অর্থ্যাৎ স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এমন কোনো অভ্যাস থাকলে তা আজ থেকে বন্ধ করুন। ২/ নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খাবেন৷ কোনো একটা নির্দিষ্ট খাবার বার বার না খেয়ে বা প্রতিদিন না খেয়ে বিভিন্ন প্রকার খাবার খান। তবে সেটা যাতে অবশ্যই স্বাস্থ্যকর খাবার হয়। ২/ উচ্চ ক্যালরি যুক্ত খাবার বেশি খান। একেবারে বেশি না খেয়ে সারা দিন অল্প অল্প করে খান। ৩/ প্রতিদিন হালকা হালকা ব্যায়াম করুন। ৪/ মুসলিম হলে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ুন ও ভালো কাজ বেশি বেশি করুন ও মন্দ কাজ পরিহার করুন সেই সাথে সাথে আল্লাহর কাছে সুস্বাস্থ্যের জন্য প্রার্থনা করুন। কারন সৃষ্টিকর্তা না চাইলে আপনি হাজারো চেষ্টা করলেও আপনার স্বাস্থ্য হবে না। এভাবে মেনে চলে ১০০% আপনার স্বাস্থ্যও হবে, আপনি সুস্থ থাকবেন আপনি সুখী একজন মানুষও হবেন ইনশাআল্লা।

এই দোয়াটির অর্থ কি?

DreamAchive
May 15, 2020-এ প্রশ্ন করেছেন

এই দোয়াটির বাংলা অর্থ কিঃ

"আল্লাহুমা ইন্নাকা আফুয়ান কারীম, তুহীব্বুন আফুয়া ফাফুয়ান্না ইহদিনাস সিরাতল মুসতাক্বিম"

নফল নামাজে এটা করা যায়?

DreamAchive
May 15, 2020-এ প্রশ্ন করেছেন

ভাই আমি কি নফল নামাজে কেরাত দীর্ঘ করার জন্য ৩/৪ টা সূরা একসাথে মিলিয়ে পড়তে পারব? জানা থাকলে উত্তর দিবেন। আন্দাযে দিবেন না?

ভাই আমার করণিয় কি?

DreamAchive
May 15, 2020-এ প্রশ্ন করেছেন

ভাই আমার এক বন্ধু আমার ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে গোপনে ঘাটাঘাটি করে। আমি জানতে পেরে ভীষণ কষ্ট পেয়েছি। কারন সে যে বিষয় নিয়ে আমার ঘাটাঘাটি করে তা আমার জন্য ক্ষতিকর।। আমি তাকে জিজ্ঞাস করলে সে একেবারে অস্বীকার যায় যে, সে কিছুই করছে না। কিন্তু আমি তার প্রমাণ পেয়ে যখন তাকে আমি সাবধান করি, সে বলেছে আর এইরকম করবে না, কিন্তু সে আবারও তা গোপনে করতে থাকে পরে আবার আমি জানতে পারি এর পর আমি তার সাথে বন্ধুত্ত্বের সম্পর্ক নষ্ট করে ফেলেছি।। কারন সে আমাকে বলে আর করবে না কিন্তু আবার সে টা ভুলে গিয়ে আবারও আমার ব্যক্তি বিষয় নিয়ে ঘাটাঘাটি করে। এখন ইসলাম এইখানে কি বলে, আমি কি তার সাথে বন্ধুত্ত্বের সম্পর্ক রাখা উচিত? নাকি তার সাথে যে আমি সম্পর্ক নষ্ট করে ফেলেছি অর্থ্যাৎ আমি তার সাথে এখন আর কোনো কথা বলি না ও যোগাযোগও রাখি না এতে কি আমার গুনাহ হবে? বা আমার কি করণীয়?

না এমন কোনো apps নাই যা দিয়ে ফ্রিতে টাকা আয় করতে পারবেন। তবে Ring Id একটা apps আছে যা আপনি প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করে, সামান্য কিছু ইনভেস্ট করে আর কিছু নিয়ম নীতি অনুসরণ করে টাকা আয় করতে পারবেন। তবে তা খুব বেশি নয়, তবে অবসর সময়কে কাজে লাগিয়ে কিছু টাকা আয় করতে পারলেও তাতে মন্দ কি? আশা করি বুঝতে পেরেছেন। ধন্যবাদ।

যে প্রশ্নের উত্তর দিবেন তা যদি অবশ্যই সঠিক ও যুক্তিসঙ্গত হয় এবং উত্তরদাতার তা যদি ভালো লাগে তা হলে সে আপনাকে চকলেট, চা, কফি, বার্গার ও আইসক্রিমের সমমূল্যের টাকা গিফট করবে আর তা আপনার একাউন্টে এসে জমা হবে আর এইভাবে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আশা করি বুঝতে পেরেছেন৷ ধন্যবাদ।  

উপদেশ আর বুদ্ধির মাঝে পার্থক্য কি.?

DreamAchive
May 14, 2020-এ উত্তর দিয়েছেন

উপদেশঃ যা নিজে করা কঠিন কিন্তু অন্যকে বলা সহজ তাকে উপদেশ বলে। উপদেশ দ্বারা অন্যজন উপকৃত হয়।
বুদ্ধিঃ বুদ্ধি হলো জগতকে অনুধাবন করার ক্ষমতা এবং বাধাসমূহকে মোকাবেলা করার সামর্থ্য।। বুদ্ধি দ্বারা নিজেই বেশি উপকৃত হয়, যার বুদ্ধি যত বেশি সে তত বেশি সফল। আশা করি বুঝতে পেরেছেন। ধন্যবাদ। 

ভাই আমি আগে গীবত সম্পর্কে জানতাম না, আমি আগে অনেক মানুষের গীবত করতাম।। কিন্তু গীবত বা পরনিন্দা যে এত মারাত্মক গুনাহ, যা শুধু আল্লাহর কাছে তওবা করলেই হবে না বরং যার গীবত করেছি তার কাছেও ক্ষমা চাইতে হবে এটি জানতাম না। এখন আমি গীবত নিয়ে অনেক ঘাটাঘাটি করছি, অনেক আলেমদের থেকে শুনছি।।তাই আমার মধ্যে অনুশোচনা কাজ করছে, আমার খুব ভয় হচ্ছে, আল্লাহর কাছে তওবা করে ক্ষমা চেয়েছি আমি আর কখনোই কারো গীবত করব না। ১/আল্লাহ আমাকে ক্ষমা করবে তো? ২/ আমি পূর্বে যাদের গীবত করেছি তাদের কাছে কি ক্ষমা চাইতে হবে?(কারন আমি তো না জেনে গীবত করেছি, গীবত সম্পর্কে জানতাম না, আমি না জেনে ভুল করেছি) তাহলেও কি তাদের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে? আমি আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছি এতে কি হবে না??।। ভাই কোনো মন গড়া উত্তর দিবেন না? 

আমলাতন্ত্র জটিলতা মূলত কি?

DreamAchive
May 11, 2020-এ প্রশ্ন করেছেন

আমলাতন্ত্র কি? এবং আমলাতন্ত্র জটিলতা কাকে বলে? আমলাতন্ত্র জটিলতা কি কি কারনে হয়?

ভাই আমি আগে অনেক গুনাহ করতাম, নামাজ পড়তাম না ঠিকভাবে, অশ্লীল কাজ করতাম, মেয়েদের দিকে বাঝে দৃষ্টিতে তাকাতাম, বাজে কথা বলতাম, মানুষের গীবত করতাম ইত্যাদি । এটি আমাকে অনেক আনন্দ দিত।। কিন্তু আল্লাহ পাক আমার উপর রহম করেছেন, আমি যখন বুজতে পারলাম যে, আমি ভুল পথে আছি তারপর আমি আল্লাহর কাছে কান্নাকাটি করে তওবা করেছি, আল্লাহর কাছে সাহায্য চেয়েছি আল্লাহ আমাকে যাতে হেদায়েত দেয় আমি যাতে ভুল পথ থেকে ফিরে আসতে পারি। আলহামদুলিল্লাহ, গত ৩/৪ মাস থেকে আমি ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ছি, বাজে সব কাজ ছেড়ে দিয়েছি, নিয়মিত কুরআন তেলাওয়াতও করছি, মেয়েদের দিকে খারাপ দৃষ্টিতেও তাকাচ্ছি না। আর ভালো কাজ বেশি বেশি করার চেষ্টা করছি। আমি বর্তমানে খুব ভালো আছি। কিন্তু এই ২/৩ টা দিন আমাকে একটা জিনিস খুব ভাবাচ্ছে তা হলো গীবত। আমি আগেই বলেছি ভাই আমি আগে অনেক মানুষের গীবত করতাম। কিন্তু গীবত যে একটা কবিরা গুনাহ, এটা যে মদ্য পান ও যেনা করার মতই কবিরা গুনাহ এটা জানতাম না। আর গীবত তো এমন এক গুনাহ যে এটা বান্দার হকের সাথে সম্পৃক্ত। অন্য সব গুনাহের জন্য আল্লাহর কাছে তওবা করলে আল্লাহ মাফ করেন। কিন্তু গীবত এমন এক কবিরা গুনাহ যা, যার গীবত করা হয়েছে তার কাছে ক্ষমা না চাইলে আল্লাহ ক্ষমা করবেন না আর আমি এখানেই চিন্তিত।। তাই আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি যাদের গীবত করেছি তাদের কাছে ক্ষমা চাইব। কিন্তু কথা হচ্ছে তাদের মধ্যে অনেকেই যদি আমাকে ক্ষমা না করে তাহলে আল্লাহ কি আমাকে ক্ষমা করবে না? ২/ ধরুন আমি গীবত করি নাই, কিন্তু ইচ্ছা অনিচ্ছায় গীবত শুনেছি তাহলে যাদের গীবত শুনেছি তাদের কাছেও কি ক্ষমা চাইতে হবে? ভাই প্লিজ ভালো ও কার্যকরি পরামর্শ দিবেন। কোনো মন গড়া উত্তর দিবেন না? 

Loading...