user-avatar

RushaIslam

◯ RushaIslam

RushaIslam এর সম্পর্কে
যোগ্যতা ও হাইলাইট
পুরুষ
Unspecified
Unspecified
প্রশ্ন-উত্তর সমূহ 2.26M বার দেখা হয়েছে এই মাসে 13.94k বার
২০১৯ সালে এখনো জরিপ হয়নি। সর্বোশেষ (মে,২০১৮) জরিপ অনুযায়ী বর্তমানে চীনের প্রেসিডেন্ট শী জিনপিং বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি।চীনকে তিনি এগিয়ে নিয়ে চলছেন প্রচণ্ড গতিতে। প্রভাব বিস্তার করছেন সারা বিশ্বে। তিনি ক্ষমতায় এসেই সরকারী দূর্নীতির বিরুদ্ধে ক্যাম্পেইন শুরু করেন যেটা ছিল তার ক্ষমতায় আসার আগে অনেকগুলো প্রতিশ্রুতির মধ্যে অন্যতম। তিনি দেশের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী রুই-কাতলাদের ধরে ধরে গ্রেফতার করেছিলেন। এদের মধ্যে সাবেক নিরাপত্তা প্রধান ঝৌ ইয়ংকাং ও ছিলেন। এছাড়া ২০১৪ এর মধ্যেই কম্যুনিস্ট পার্টির প্রায় ১০ হাজার কর্মকর্তাদের চাকুরী থেকে বরখাস্ত করেন।শী পূর্ববর্তী শাসকগণ যে ধরনের আইন তৈরী করেছিল তিনি সেগুলোর আমূল পরিবর্তন আনেন। বিশেষ করে ২০১৫ সালে এক-শিশু নীতির অবসান ঘটান।সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তিনি চীনের নৌবাহিনীর সক্ষমতার দিকে জোর দেন এবং দক্ষিণ চীন সাগরে বিতর্কিত অঞ্চলের মধ্যে কৃত্রিম দ্বীপ নির্মানের উদ্যোগ নেন।সেইসাথে তিনি দেশের নিত্য-নতুন আবিস্কারের পথ উন্মুক্ত করে এর ভিত্তি ভূমি ‘বেল্ট এন্ড রোড’ বৈদেশিক নীতিকে সুপ্রতিষ্ঠিত করার মাইলফলক হিসেবে কাজ করেন। এসব কারণেই তাকে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি বলা হয়। 
আপনার সমস্যাটি কানের ওটাইটিস মিডিয়ায় সমস্যার কারণে হতে পারে।অনেকসময় দেখা যায় জ্বর ছেড়ে যাবার ফলে  অন্তঃকর্ণের ওটাইটিস মিডিয়ায় ক্রমাগত সংকোচন প্রসারণ হবার ফলে এমন সমস্যা হয়। কখনো নিজের থেকেই সমাধান হয়,আবার কখনো হয়না।আবার মিনিয়াস, মেনিনজাইটিসের কারণে বা অন্তকর্ণের ক্ষতির কারণেও এটি হতে পারে। আবার হতে পারে এটি আপনার নিজের মনে হচ্ছে,বাস্তবে এমন কিছুই হচ্ছেনা। আপনার উচিৎ নাক,কান,গলা চিকিৎসক এর পরামর্শ নেয়া। কানে কোনো কিছু দিয়ে আঘাত করবেন না ভুলেও।
বায়োডিগ্রেইডেইবল পদার্থ মানে হল  জীবাণুবিয়োজ্য পদার্থ। এটিকে অনুজীবের দ্বারা দ্রুত ভাঙা সক্ষম।বায়োডিগ্রেইডেইবল পদার্থগুলি খাদ্য স্ক্র্যাপ, তুলা, উল, কাঠ, মানব এবং পশু বর্জ্য, প্রাকৃতিক উপকরণ (যেমন কাগজ, এবং উদ্ভিজ্জ তেল ভিত্তিক সাবান) উপর ভিত্তি করে নির্মিত পণ্যগুলি অন্তর্ভুক্ত। জীববিজ্ঞানে বায়োডিগ্রেইডেইবল শব্দটি ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক এবং অন্যান্য জীবন্ত প্রাণীর ক্রিয়াগুলির মাধ্যমে বিঘ্নিত সমস্যা বর্ণনা করার জন্য ব্যবহার করা হয়।  তাপমাত্রা এবং সূর্যালোক বায়োডিগ্রেইডেইবল প্লাস্টিক এবং অন্যান্য পদার্থের বিচ্ছেদে ভূমিকা পালন করতে পারে। মূলত বায়োডিগ্রেইডেইবল পদার্থ জৈবিক উপায়ে প্রকৃতির কাঁচামালের মধ্যে নিরাপদে এবং তুলনামূলকভাবে দ্রুত বিভাজনের ক্ষমতা রাখে এবং পরিবেশে অদৃশ্য হয়ে যায়। 
আপনার সর্বনিম্ন ওজন ৬৪ এবং সর্বোচ্চ  ৭৯  হওয়া বাঞ্ছনীয়। এটি হলেই ডিফেন্স এ টিকে যাবেন

ব্রণ দূর করার জন্য কিংবা ব্রণ কমানোর জন্য আপনাকে ফেইস ক্লিন রাখতে হবে,সেজন্য আপনি ভাল মানের ফেসওয়াশ ব্যবহার করুন। ফেসওয়াশ দিয়ে প্রতিদিন ২/৩ বার করে মুখ পরিষ্কার করবেন,বাইরে থেকে এসে মুখ ক্লিন করবেন।যদি তারপরেও ব্রণ হতে থাকে তাহলে এলোভেরা এবং মধু একত্রে মিশিয়ে দিনে ২বার ব্যবহার করুন। খুব ভাল ফল পাবেন। মুখে বরফ থেরাপি করুন। এছাড়া নিম পাতা, পানি,টক দই একত্রে পেস্ট করে মুখে লাগাবেন। নখ লাগাবেন না এবং কারোর পরামর্শে কোনোপ্রকার ক্রিম ব্যবহার করবেন।,আপনি oxy এর ফেইসওয়াশ ব্যবহার করতে পারেন। যদি একান্তই ক্রিম ব্যবহার করতে চান তাহলে skin clinic ক্রিমটি প্রতিরাতে লাগিয়ে ঘুমাবেন এবং সকালে ধুয়ে ফেলবেন।এটা বেস্ট কাজ করে ব্রণ ও দাগ দূর করতে। আপনি নরমাল ফেস প্যাক ইউজ করতে পারেন।

ল্যাসিক করালে চোখ পুরোপুরিভাবে ভাল হবার সম্ভাবনা আছে। সাধারণত সাধারণত দৃষ্টিজনিত সমস্যা অর্থাৎ দুরের বা কাছের বস্তু দেখতে সমস্যা হওয়া বা ঝাপসা দেখা এধরনের চক্ষু সমস্যার সমাধানের জন্যই ল্যাসিক সার্জারি করা হয়ে থাকে। সাধারণত ১৮/ ২০ বছর বয়সে ল্যাসিক করানো যেতে পারে। তবে চিকিৎসক এর পরামর্শ নিবেন আপনার এটি করা যাবে কিনা। সরকারি তে ল্যাসিক করালে ৭-১০ হাজারের কমেই হয়ে যাবে। কিন্তু প্রাইভেটে ল্যাসিক করাতে গেলে  মোটে ২০হাজারের বেশি লেগে যাবে।ল্যাসিকের পরপরই সাধারণত  রোগী বেশ ভালো দেখতে থাকেন। তবে সম্পূর্ণ ভালো হতে অনেকের প্রায় এক মাস সময় লাগতে পারে। অপারেশনের পর ল্যাসিক বিশেষজ্ঞ বেশ কয়েকবার রোগীকে পুনরায় পরীক্ষা করেন এবং প্রয়োজনে ওষুধ ও সামান্য পাওয়ারের চশমা বা কনট্যাক্ট লেন্স দিতে পারেন।
  • ১. রেডিয়াম (Ra) মৌলের তেজস্ক্রিয়তা ধর্ম আছে।রেডিয়াম এবং বেরিলিয়ামের মিক্সার নিউট্রন সোর্স হিসেবে ব্যবহার করা হয়।
  • ২.প্রোস্টেট ক্যান্সারের চিকিৎসায় রেডিয়াম (২২৩) ব্যবহার করা হয়।
  • ৩. পূর্বে রেডিয়াম টুথপেস্ট, হেয়ারক্রিম তৈরিতে বিশেষভাবে সংযোজন করা হত।
  • ৪.রেডিয়াম রেডন গ্যাস তৈরিতে ব্যবহার করা হয়। যা চিকিৎসাক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।
  • ৫.পারমানবিক চুল্লিতে ব্যবহার করা হয়।

  • ১. বেরিয়াম (Ba) মৌলের তেজস্ক্রিয়তা ধর্ম নেই।বেরিয়াম দিয়ে নিউট্রন সোর্স তৈরি করা হয়না।
  • ২. চিকিৎসাক্ষেত্রে এক্স-রের কাজে বেরিয়াম ব্যবিহার করা হয়।
  • ৩. পূর্বে বেরিয়াম কার্বনেট (BaCO3) ঈঁদুর মারা পয়জন হিসেবে ব্যবহার করা হত।
  • ৪.বেরিয়াম নাইট্রেট (Ba(NO3)2) এবং বেরিয়াম ক্লোরেট (Ba(ClO3)2) আতশবাজিতে সবুজ রং তৈরি করে।
  • ৫.প্রিন্টার পেপার এবং পেইন্টিং এর কাজে বেরিয়ামের একটি যৌগ বেরিয়াম সালফেট (BaSO4) ব্যবহার করা হয়। 

ভেদরগঞ্জ, শরিয়তপুর জেলা। এর আয়তন ৩১৩.৩৯ বর্গ কিমি।

জনসংখ্য  ২৩৭৭৬৯; পুরুষ ১১৯৫৮৯, মহিলা ১১৮১৮০। 

সুত্রঃ 
সুত্রঃ
আপনি এমন জায়গায় দোকানটি স্থাপন করুন যেখানে জনকোলাহল পুর্ণ থাকে। অর্থাৎ ব্যস্ততম কোনো রাস্তার মোড়ে,কিংবা বাজারের আশেপাশে। অবশ্যই দোকান স্থাপনের আগে কোলাহলময় জায়গাতেই সেটি স্থাপন করা উত্তম।

Vision কাকে বলে?

RushaIslam
Jul 15, 12:06 PM
Vision-এর বাংলা অর্থ হল দৃষ্টি বা দৃষ্টবস্তু। এটি আপনার পছন্দসই ভবিষ্যত। এই ভিশনে থাকে যে আপনি কী বিশ্বাস করেন এবং ভবিষ্যতে আপনি কী চাইছেন। এটা হচ্ছে আপনার সেই শক্তিশালী কারণ যেজন্য আপনি কোনোকিছু চাইছেন, বা যেটা আপনার প্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্য। ভিশন আপনাকে লক্ষ্যবস্তু অর্জনে উৎসাহিত করে। যেমনঃঢাকা শহর এবং নারায়ণগঞ্জ এলাকাতে নির্ভরযোগ্য বিদ্যুৎ সরবরাহের মাধ্যমে দেশের কাঙ্ক্ষিত অর্থনৈতিক, সামাজিক ও মানব উন্নয়ন সাধন করা-এটি একটি ভিশন।
এটি  ক্যালসিয়াম এর ঘাটতি পুরণ করে। সেইসাথে বদহজ এবং পাকস্থালীর অন্যান্য সমস্যায় সেবনের পরামর্শ দেয়া হয়। এটি রিকেটস, প্যারা-থাইরয়েড রোগের চিকিৎসায়ও সেবন করানো হয়।  ভরপেটে সকালে একটি ট্যাবলেট এবং রাতে একটি ট্যাবলেট  বা চিকিৎসক দ্বারা নির্দেশিত যেকোনো একবেলা সেবন করতে হয়।

নিচের উপায় গুলি মেনে চলুন:  


১. এক গ্লাস গরম পানিতে অর্ধেকটা লেবু চিপে নিন, এতে এক চিমটি লবণ মিশিয়ে নিন। চিনি দেবেন না। এবার পান করুন সকালে ঘুম থেকে উঠেই আর রাতে ঘুমুতে যাবার ঠিক আগে। এটি আপনার দেহের বাড়তি মেদ ও চর্বি কমাতে সব চেয়ে ভালো উপায়। 


২.আপনি লাল চালের ভাত, ব্রাউন ব্রেড, আটার রুটি খেতে পারেন। এতে আপনার দেহে ক্যালোরি অতিরিক্ত ঢুকবে না। পেটে জমা চর্বি কমে আসবে ধীরে ধীরে।

 ৩.মিষ্টি বা মিষ্টি জাতীয় খাবার, কোল্ড ড্রিংকস এবং তেলে ভাজা স্ন্যাক্স থেকে দূরে থাকুন। কেননা এ জাতীয় খাবারগুলো আপনার শরীরের বিভিন্ন অংশে, বিশেষত পেট ও উরুতে খুব দ্রুত চর্বি জমিয়ে ফেলে। তাই এগুলো খাওয়ার পরিবর্তে ফল খান।   

৪. প্রতিদিন প্রচুর পানি পান করার ফলে এটা আপনার দেহের মেটাবলিজম বাড়ায় ও রক্তের ক্ষতিকর উপাদান প্রস্রাবের সঙ্গে বের করে দেয়। মেটাবলিজম বাড়ার ফলে দেহে চর্বি জমতে পারে না ও বাড়তি চর্বি ঝরে যায়।   

৫. প্রতিদিন সকালে উঠেই খালি পেটে ২/৩ কোয়া রসুন চিবিয়ে খেয়ে নিন, এর ঠিক পর পরই পান করুন লেবুর রস। এটি আপনার পেটের চর্বি কমাতে দ্বিগুণ দ্রুতগতিতে কাজ করবে। তাছাড়া দেহের রক্ত চলাচলকে আরো বেশি সহজ করবে এটি।  

 ৬. রান্নায় অতিরিক্ত মশলা ব্যবহার করা ঠিক নয়। তবে কিছু মশলা ওজন কমাতে সাহায্য করে ম্যাজিকের মতো। রান্নার ব্যবহার করুন দারুচিনি, আদা ও গোলমরিচ। এগুলো আপনার রক্তে শর্করার পরিমাণ কমাবে ও পেটের মেদ কমাতে সাহায্য করবে।   

৭. প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যায় এক বাটি ভর্তি ফল ও সবজি খাবার চেষ্টা করুন। এতে আপনার শরীর পাবে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, মিনারেল ও ভিটামিন। আর এগুলো আপনার রক্তের মেটাবলিজম বাড়িয়ে পেটের চর্বি কমিয়ে আনবে সহজেই।   

৮.অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত মাংস যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। এর বদলে বেছে নিতে পারেন কম তেলে রান্না করা চিকেন।   


৯.ব্যায়াম করুন অথবা শারীরিক শ্রম করুন। প্রয়োজনে জিমে যান।

১০.সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ওজন বৃদ্ধি পায় এমন খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকা। বিশেষ করে চিনি এবং অতিরিক্ত ক্যালরিযুক্ত খাবার। যখন আপনি ওজন কমাতে চাইবেন, তখন আপনার ক্ষুধার মাত্রা নিচে নামিয়ে আনুন। আপনার শরীরে জমে থাকা চর্বি কমাতে কাজ করুন। চর্বি কমানোর অন্যতম ভালো উপায় হলো পানি পান করা। বিশেষ করে হালকা গরম পানি। বেশি করে পানি খাওয়ার ফলে আপনার কিডনি ভালো থাকবে। এটি পেট মোটা হওয়া কমাবে।


১১.সপ্তাহে আপনাকে দুই থেকে তিনবার জিমে যেতে হবে। শুধু গিয়ে বসে থাকলে হবে না। আপনাকে ওজন কমানোর জন্য উপযুক্ত ব্যায়ামগুলোও করতে হবে। যদি জিমে নতুন যাওয়া শুরু করেন তাহলে প্রথম দিনেই কষ্টকর ব্যায়াম করা উচিত নয়। এতে উল্টো ফল হতে পারে। তাই ব্যায়াম করার আগে প্রশিক্ষকের সঙ্গে পরামর্শ করে নিন। যত বেশি ফিজিক্যাল এক্সারসাইজ করবেন ততই ওজন কমবে।


১২.দিনে ৮টি শশা খাওয়ার চেষ্টা করুন।

কোনো একটি টেস্ট নয়,এক্ষেত্রে অনেকগুলি টেস্ট করা হয়। আপনি হাসপাতালে গিয়ে বলুন আপনি শুক্রাণু পরীক্ষা করাবেন। তারাই সকল টেস্ট গুলি করাবেন। মূলত এক্ষেত্রে ভলিউম,  লিক্যুইফেকশন টাইম, রঙ ইত্যাদি পরীক্ষা করা হয়।শুক্রাণুর মোট সংখ্যা, মোটিলিটি , মর্ফোলজি, ভাইটালিটি ইত্যাদি পরীক্ষা করা হয়।  
★প্রথমেই বলবো ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলার কথা। আপনি যখন ধর্মের পথে চলবেন তখন আপনার দৃষ্টিভঙ্গি সংযত হবে,সেইসাথে মানসিকতাও উন্নত হবে।  মনের মধ্যে আল্লাহ এর প্রতি ভয় থাকলেই আপনি সব সময়ই উন্নত দৃষ্টিভঙ্গি এবং উন্নত মানসিকতার ব্যক্তি হতে পারবেন। ★ন্যায়ের পথে চলুন, এতে বাধা আসলেও আপনার মানসিকতা দৃষ্টিভঙ্গি উভয়ই বিকাশ লাভ করবে। ★জ্ঞানার্জনের চেষ্টা করুন। অজানাকে জানার চেষ্টা করুন।মেধাকে বিকশিত করুন। ★৫ ওয়াক্ত সালাত আদায় করবেন। ★সামর্থ্যানুযায়ী গরীবদের সাহায্য করুন।  ★সর্বোপরি সমাজের সকল স্তরের মানুষের সাথে মিশুন,হোক যে হতদরিদ্র,হোক সে ধনী।
এটি আপনি ২৫-৪৫ টাকার মধ্যেই পাবেন।
হ্যাঁ, আপনি ইনশাআল্লাহ টিকে যাবেন। তবে সেই লাগানো দাত থেকে যদি কোনোপ্রকার সমস্যা কিংবা দন্ত রোগ পাওয়া যায় তাহলে বাদ পড়বেন
যাবে। যদি সেই কার্ডের সাথে আপনার নাম,ছবি এবং জন্ম মিল থাকে তাহলে। ভুয়ো কার্ড বানিয়ে সেটার স্ক্যান করে ছবি সাবমিট দিতে পারেন। নতুন বর্তমানে ভুয়ো কার্ড দিয়ে আইডি ব্যাক আসার সম্ভাবনা খুবই কম। আপনার বানানো ভুয়ো কার্ডটি হতে হবে  একেবারে নিখুঁত এবং ফন্ট অরিজিনাল এর মতোই। বর্তমানে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ অনেক কঠোর,কাজেই যথাযথ কার্ড না হলে আইডি ফিরে পাবার সম্ভাবনা কম। 
ভুয়ো কার্ড  বা রিয়েল কার্ড সকল কার্ডের কাজই হল আপনি ফেসবুকে যে আইডিটি ব্যবহার করছেন সেই আইডিটির মালিক যে আপনি তা প্রমাণ করা। অনেকসময় ফেসবুক নীতিমালা ভঙ্গ করলে আইডি ডিজেবল করে দেয়া হয় এবং আইডিটির মালিকানার প্রমাণ চাওয়া হয়। তখন অনেকেরই রিয়েল কার্ড না থাকায় ফেইক/ভুয়ো কার্ড বানিয়ে সাবমিট দেয় আইডিটি ফেরত পাবার জন্য।
হ্যাঁ এটির কাজ আছে।অনেক সময় ফেসবুক আইডি ডিজেবল কিংবা আইডিতে অন্য কোন সমস্যা হলে তখন ফেসবুকের প্রদত্ত এই ফেসবুক আইডি কার্ড টির দরকার হবে। যদিও এক্ষেত্রে রিয়েল ভোটার কার্ড/পাসপোর্ট ছাড়া আইডি ব্যাক দেয়না। ফেসবুক আইডি কার্ডটি মূলত আপনার "ফেসবুক পরিচয় পত্র" যা নির্দিষ্ট আইডিটির মালিকের পরিচয় বহন করে।
হ্যাঁ এটির কাজ আছে।অনেক সময় ফেসবুক আইডি ডিজেবল কিংবা আইডিতে অন্য কোন সমস্যা হলে তখন ফেসবুকের প্রদত্ত এই ফেসবুক আইডি কার্ড টির দরকার হবে। যদিও এক্ষেত্রে রিয়েল ভোটার কার্ড/পাসপোর্ট ছাড়া আইডি ব্যাক দেয়না। ফেসবুক আইডি কার্ডটি মূলত আপনার "ফেসবুক পরিচয় পত্র" যা নির্দিষ্ট আইডিটির মালিকের পরিচয় বহন করে।

image আপনি ছবিটি দেখুন এবং আপনার প্রশ্নটি লিখে "খুঁজুন " অপশনে ক্লিক করুন। যদি আপনার প্রশ্নটি আগে থেকেই করা থাকে তাহলে  তা অবশ্যই সার্চ রেজাল্ট এ দেখাবে। আর যদি no result  দেখায় তাহলে বুঝবেন আপনার সার্চকৃত প্রশ্নটি বিস্ময়ে নেই।সেক্ষেত্রে আপনি নতুন করে প্রশ্ন করবেন। হতে পারে আপনি যা খুঁজছেন তা এখানে প্রশ্ন করা নেই,তাই প্রদর্শিত হচ্ছেনা।

আপনি রুই, কাতলা, মৃগেল, কালিবাউস, বিগহেড, সিলভারকার্প, মিররকার্প, কমনকার্প, কারপিউ এসব নানা প্রজাতির মাছ একসাথে চাষ করতে পারেন। এসব কার্প জাতীয় মাছ পুকুরের ক্ষুদিপানা খেয়েই বড় হয়।
সাধারণত রক্তে বিলিরুবিনের ঘনত্ব ১.২ mg/dL এর নিচে থাকে। আর যদি ২+mg/dL হয় তাহলে জন্ডিস ধরা হয়। আপনার কিছুটা বেশি রয়েছে নরমাল রেঞ্জ থেকে। আপনার মধ্যে জন্ডিসের প্রাথমিক অবস্থা দেখা দিতে পারে। এখুনি চিকিৎসক এর পরামর্শ নিন,ইনশাআল্লাহ সেরে উঠবেন।
আপনি সানস্ক্রিন টাইপের ক্রিম/লোশন ব্যবহার করুন। এতে সর্বোচ্চ ৩/৪ঘণ্টা পর্যন্ত আপনার হাত ঘামা বন্ধ থাকতে পারে।  এক্ষেত্রে লোটাস এর সানস্ক্রিন টা সবথেকে ভালো। হাতে-পায়ে কোনও ধরনের পাউডার ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।
যৌনস্বাস্থ্য ঠিক রাখতে স্বাস্থ্যসম্মত পুষ্টিকর খাবার খাওয়া জরুরি। পর্যাপ্ত ঘুমাতে হবে কারন অপর্যাপ্ত ঘুম শুক্রাণুর সক্ষমতা নষ্ট করে। তাই মধ্যরাতের আগেই ঘুমাতে যাওয়া উচিত।যাঁরা নিয়মিত ব্যায়াম করেন কিংবা শারীরিক পরিশ্রম করেন, তাঁদের যৌনস্বাস্থ্য ভালো থাকে। যৌনস্বাস্থ্য ভালো রাখতে ধূমপান এবং মদ্যপান থেকে বিরত থাকা উচিত।যৌনস্বাস্থ্য ঠিক রাখতে স্বাস্থ্যসম্মত পুষ্টিকর খাবার খাওয়া জরুরি,চর্বিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। হস্তমৈথুন করা যাবেনা। মানসিক টেনশন ফ্রি থাকতে হবে। শারীরিক সমস্যা যেমন হাই ব্লাড প্রেশার,থায়রয়েড হরমোন, টেস্টোস্টেরন, প্রোলেকটিন ইত্যাদি থাকলে তার চিকিৎসা করাতে হবে।
মসুর ডাল শুধু সুস্বাদুই নয় এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টিগুণ। যেমন, খনিজ পদার্থ, আঁশ, খাদ্যশক্তি, আমিষ, ক্যালসিয়াম, লৌহ, ক্যারোটিন, ভিটামিন বি-২ ও শর্করা ইত্যাদি।   মসুর ডাল সহজপাচ্য এবং এতে প্রোটিনের পরিমাণ সর্বাধিক।এই ডাল হার্টকে সুস্থ রাখতে কাজ করে,কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়,শরীরে হমোসিস্টেনিনের মাত্রা কমায়,হজমে সমস্যা দূর করে,রক্তে শর্করার মাত্রা কমায়,ওজন হ্রাস করে,এলার্জি দূর করে ইত্যাদি।  আর যৌন স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য পুষ্টিকর খাবারের পাশাপাশি যেকোনো ডালই খেতে পারেন।সেইসাথে কিছু নিয়ম তো মানতেই হবে।
এটি মূলত এলার্জি জনিত সমস্যা দূর করে। এলার্জি থেকে হওয়া হাচি,কাশি,এজমা কিংবা যেকোনো স্কিন প্রদান দূর করতে এটি কাজ করে। এটি এলার্জি কমাতে দ্রুততম মেডিসিন হিসেবে কাজ করে। এছাড়া ন্যাজাল ডিজিজ এর ক্ষেত্রেও এটি সেবনের পরামর্শ দেয়া হয়।
সর্বদা বিশেষ অঙ্গটি পরিষ্কার রাখবেন।একদম ঢিলেঢালা সুতির অন্তর্বাস পরিধান করুন। দিনে দুবার অন্তর্বাস বদলে ফেলুন। এছাড়া ঘামে ভেজা অন্তর্বাস বেশি সময় ব্যবহার করবেন না।আপনি একজন চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের চিকিৎসা নিন।আক্রান্ত স্থান চুলকাবেন না।আক্রান্ত স্থানে সাবান ব্যবহার করবেন না।তাই পরিষ্কার করতে হলে।পানিতে 'স্যাভলন' ব্যবহার করতে পারেন।এলার্জী জনিত খাদ্য এড়িয়ে চলুন।অপরিষ্কার আন্ডারওয়্যার পরিধান করবেন না। লিঙ্গ তে আমলকির তেল সামান্য গরম করে মালিশ করুন। চিকিৎসক এর পরামর্শ ব্যতীত কোনোপ্রকার মলম ব্যবহার করবেন না।
কামিনী রায়।