user-avatar

ThaminaShoaib

◯ ThaminaShoaib

উচ্চ রক্তচাপের কারণ গুলো হল, রক্তে চর্বির পরিমান বাড়লে, অতিরিক্ত শারীরিক ওজন হলে,চর্বিযুক্ত খাবার বেশি খেলে
লেজার ট্রিটমেন্ট এ পরবর্তী সময়ে সমস্যা হয় বা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়,
রক্তে অ্যাডরেনালিন হরমোন নিঃসরণ এর কারণে।
পাইলস রোগের স্থায়ী চিকিৎসা হল অপারেশন করে তা অপসারণ করা।
প্যরালাইসড হওয়ার কারন হল স্নায়ু এর কর্মক্ষমতা পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে প্যরালাইসিস হয় ।
আকুপাংচার এ স্নায়ুর মূল স্থান এ পিন গুলি বসানো হয় বা ফুটানো হয়, রোগী শুরুতে ব্যথা অনুভব করে কিন্তু পরবর্তীতে তা আর থাকেছার।ব্যথা দিয়েই ব্যথা সারানো হয়।ইদানিং কালে ফিসিওথেরাপিতে বহুল ব্যবহারিত পদধতি হল এই আকুপাংচার।
আকুপাংচার হচ্ছে পিন ফুটিয়ে স্নায়ুজনিত রোগের চিকিৎসা পদ্ধতি। মূলত ব্যথা নিরাময়ের জন্য এটা খুবই ফলপ্রস্রু।
নির্মম সত্য হল আমাদের দেশে ক্যান্সার এর কোন ভাল এবং বিকল্প চিকিৎসা নাই।
হ্যাঁ, ম্যলেরিয়ার জীবাণু শরীরে সুপ্ত অবস্থায় থাকে।
ম্যলেরিয়ার উপসর্গ হল রাতে কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসা, সকাল বেলা তা ছেড়ে যাওয়া, এটা এই রোগের প্রধান উপসর্গ, জ্বর কিছুদিন পর পর এক এ সময় আসে।
পাকস্থলী থেকে খাবার শ্বাসনালীতে যায়না, বরং যখন খাবার খাওয়া হয় তখন যদি হাইপোগ্লটিস শ্বাসনালী কে বন্ধ না করে তখন খাবার অন্ননালীতে না যেয়ে শ্বাসনালীতে ঢুকে পড়ে। এতে কোন কোন সময় মানুষ মারাও যায়।
যোগব্যায়াম বেশির ভাগ এ শারীরিক, শরীর সতেজ থাকলে মন অ সতেজ থাকে এটা আমরা সবাই জানি, যোগব্যায়াম শরীরের ভারসাম্য বজায় রাখে ।
সাধারণ সাবানে জীবাণুনাশক উপাদান যেমন সোডিয়াম গ্লাইকোলেট, পামিটেট এসব থাকেনা যা জীবাণুনাশক সাবানে থাকে।
এর বৈজ্ঞানিক ব্যখা নাই তবে বলা হয়ে থাকে যে মৃত্যুকালে মানুষের কষ্ট বেড়ে যায় যা আমরা কল্পনা করতে পারিনা। মৃত্যুযন্ত্রণা খুবই অসহনীয় তাই মানুষ মৃত্যুর প্রাক্কালে বাঁচতে চায়।
কাঁচা দুধে অনেকসময় ব্যকটেরিয়া থাকে, দুধ ফোটালে এসব ধ্বংস হয়ে যায় । তাই কাঁচা দুধের তুলনায় ফোটানো দুধ বেশি স্বাস্থ্যসন্মত, দুধের গুনাগুন বজায় থাকে এবং বেশি নিরাপদ।
বিয়ের পর মেয়েরা মোটা হয়ে যায় তার কারন হল মেয়েদের শরীরে তখন চর্বি জমতে শুরু করে, এর জন্য ২ টি হরমোন দায়ী, শারীরিক সম্পর্কের কারনে মেয়েলী হরমোন ২ টি বাড়ে, এই হরমোন খাদ্য থেকে চর্বি শোষণ হওয়ার পর দেহে জমাতে থাকে যে জন্য একজন বিবাহিত মেয়ে সহজেই মোটা হয়ে জায়, নিয়মিত বেয়াম করলে চর্বি না জমে তা ক্ষয় হয়।তাই মেয়েদের উচিত বিয়ের পর ও নিজের প্রতি যত্ন নেয়া।
image
 
ঠোঁট ফাটলে গ্লিসারিন মাখি যাতে ঠোঁটের আদ্রতা বজায় থাকে, শুষ্ক যাতে না হয়ে যায়।
মানুষ তখনই পাগল হয় যখন তার মস্তিষ্কের স্নায়ু এর স্বাভাবিক কর্ম ব্যাহত হয়।
কান্না করলে নাক দিয়ে পানি পড়ে কারণ অশ্রু নালী নাকের ভেতরে উন্মুক্ত হয়, যে জন্য খেয়াল করে দেখবেন কান্নার সময় চোখ এর তুলনায় নাক দিয়ে বেশি পানি বের হয়।
মা কে আঁশ জাতিও খাবার যেমন লাউ, মিষ্টি কুমড়া এসব খাবার মাছের মাঝে শিং মাছ এমনকি কালোজিরার ভর্তা খেতে দেয়া হলে বুকের দুধের পরিমাণ বাড়ে, আর অবশ্যই বেশী করে পানি পান করতে বলতে হবে।
মানুষ একটা বয়স পর্যন্ত লম্বা হয় এরপর আর হয়না, মেয়েদের জন্য তা ১৮ এবং ছেলেরা ২১ বছর বয়স পর্যন্ত সাধারণত লম্বা হয়ে থাকে। গ্রোথ হরমোন এই বয়স পর্যন্ত দেহের লম্বা অস্থির সংযোগ স্থল এ কাজ করে থাকে এবং দেহের বৃদ্ধি ঘটায়,তাই ঐ বয়সে ্নিয়মিত দৌড়ালে অস্থি সংযোগ স্থলে গ্রোথ হরমোনের নিঃসরণ বাড়ে এবং লম্বা হতে সাহায্য করে।
গ্যাস্ট্রিক না হয়ে শব্দটি হবে gastritis... আমরা খাবার খাওয়ার পর যখন পাকস্থলিতে প্রবেশ করে তখন পাচক রস নিঃসরিত হয় যা খাদ্য কে হজম করতে সাহায্য করে। যখন আমরা সময় মতন না খাই বা অনিয়ম করি খাবার খাওার বেলায় তখন এই পাচন রস পাকস্থলীতে নিঃসৃত হয় এবং গ্যাস সৃষ্টি করে, যেজন্য আমরা ব্যথা অনুভব করি, এই পাচন রস তখন পাকস্থলীর দেয়ালে ক্ষতের সৃষ্টি করে যা আমরা ঘা হিসেবে জেনে থাকি।
রুহ আফজা এর ক্ষতিকর দিক হল এতে শর্করা এর পরিমাণ, এতে যে কেমিক্যাল মেশানো হয় তা শরীরের জন্য ক্ষতিকর,
প্রশ্নটি একটু দৃষ্টিকটু , তবু উত্তর দিচ্ছি , লিঙ্গের পেশী ইলাস্টিক শ্রেণীর, স্নায়ু এর কারণে এই পেশী ছোট বা বড় হতে পারে মূলত পেশীর গঠন কাঠামো এবং স্নায়ু এর কারণ
বাজারে যে জুস পাওয়া যায় তা পুরোপুরি কেমিক্যাল এতে কোন প্রাকৃতিক আম বা আমের রস সংযুক্ত করা হয়না। এটার সত্যতা খুঁজে পাওয়া যাবে যদি জুস ফ্যাক্টরি তে যেয়ে পন্নের মান যাচাই করলেই।
হরমোনের সমস্যা নানা কারণে হতে পারে যেমন বংশে কারোর থাকলে বিশেষ করে বাবা এবং মা এর। এছাড়া খাদ্যাভ্যাস যেমন বেশি পরিমাণে খাওয়া বা সুষম খাবার না খাওয়া বেয়াম না করা,কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার জন্য এমন সমস্যা হতে পারে। তাই আগে ঠিক কি কারণে এমন হচ্ছে তা বুঝতে হবে। হরমোনের পরীক্ষা করে সেই মতন হরমোন ওষুধ দিয়ে এই সমস্যার সমাধান পাওয়া যেতে পারে।

বানরের কয়টি পা?

ThaminaShoaib
Jan 21, 10:33 AM
বানরের চারটি ই হাত কোন পা নাই