Atikul Islam

Atikul Islam

AtikulIslam

Chocolate0
Coffee0
Ice-cream0
Burger0

About Atikul Islam

Hello, I am Atikul Islam. I am studying BSS in Political Science.
Experience and Highlight
Male
Single
Islam
Services
Work Experiences
Moderator at Bissoy Answers 2017–present
Language
Bengali/Bangla
Trainings
Education
Nawabganj Govt. College, Chapai Nawabganj
  • BSS
  • 2017-present
Social Profile
Add social profile
প্রশ্ন-উত্তর সমূহ 4.57M বার দেখা হয়েছে এই মাসে 165.96k বার
272 টি প্রশ্ন দেখা হয়েছে 126.83k বার
3.38k টি উত্তর দেখা হয়েছে 4.44M বার
37 টি ব্লগ
4 টি মন্তব্য
টাইমলাইন

আপনি চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এর নিকট চিকিৎসা গ্রহণ করতে পারেন। অল্প সময়ের মধ্যে আশা করি আরোগ্য লাভ করবেন। 

চুলকালে সমস্যা বৃদ্ধি পেতে পারে। তাই চাপ দেওয়া বা চুলকানো থেকে বিরত থাকবেন।

এই পয়েন্ট নিয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। 

এক্ষেত্রে চর্মরোগ/যৌনরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এর নিকট চিকিৎসা গ্রহণ করতে পারেন। সঠিক চিকিৎসা গ্রহণ করলে আশা করি দ্রুত আরোগ্য লাভ করবেন ইনশাআল্লাহ। 

আর পরিস্কার পোশাক ও আন্ডারওয়্যার পরিধান করবেন। হাত দিয়ে চুলকানো থেকে বিরত থাকবেন। এলার্জি জনিত খাদ্যসমূহ এড়িয়ে চলার চেষ্টা করবেন।

দীর্ঘদিন ধরে অতিমাত্রায় হস্তমৈথুন করে থাকলে স্নায়ুবিক অনুভূতি কমে যায়। তখন মেলামেশার সময় পূর্ণ অনুভূতি পাওয়া যায় না। এজন্য হস্তমৈথুনের অভ্যাস পরিহার করতে হবে। 

এসময় খাদ্যভ্যাসে পরিবর্তন আনতে হবে। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় দুধ, ডিম, মধু, খেজুর, ছোলা, শাকসবজি, আমিষ ও সূষম খাবার খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে। এগুলো দেহের ঘাটতি পূরণের পাশাপাশি যৌনশক্তি বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে।

এগুলোর পাশাপাশি রেজিস্ট্রার্ড যৌন বিষয়ে অভিজ্ঞ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করতে পারেন। কিছুদিন চিকিৎসা গ্রহণ করলে আশা করি সম্পূর্ণ আরোগ্য লাভ করবেন ইনশাআল্লাহ। 

জিনের আছর?

Atikul Islam
AtikulIslam
Feb 7, 11:39 AM

জিনের আছর থেকে মুক্ত থাকতে হলে সর্বদা আল্লাহর কাছে পানাহ চাইতে হবে। আল্লাহর সন্তুষ্টি ও করুণা থাকলে কখনো আপনাকে জিনের অনিষ্ট আছর আকৃষ্ট করতে পারবে না। ইসলামের বিধি-নিষেধ ও অনুশাসন মেনে চলতে হবে। শরীর পাক-পবিত্র রাখতে হবে। নিয়মিত ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করতে হবে। প্রতি ওয়াক্ত ফরজ নামাজের পর আয়াতুল কুরসি পাঠ করতে হবে। এছাড়াও নিচের হাদিস গুলো অনুসরণ করতে পারেন।

হাদিসে বর্ণিত আছে, যে যখন রাতে ঘুমাতে যাবে তখন আয়াতুল কুরসি পড়ে ঘুমাবে তাহলে আল্লাহ তোমার জন্য একজন ফেরেশতাকে পাহারাদার নিযুক্ত করবেন। যে তোমার সঙ্গে থাকবে আর কোনো শয়তান সকাল পর্যন্ত তোমার কাছে আসতে পারবে না।’ 

হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রতি রাতে যখন ঘুমাতে যেতেন, তখন নিজের উভয় হাত এক সঙ্গে মিলাতেন। তারপর উভয় হাতে ফুঁক দিতেন এবং সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক, সূরা নাস পড়তেন। তারপর দেহের যতটুকু অংশ সম্ভব হাত বুলিয়ে নিতেন। তিনি মাথা, মুখমণ্ডল ও শরীরের সামনের অংশ থেকে শুরু করতেন। তিনি এরূপ তিনবার করতেন। -সহিহ বুখারি ৫০১৭, আবু দাউদ : ৫০৫৮, তিরমিজি, হাদিস নং-৩৪০২ 

সূরা নাস পড়লে শয়তানের অনিষ্ট ও যাদু থেকে হেফাজতে থাকা যায়। হাদিসে এসেছে, ‘যে ব্যক্তি সকাল-সন্ধ্যা সূরা ইখলাস ও এই দুই সূরা ( সূরা ফালাক ও সূরা নাস) পড়বে সে সকল বিপদ-আপদ থেকে নিরাপদ থাকবে।’ ( তিরমিযী, হাদীস: ২৯০৩)

 উক্ত আমল গুলো নিয়মিত করতে থাকলে জিনের আছর কখনো আপনাকে আকৃষ্ট করতে পারবে না।