user-avatar

Atikul Islam

◯ AtikulIslam

ICC T-20 World Cup অনুষ্ঠিত হবে কিনা এখনো চূড়ান্ত ভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না। মহামারী করোনা পুরো বিশ্বের ভীত কাঁপিয়ে দিয়েছে। করোনা আগ্রাসনের কারণে সব ধরণের ক্রিকেট আপাতত বন্ধ আছে।

পরিস্থিতি বিবেচনায় এখনো টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ অনিশ্চয়তায়। পরিস্থিতি অনুকূলে আসলে হয়তো বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হতে পারে। তবে বিশ্বকাপের সম্ভাবনা আইসিসির সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করছে।

ডলারের এক শতাংশকে সেন্ট বলা হয়। অর্থাৎ এক ডলার ১০০ সেন্টের সমতুল্য। আরো সহজভাবে বুঝায়, বাংলা ১ টাকা সমান ১০০ পয়সা। এখানে টাকার ক্ষুদ্রতম একক হচ্ছে পয়সা। অনুরুপ, ১ ডলার সমান ১০০ সেন্ট। অর্থাৎ ডলারের ক্ষুদ্রতম একক হচ্ছে সেন্ট। আশা করি বুঝেছেন।

I need teletalksim?

AtikulIslam
Jun 25, 02:51 AM
আপনি নিকটস্থ যেকোন টেলিটক কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগের মাধ্যমে সিম সংগ্রহ করতে পারবেন। বিক্রির উদ্দেশ্যে নিলে কাস্টমার কেয়ার থেকেই নেওয়া উত্তম।
উক্ত বিবাহ যে কাজী/কাজী অফিসে রেজিষ্ট্রেশন করা হয়েছিল ঐ কাজী/কাজী অফিসে যোগাযোগ করতে হবে। তাহলে উনারা নতুনভাবে কাবিন নামা বানিয়ে দিবে। অন্য কোন কাজী অফিসে যাওয়া যাবে না।
বাংলাদেশে প্রচুর পরিমাণে শাক সবজি উৎপাদন হয়ে থাকে। তার মধ্যে কিছু এককালীন ও কিছু বারমাসি সবজি উৎপাদন হয়ে থাকে। এখানে কিছু বারমাসি শাকসবজির তালিকা দেওয়া হলো।

বেগুন, পেঁপে, ঢেড়স, কাঁচকলা, পুঁইশাক, নটেশাক, লালশাক, ডাটাশাক, পাটশাক, টমেটো, সজনে শাক, লাউ, করলা, চালকুমড়া, কচুশাক, কাঁটানটে শাক, মেটেআলু, মিষ্টিআলু শাক, মানকচু প্রভূতি শাকসবজি কম বেশি বার মাস উৎপাদন হয়ে থাকে।

এ বিষয়ে সঠিক পরামর্শ পেতে হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া আবশ্যক। চিকিৎসক পরীক্ষার পর সঠিক পরামর্শ দিতে পারবে। এজন্য আপনার স্ত্রীকে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের নিকট ট্রিটমেন্ট করানো দরকার। প্রয়োজনে শারীরিক পরীক্ষার দরকার হতে পারে। তাই অতি সত্ত্বর আপনার স্ত্রীকে চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করে ট্রিটমেন্ট গ্রহণ করানো জরুরি।
আপনি জন্ম নিবন্ধন কার্ড দিয়েই ভোটার আইডি কার্ড বানাতে পারবেন। যারা পড়ালেখা করে না তাদের তো আর সার্টিফিকেট নাই, তারা জন্ম নিবন্ধন দিয়েই ভোটার হয়ে থাকে। তবে যদি সার্টিফিকেট থাকে তাহলে ভোটার হওয়ার সময় তা জমা দেওয়া আবশ্যক।

আপনার বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হয়ে থাকলে নিজের জন্ম নিবন্ধন কার্ডের ফটোকপি (মা-বাবার ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি প্রয়োজনে লাগতে পারে) নিয়ে উপজেলা নির্বাচন কমিশনে চলে যাবেন।

তারা আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য নিয়ে ভোটার নিবন্ধন সম্পূর্ণ করবে। আর কত দিনের মধ্যে আপনার আইডি কার্ড পেতে পারেন তা তাদের কাছ থেকে জেনে নিবেন।

ঘুমের ঔষধ খেতে হলে অবশ্যই রেজিস্টার্ড ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন। রেজিস্টার্ড ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোন প্রকার ঘুমের ঔষধ খাওয়ার সুপারিশ নাই।

এজন্য ঘুমের ঔষধ খেতে হলে আগে কোন রেজিস্টার্ড ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। নিজে থেকে ঘুমের ঔষধ খেলে সাইড ইফেক্ট বা নানাবিধ সমষ্যা দেখা দিতে পারে।

এছাড়া ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া একসাথে একাধিক ঘুমের ঔষধ খাওয়া যাবে না। আশা করি বুঝেছেন।

হ্যাঁ, আপনি সিমটি সব সময় ব্যবহার করতে পারবেন। আর সিমটি যদি কখনো হারিয়ে যায় বা রিপ্লেস করার প্রয়োজন পড়ে তাহলে পরবর্তীতে আসল Nid কার্ড দিয়ে তুলতে বা রিপ্লেস করতে পারবেন।
ফ্রিব্যাসিক থেকে বিস্ময়ের মেইন ভার্সন থেকে বিস্ময়ে লগ ইন করতে না পারলে lite ভার্সন থেকে লগ ইন করা যায়। এজন্য প্রথমে ফ্রিব্যাসিকে ঢুকার পর URL এ যেতে হবে।

URL এ গিয়ে www.bissoy.com/ এরপর lite লিখে ব্রাউজ করতে হবে। অর্থাৎ URL এ গিয়ে www.bissoy.com/lite এভাবে লিখতে হবে। আর lite ভার্সনে গিয়ে সহজেই বিস্ময় লগ ইন এবং ব্রাউজ করতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

হ্যাঁ, এটি একটি সমস্যা। যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসা কেন্দ্রে গিয়ে কফ পরীক্ষা করা আবশ্যক। গলা বা বুকে কোন সমস্যা থাকলে কফ পরীক্ষার মাধ্যমে জানা যেতে পারে। তাই অতি সত্ত্বর রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।

আর ফ্রিজের বা ঠান্ডা খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। ধুমপান করা যাবে না। দৈনিক ৩/৪ বার হালকা গরম পানির সাথে লবণ মিশিয়ে গলা গরগড়া করতে হবে। এতে অনেকটা আরাপ পাওয়া যাবে।

লিঙ্গে জ্বালাপোড়া, ব্যথা বা চুলকানি থাকলে চর্মরোগের কারণে এমনটা হতে পারে। এ থেকে মুক্তি পেতে চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উত্তম। অথবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে চিকিৎসা নেওয়া যেতে পারে।

হস্তমৈথুন বা বাজে কোন অভ্যাস থাকলে পরিহার করতে হবে। কারণ এসব কাজ রোগের উপসর্গ আরো বাড়িয়ে দিতে পারে। আর ঢিলে পোশাক পরিধানের চেষ্টা করবেন।

নয়নতারা, সন্ধ্যামণি, মোরগঝুঁটি, জবা, গোলাপ, গাদা, বেলি, সূর্যমুখী, গন্ধরাজ ইত্যাদি ফুলের গাছ লাগাতে পারেন। এসব ফুল বেশ পরিচিত ও বাহারি সৌন্দয্যের সমাহার। ফলে এগুলো দেখতে খুব চমৎকার লাগে। এই ফুলের গাছগুলো রোপন করে একটু যত্ন নিলে আপনার বাড়ি অপরুপ সুন্দর লাগবে।
বিস্ময়ের ডেভেলপমেন্ট কাজ এখনো সম্পূর্ণ হয়নি। ডেভেলপমেন্ট চলমান থাকায় অনেক ফিচার এখনো সম্পূর্ণ হয়নি। আশা করি দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রাণবন্ত ফিচার সমৃদ্ধ বিস্ময় দেখতে পাবো।

কিন্তু আপনি যদি বিস্ময়ের লাইট ভার্সন ইউজার হয়ে থাকেন তাহলে আপাতত প্রোফাইল আপডেট করতে পারবেন না। তবে আশা করা যায় কিছুদিনের মধ্যে এই সুবিধা পেয়ে যাবো।

বিশ্বে প্রথম ১৯৬৯ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ইন্টারনেট চালু হয়।
করোনা প্রতিরোধে বাংলাদেশে প্রথম মাদারীপুরের শিবচর উপজেলাকে লক ডাউন ঘোষণা করা হয়।
হযরত উমর (রা.) এর আমল থেকে হিজরি সাল গণনা শুরু হয়।
উক্ত কাজ দুটিই গুনাহের কাজ। উভয়ের কারণে শারীরিক ও মানসিক ক্ষতিসাধন হয়ে থাকে। এজন্য এ কাজ থেকে দুরে থাকা উত্তম। হস্তমৈথুন বা পর্ণ দেখা ছেড়ে দিলে কোন সমস্যা হবে না।

একটি বাদ দিয়ে অন্যটি চালিয়ে গেলেও সমস্যা হবে। তাই ধীরে ধীরে দুটি কাজই পরিহার করতে হবে।

আপনার বন্ধুকে বলবেন সে যেন দুটি কাজই ত্যাগ করে দেয়। হস্তমৈথুন ছাড়লেও পর্ণ দেখা চালিয়ে গেলে আবারো হস্তমৈথুন করার ইচ্ছা জেগে যেতে পারে।

তাই এখন পর্ণ দেখার অভ্যাসটা ত্যাগ করার চেষ্টা করা উচিত। আর এটাই তার জন্য কল্যাণময়।

তাৎক্ষনিক মুক্তির জন্য চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করে ঔষধ সেবন করতে হবে। প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে।

ইসবগুলের ভূষি পানিতে গুলিয়ে দৈনিক সকাল ও রাত্রে নিয়মিত কিছুদিন পান করতে থাকুন। এটা কোষ্ঠকাটিন্য রোধে ভীষণ উপকারি।

নরম ও রসালো খাদ্যদ্রব্য খাওয়ার চেষ্টা করবেন। নিয়মিত কিছুদিন পেঁপের তরকারি খেলে আশা করি এই সমস্যা থেকে উপশম পাবেন।

আপাতত কিছুদিন অতিরিক্ত ভাঁজা পোড়া, ফাস্ট ফুড ও শক্ত খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

প্রেমের প্রথম স্তরে মেয়েদের মধ্য ভয় ও লজ্জা উভয়ই কাজ করে থাকে। কারণ মেয়েদের যখন কেউ প্রেমের প্রস্তাব দেয় তখন সে ভাবতে থাকে কি করবে? ছেলেটা ভালো না খারাপ প্রকৃতির। তার সাথে সম্পর্ক করলে লাইফে কেমন প্রভাব পড়তে পারে। এই ভাবে মেয়েরা প্রথমে ভয় ও শঙ্কার মধ্যে থাকে।

আবার অনেক সময় দেখা যায় মেয়েদের মাঝে প্রচুর লজ্জাবোধ কাজ করে। লজ্জা মেয়েদের অন্যতম লেবাস। লজ্জার কারণে কথা বলতে চাই না। অন্য একটা ছেলের সাথে কথা বলতে যদি পরিচিত কেউ দেখে ফেলে। কিংবা পরিবার যদি জেনে ফেলে তাহলে সমস্যায় পড়তে হবে। এসব কারণে প্রথমে মেয়েদের মাঝে লজ্জা ও সংকোচ কাজ করে থাকে।

পরিশেষে, ছেলে কিংবা মেয়ে যেই হোক না কেন বিয়ের আগে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া ঠিক নয়। এটার জন্য উভয়ের নৈতিক অবক্ষয় ঘটে থাকে। ক্যারিয়ারে মন্দ প্রভাব পড়তে পারে।

শুধু জেলা নিয়ে ফেসবুকে গ্রুপ খুললেই চলবে না। জেলা ও জেলার মানুষের জন্য কিছু করা দরকার।

যেমন: চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় Chapainawabganj Helpline (চাঁপাইনবাবগঞ্জ হেল্পলাইন) নামে একটি অলাভজনক ও অরাজনৈতিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আছে। এই সংগঠন ব্লাড থেকে শুরু করে বিভিন্ন মানব সেবামূলক কাজ করে থাকে। এই সংগঠনের অধিকাংশ কার্যক্রম ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে।

ফেসবুকে গ্রুপ খুলে নিজ জেলায় এ ধরণের একটি সংগঠন গড়ে তোলার চেষ্টা করবেন। গ্রুপের নাম .... Helpline (...স্থানে জেলার নাম) দিতে পারেন।

বিস্ময় থেকে সদস্যগণ উত্তর প্রদান ও ব্লগ লিখনের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবে। একটি প্রশ্নের কাঙ্খিত চাহিদা অনুযায়ী নির্ভুল ও মানসম্মত উত্তর প্রদান করলে প্রশাসক, প্রশ্নকর্তা বা যেকোন সদস্য চকলেট, কফি, আইসক্রিম ও বার্গার উপহার দিতে পারে।

এসব উপহারের সমপরিমাণ অর্থ ব্যালান্সে যোগ হয়ে যাবে। অনুরুপ, মানসম্মত ও সুন্দররুপে ব্লগ লিখলে উপরে উল্লেখিত আকারে উপহার প্রদান করা হবে।

অতএব বিস্ময়ে নিয়মিত প্রশ্ন, উত্তর ও ব্লগ লেখার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা যেতে পারে।

প্রশ্ন অনুযায়ী মনে হচ্ছে চুলকানির মাত্রা অত্যাধিক। এ অবস্থায় সরাসরি চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ/রেজিস্টার্ড ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া সবচেয়ে ভালো|ডাক্তারের কাছে রোগের হিস্ট্রি নিখুঁত ভাবে বলতে হবে।

অপরিস্কার ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের কারণে চুলকানি বেশি ছড়িয়ে থাকে। এজন্য সর্বদা পোশাক ও শরীর পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। ধিলে পোশাক পরিধানের চেষ্টা করতে হবে। আক্রান্ত স্থান চুলকানো থেকে বিরত থাকা উত্তম।

আপাতত রোগের উপসর্গ থাকা পর্যন্ত এলার্জি জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। কারণ এসব খাবার চুলকানির মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে।

শারীরিক উচ্চতা অনেকটা জিনের উপর নির্ভর করে। আপনার জিন নির্ধারণ করবে আপনি কতটুকু উঁচু হবেন। তবে বিভিন্ন ধরণের ব্যায়াম ও রিং ঝুলানো শারীরিক বৃদ্ধিতে সহায়তা করে থাকে। নিয়মিত ব্যায়াম ও রিং এ ঝুলার ফলে সামান্য হলেও উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়ে থাকে।

আপনি যেটা ভাবছেন এটা মনে ভ্রুমমাত্র। ব্যায়াম করলে মানুষের উচ্চতা কমে যায় না। তবে শরীর মোটা হলে মনে হয় উচ্চতা কমে গেছে, কিন্তু উচ্চতা কমে না।

এজন্য মনের অলিক ধারণাকে দুর করে শারীরিক ব্যায়াম ও সুষম খাবার অব্যাহত রাখুন। সঠিক সময়ে প্রয়োজনীয় পুষ্টির ফলে শারীরিক বৃদ্ধিতে ব্যাঘাত ঘটতে পারে। তাই নিয়মিত রুটিনমাফিক খাদ্য তালিকায় সর্ব প্রকার খাদ্য রাখুন।

আর বয়স মাত্র ১৮ হয়েছে। এখনো আপনার শারীরিক বৃদ্ধি ঘটার জন্য যথেষ্ট সময় আছে। উক্ত সময়ের মধ্যে উচ্চতা আরো বৃদ্ধি পাওয়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা আছে। শরীরের প্রতি অধিক যত্নবান হওয়া প্রয়োজন।

এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে হলে সরাসরি যৌন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উচিত। ডাক্তারের কাছে গিয়ে ঐ সমস্যা পুরো হিস্ট্রি খুলে বলতে হবে।

এক্ষেত্রে লজ্জাশীলতা পরিহার করতে হবে। কারণ লজ্জায় কোন কিছু গোপন রাখলে সুচিকিৎসা পেতে সমস্যা হবে।

আর ঐ গোটা স্থানটি টিপাটিপি বা চুলকানো থেকে একদম বিরত থাকতে হবে।

করোনার সংকটে খাবার, টাকা বা অন্যান্য জিনিস দান করতে চাইলে নিজ হাতে দান করুন। নিজ হাতে দান করাই সবচেয়ে উত্তম কাজ। কারণ কোন সংগঠনের হাতে ডোনেট দিলে সঠিক মানুষের কাছে সহায়তা নাও পৌঁছতে পারে।

আপনার নিকটস্থ বা আত্নীয় স্বজনদের মধ্যে থেকে একটি প্রাথমিক তালিকা তৈরি করুন। উক্ত তালিকা অনুযায়ী নিজ হাতে তাদের কাছে আপনার ডোনেট পৌঁছে দিন।

এতে আপনার আশাপাশের কিছু সংখ্যক হলেও মানুষ সহায়তা পেয়ে খুশি হবে। এছাড়া আপনার এলাকার ধনী ও বিত্তবান ব্যক্তিদের নিম্নবিত্ত মানুষকে দান করার জন্য তাগিদ দেন।

সব মেয়ে তেলাপোকায় ভয় পায় এমনটা না। যাদের নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা রয়েছে তারা ভয় পায় না। কিন্তু তেলাপোকার ক্ষেত্রে অনেক মেয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলার কারণে চিৎকার বা লাফালাফি করে।

সব মেয়েরাই জানে তারা তেলাপোকাকে যতটা ভয়ানক ভাবে ততটা ভয়ানক নয়। কিন্তু তেলাপোকা দেখামাত্র আর নিজেকে ঠিক রাখতে পারে না। অর্থাৎ নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে না।

আর কিছু মেয়ে আছে এরা ন্যাকামো করে থাকে। এদের সামনে তেলাপোকার কথা বললেই চিৎকার বা লাফালাফি শুরু করে।

মেয়েদের প্রতি ছেলেদের বাজে দৃষ্টিভঙ্গি খুবই বিব্রতকর। ছেলেদের বাজে দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বাঁচতে মেয়েদেরও কিছু গুরুদায়িত্ব আছে।

এমন পরিস্থিতিতে বার বার ছেলেটার দিকে ফিরে তাকানো যাবে না। এমনটা করলে ছেলেটা বুঝবে এতে মেয়েটার সাপোর্ট আছে, তখন ছেলেটা তার খারাপ আচরণগুলো প্রদর্শন করতে পারে।

এই অবস্থায় মেয়ের শরীরের পোশাক, বাজে অঙ্গভঙ্গি ও দৃষ্টিভঙ্গি সংযত রেখে দ্রুত নিরাপদ স্থানে সরে দাঁড়াতে হবে। কোন ক্রমে নিজেকে স্মার্ট, স্টাইলিশ বা বিশেষ কিছু প্রমাণের চেষ্টা করা যাবে না।

এসব আচরণ করলে ছেলেটা আরো আকর্ষিত দৃষ্টি ও অঙ্গভঙ্গি প্রদর্শন করতে পারে। এজন্য এ সময় নিজেকে রক্ষা করতে নমনীয় আচরণের সহিত সতর্ক থাকতে হবে।

যত সতর্ক থাকবে, ততই নিজেকে বাজে ছেলেদের থেকে নিরাপদে রাখা যাবে।

বোবা শয়তানের জন্য এমন সমস্যা ঘটে থাকলে ঘুমানোর আগে দোয়া ও সূরা ইখলাস পাঠ করে ঘুমাতে হবে। ঘুমানোর সময় সোজা চিৎ হয়ে ঘুমানোর অভ্যাস থাকলে পরিহার করতে হবে। ডান কাত হয়ে ঘুমালে এই সমস্যা থেকে মুক্ত থাকা যায়।

যখন চেপে ধরে তখন সেন্স থাকলে দ্রুত বিসমিল্লাহর সহিত সূরা ইখলাস পাঠ করবে। সূরা ইখলাস তিনবার পাঠ করলে অবশ্যই ছেড়ে পালাবে।

এছাড়া এটা দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা হলে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া যেতে পারে। কারণ রোগের কারণেও এ ধরণের সমস্যা হতে পারে।

অনলাইনে বাংলায় সরাসরি হাদিস পড়তে চাইলে http://www.ihadis.com সাইট থেকে পড়তে পারবেন। এই সাইট থেকে বাংলায় সবগুলো সহিহ হাদিস পড়তে পারবেন।