1 টি উত্তর
দিয়েছেন
কিভাবে উত্তর দেবো ভেবে উঠতে পারছিনা। কারন পেসমেকার আর ইমপ্লান্টেশন দুটি আলাদা বিষয়। হার্ট অপারেশন তথা পেসমেকার বসালে রোগীকে কথা বার্তা বেশি বলতে দেয়া ঠিক নয়, কাজ কর্ম একেবারেই বন্ধ থাকবে, চর্বি জাতীয় খাবার দেয়া যাবেনা। রোগী যাতে উত্তেজিত না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হয়। ধুমপান পরিহার সহ মোবাইল থেকে দূরে, ইলেক্ট্রনিক্স পালস সৃষ্টিকারী ডিভাইস থেকে দূরে থাকা উচিত। অন্য দিকে ইমপ্লান্টেশন হচ্ছে শুক্রানু ও ডিম্বানু মিলে নিষেকের পর যে জাইগোট সৃষ্টি হয় সেটি সেটি ৬-৯ দিনের মধ্যে ব্লাস্টোসিস অবস্থায় জরায়ুর এন্ড্রোমেট্রিয়ামে স্থাপিত হবার প্রক্রিয়া। কাজেই এ জন্য বিশেষ কোন ব্যবস্থা নেবার দরকার হয়না। এটি প্রাকৃতিক ভাবেই ঘটে। পেটে আঘাত না লাগার দিকে সতর্ক রাখা ছাড়া অন্য কিছুই করার দরকার নাই। হ্যা যদি এমন হয় যে টেস্টিউব বেবী নিচ্ছেন তাহলে অবশ্য কিছু করার দরকার আছে কারন এক্ষেত্রে নিষেক হয় দেহের বাইরে টেস্টিউবে। তাই জাইগোট দেহের ভেতর প্রবেশ করিয়ে কৃত্রিমভাবে ইমপ্লান্টেশনে সাহায্য করতে হয় বলে ঔষধ সেবন, বিশ্রাম এবং নির্দিষ্ট হরমোন ক্ষরন করাতে সম্পুর্ন ডাক্টারী তত্ত্ববধানে রাখতে হয়। পিরিয়ড বন্ধ করতে হরমোন ইবজেকশনের দরকার হতে পারে এগুলো সবই ডাক্টার করবেন। নিজেদের শুধু সচেতন ও বিশ্রামে থাকার ব্যবস্থা নিতে হয়।
Download Bissoy Answers App Bissoy Answers