2 টি উত্তর

তন ক্যান্সার একটি ভয়ংকর কিন্তু সহজেই চিকিৎসা করা যায় এমন রোগ এবং ৯০% ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ সুস্থ করা সম্ভব যদি প্রাথমিক পর্যায়েই সেটা চিহ্নিত করা যায়।

 

আর প্রাথমিক পর্যায়ে স্তন ক্যান্সার চিহ্নিত করার সহজ উপায় হলো নিয়মিত স্তন পরীক্ষা করা। ১৫ থেকে ৪৫/৫০ বৎসরের সকল মহিলাদের উচিত নিয়মিত প্রতিমাসে

একবার করে নিজের স্তন নিজেই পরীক্ষা করা।যারা পর্ভবতী বা বাচ্চাকে বুকের দুধ পান করান তাদের উচিত নিয়মিত চিকিৎসক দ্বারা স্তন পরীক্ষা করান। স্বাভাবিক সময়ে

স্তন পরীক্ষার উপযুক্ত সময় হলো মাসিকের ৩ থেকে ৫ দিন পর।

স্তন পরীক্ষা করা খুবই সহজ একটি কাজ--সাধারন ৫টি ধাপে এটা করা সম্ভব--

 

ধাপ ১ ঃ

আয়নার সামনে কাধ সোজা করে দাঁড়ান, কোমরে হাত রাখুন ও আপনার স্তনের দিকে তাকান--
লক্ষ করুন--
১.আপনার স্তনের আকার, আকৃতি ও রং। ২.স্তনদ্বয় কোন দৃশত ফোলা স্থান অথবা বিকৃতি ছাড়া একই আকৃতির আছে কিনা। নিম্নলিখিত পরিবর্তন গুলো লক্ষ করলে

অতিস্বত্তর চিকিৎসকের পরামর্শ নিন-- ১.কুঁচকানো, ফোলা চামড়া অথবা চামড়াতে ডিম্পল( অনেকটা কমলা লেবুর খোসার মত) ২.স্তনের কোথাও ক্ষত অথবা লাল স্থান

অথবা ফোলা স্থান। ৩.স্থান পরিবর্তিত নিপল অথবা কুচঁকানো অথবা ভিতরে ঢুকে যাওয়া নিপল।
 

এবার দু'হাত মাথার উপর তুলুন ও পূর্ববর্তী ধাপে বর্ণিত পরিবর্তন গুলো আবারও লক্ষ করূন।
 (ধাপ ২)

ধাপ ৩ ঃ

এবার আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থাতেই লক্ষ করুন আপনার নিপল থেকে ( একটি অথবা দু'টি থেকেই) কোন ধরনের তরল জাতীয় কিছু (যেমন পানির মত অথবা হলুদে অথবা রক্ত) বের হচ্ছে কিনা।

 

এবার শুয়ে পরুন এবং আপনার ডান হাত দিয়ে বাম স্তনে চাপ দিন। এক্ষেত্রে আপনার হাতের আঙ্গুল গুলো একসাথে করে ব্যবহার করুন( হাতের তালু নয়)।ধীরে ধীরে

চাকতির মত করে হাত ঘুরান ও অনুভব করুন। এভাবে সম্পূর্ণ স্তনকে পরীক্ষা করুন(উপরের কলারবোন থেকে পেটের ওপর পর্যন্ত ও এক পাশ থেকে অন্য পাশ পর্যন্ত এবং

অবশ্যই একই ভাবে বগল পরীক্ষা করুন) একই ভাবে বাম হাত দিয়ে ডান স্তন পরীক্ষা করুন।

 

এই পরীক্ষা করার সময় অবশ্যই লক্ষ্য রাখবেন যাতে আপনার সম্পূর্ণ স্তনটি পরীক্ষা করা হয়েছে। এক্ষেত্রে আপনি নিপল থেকে শুরু করে বৃত্তাকার ভাবে বাহিরের দিকে যেতে

পারেন অথবা উপর-নিচ করে সম্পূর্ণ স্তন পরীক্ষা করতে পারেন।লক্ষ্য রাখবেন যাতে আপনি সকল টিস্যু( চামড়া থেকে একদম স্তনের নিচের বুকের খাচা পর্যন্ত ) অনুভব

করেছেন।চামড়া ও চামড়ার অল্প নিচের অংশের জন্য অল্প চাপ দিন, স্তনের মাঝের অংশের জন্য মাঝারি চাপ দিন ও স্তনের নিচের অংশ অনুভবের জন্য গভীর ভাবে চাপ

দিন।
 
 
 

এবার আপনি বসে অথবা দাঁড়িয়ে পূর্ববর্তী ধাপে বর্ণিত উপায়ে আবার আপনার স্তনদ্বয় পরীক্ষা করুন।এই ধাপটি গোসল করার সময়ও করতে পারেন , কারন সেসময়

চামড়া ভিজা ও পিচ্ছিল থাকে ও করতে শুবিধা হয়।

 

আরও জানতে
http://en.wikipedia.org/wiki/Breast_self-examination#How_to_perform_BSE

স্তন পরীক্ষার সহজ পাঁচটি ধাপ স্তন ক্যান্সার একটি ভয়ংকর কিন্তু সহজেই চিকিৎসা করা যায় এমন রোগ এবং ৯০ভাগ ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ সুস্থ করা সম্ভব যদি প্রাথমিক পর্যায়েই সেটা চিহ্নিত করা যায়। আর প্রাথমিক পর্যায়ে স্তন ক্যান্সার চিহ্নিত করার সহজ উপায় হলো নিয়মিত পরীক্ষা করা। ১৫ থেকে ৪৫/৫০ বছরের সকল নারীদের উচিত নিয়মিত প্রতিমাসে একবার করে নিজের স্তন নিজেই পরীক্ষা করা। যারা গর্ভবতী বা বাচ্চাকে বুকের দুধ পান করান তাদের উচিত নিয়মিত চিকিৎসক দ্বারা স্তন পরীক্ষা করানো। স্বাভাবিক সময়ে স্তন পরীক্ষার উপযুক্ত সময় হলো মাসিকের ৩ থেকে ৫ দিন পর। স্তন পরীক্ষা করা খুবই সহজ একটি কাজ। সাধারণত ৫টি ধাপে এটা করা সম্ভব: ধাপ ১ : আয়নার সামনে কাধ সোজা করে দাঁড়ান, কোমরে হাত রাখুন ও আপনার স্তনের দিকে তাকান এবং লক্ষ করুন ২.স্তনদ্বয় দৃশ্যত ফোলা স্থান অথবা বিকৃতি ছাড়া একই আকৃতির আছে কিনা। নিম্নলিখিত পরিবর্তনগুলো লক্ষ করলে অতিসত্ত্বর চিকিৎসকের পরামর্শ নিন ১.কুঁচকানো, ফোলা চামড়া অথবা চামড়াতে ডিম্পল (অনেকটা কমলা লেবুর খোসার মত) ২.স্তনের কোথাও ক্ষত অথবা লাল স্থান অথবা ফোলা স্থান। ৩.স্থান পরিবর্তিত নিপল অথবা কুচঁকানো।

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ