বৈশাখ, জৈষ্ঠ্য, আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র, আশ্বিন, কার্তিক, অগ্রহায়ণ, পৌষ, মাঘ, ফাল্গুন ও চৈত্র শব্দের অর্থ কী?

বৈশাখ, জৈষ্ঠ্য, আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র, আশ্বিন, কার্তিক, অগ্রহায়ণ, পৌষ, মাঘ, ফাল্গুন ও চৈত্র শব্দের অর্থ কী?
বিভাগ: 
Share

1 টি উত্তর

এসব শব্দের সরাসরি অর্থ নেই। কোনো শব্দ থেকে উৎপন্ন হয়ে এগুলো রূপ ধারণ করেছে। এর অর্থমূলক আলোচনা করা হলো-

  1. বিশাখা থেকে এসেছে বৈশাখ। বিশাখা একটি নক্ষত্রের নাম। মূলত বিশাখা যেদিন অস্ত যায় সেদিন বৈশাখ মাস শুরু হয়ে বলে এটির নাম বৈশাখ। 
  2. জ্যৈষ্ঠা নক্ষত্র থেকে এসেছে জ্যৈষ্ঠ্য। এ নক্ষত্র যেদিন অস্ত যায় সেদিন এ মাস শুরু হওয়ার কারণে এই নাম।
  3. পূর্বাষাড়া নক্ষত্র থেকে এসেছে আষাঢ়। এ নক্ষত্র যেদিন অস্ত যায় সেদিন এ মাস শুরু হওয়ার কারণে এই নাম।
  4. শ্রাবণা বা শ্রবণ নক্ষত্র থেকে এসেছে শ্রাবণ। এ নক্ষত্র যেদিন অস্ত যায় সেদিন এ মাস শুরু হওয়ার কারণে এই নাম।
  5. ভদ্রপদ বা ভাদ্রপদা নক্ষত্র থেকে এসেছে ভাদ্র। এ নক্ষত্র যেদিন অস্ত যায় সেদিন এ মাস শুরু হওয়ার কারণে এই নাম।
  6. আশ্বিনী বা অশ্বিনী নক্ষত্র থেকে এসেছে আশ্বিন মাস। এ নক্ষত্র যেদিন অস্ত যায় সেদিন এ মাস শুরু হওয়ার কারণে এই নাম।
  7. কার্তিক এসেছে কৃত্তিকা থেকে। কৃত্তিকাও একটি নক্ষত্র যেটি যেদিন অস্ত যায় সেদিন হতে কার্তিক মাস শুরু হয়। 
  8. অগ্র অর্থ প্রথম এবং হায়ণ অর্থ বছর। আগে অগ্রহায়ন বাংলা বছরের প্রথম মাস ছিল এজন্য এটির নাম অগ্রহায়ন রাখা হয়েছিল। 
  9. পূষ্যা নক্ষত্র থেকে এসেছে পৌষ। এ নক্ষত্র যেদিন অস্ত যায় সেদিন এ মাস শুরু হওয়ার কারণে এই নাম।
  10. মঘা নক্ষত্র থেকে এসেছে মাঘ মাস। এ নক্ষত্র যেদিন অস্ত যায় সেদিন এ মাস শুরু হওয়ার কারণে এই নাম।
  11. ফাল্গুনী নক্ষত্র থেকে এসেছে ফাল্গুন মাস। এ নক্ষত্র যেদিন অস্ত যায় সেদিন এ মাস শুরু হওয়ার কারণে এই নাম।
  12. চিত্রা নক্ষত্র থেকে এসেছে চৈত্র‍্য। এ নক্ষত্র যেদিন অস্ত যায় সেদিন এ মাস শুরু হওয়ার কারণে এই নাম।
এই মাসের নামগুলো সব জোতির্বিজ্ঞান হতে গ্রহণ করা। নক্ষত্র অস্ত যাবার দিনে মাস শুরু মিলিয়ে এই মাসগুলোর নামকরণ করা হয়েছে।

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ