এ বিষয়ে ইসলামিক বা গ্রহণযোগ‍্য ব‍্যাখ‍্যা কী?

3 Answers

 (118 পয়েন্ট) 

উত্তরের সময় 

দুটোই অবৈধ যৌনাচার। ব্যাভিচার হলো বিবাহের পূর্বে যৌনাচার। আর পরকীয়া হলো বিবাহের পর স্ত্রী ও দাসী ব্যাতীত অন্য কোন রমনীর সাথে যৌনাচার। ইসলামে নিজ স্ত্রী ও কৃতদাসী ব্যতীত অন্য সকল নারীর সামনে নিজের যৌনাঙ্গকে সংযত রাখতে বলা হয়েছে।
 (8088 পয়েন্ট) 

উত্তরের সময় 

পরকীয়া আর ব্যভিচারের মধ্যে পার্থক্য হলো পরকীয়া ব্যভিচারের প্রথম ধাপ। পরকীয়া যখন যৌন মিলনে গড়ায় তখন তা ব্যভিচারে পরিণত হয়। আর ইসলামে উভয়টিকেই কঠোরভাবে নিষেধ করা হয়েছে।

আবু হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন:  দুই চক্ষুর যিনা হচ্ছে- দেখা, দুই কানের যিনা হচ্ছে- শুনা, জিহ্বার যিনা হচ্ছে- কথা, হাতের যিনা হচ্ছে- ধরা, পায়ের যিনা হচ্ছে- হাঁটা, অন্তর কামনা-বাসনা করে; আর যৌনাঙ্গ সেটাকে বাস্তবায়ন করে অথবা করে না। -সহিহ মুসলিম

ইবনে বাত্তাল (রহঃ) বলেন:  দৃষ্টি ও কথাকে যিনা বলা হয়েছে যেহেতু এগুলো প্রকৃত যিনার আহ্বায়ক। এজন্য নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: যৌনাঙ্গ সেটাকে বাস্তবায়ন করে অথবা করে না। -ফাতহুল বারি 

 (6515 পয়েন্ট) 

উত্তরের সময় 

পরকীয়া আর ব‍্যভিচার দুটিই ভিন্ন বিষয় কিন্তু প্রথমটার দ্বারা দ্বিতীয়টি হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। পরকীয়া হল স্বামী থাকা সত্বেও পরপুরুষের সাথে সম্পর্ক তৈরি করা। পরকীয়া আর প্রেম একই বিষয়। যেহেতু শরিয়তে প্রেম নিষেধ সেহেতু পরকীয়াও নিষেধ। আর ব্যভিচার সরাসরি আয়াত দ্বারাই নিষিদ্ধ। আর শরিয়তের কোন বিধানের কারণ সাধারণ মানুষের জানতে না চাওয়াই উত্তম ।                    

সম্পর্কিত প্রশ্নসমূহ

Loading...

জনপ্রিয় বিভাগসমূহ

Loading...