ইসলামে সন্তান জন্মের পরবর্তী ৪০ দিন পর্যন্ত সহবাস করা নিষেধ কেনো?

ইসলামে সন্তান জন্মের পরবর্তী ৪০ দিন পর্যন্ত সহবাস করা নিষেধ কেনো?এ বিষয়ে ইসলামিক বা গ্রহণযোগ‍্য ব‍্যাখ‍্যা কী?
বিভাগ: 
Share

1 টি উত্তর

ইসলামে সন্তান জন্মের পর থেকে রক্ত আসা বন্ধ হওয়া পর্যন্ত সহবাস নিষেধ। তবে এর সময়সীমা হলো সর্বোচ্চ ৪০ দিন। এর কম সময়েও কারো কারো রক্ত বন্ধ হয়ে যায়। এটাকে শরীয়তের পরিভাষায় নিফাস বলে। নিফাস (অর্থাৎ মহিলাদের বাচ্চা প্রসবের পর চল্লিশ দিন বা এর কমে যে কয়দিনে রক্ত আসা পরিপূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে যায়) অবস্থায় স্ত্রী সহবাস করা উচিত না। এ সময়ে সহবাস করলে উভয়েরই অনেক ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। কেননা এ সময়ের রক্তের প্রচুর পরিমাণ বিষাক্ত জীবানু থাকে। যার দ্বারা ভয়ানক রোগ হওয়ার সম্ভাবনা প্রমাণিত। অনেক পুরুষকে দেখা যায় যে , এ স্ময় সহবাস করার কারণে লজ্জাস্থানে এলার্জী জাতীয় বিভিন্ন রোগ হয়। লজ্জাস্থানে জ্বালাপোড়া শ্র“ হয়ে যায়, আবার কারো ধাতু দুর্বলতা দেখা দেয়। এ সময়ের সহবাস দ্বারা সন্তান জন্ম নিলে অনেক ক্ষেত্রে সন্তানের শরীরে বিভিন্ন রোগ হয়ে থাকে। শরীরে বিভিন্ন ধরণের ঘা হয়, যা থেকে অনবরত পানি ঝরতেই থাকে এবং বাচ্চাদানী বাহিরে বের হয়ে আসে । আবার অনেক সময় মহিলাদের ভ্রুণ নষ্টের রোগ হয়ে থাকে।এ ছাড়াও এ সময়ের সহবাসে নারী পুরুষ উভয়েই বিভিন্ন ধরণের রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হ। কেননা ঋতুস্রাব ও নেফাসের রক্তে শরীরের ভিতরের রোগ জীবাণুযুক্ত অপবিত্র উপকরণ থাকে। সে সাথে বিষাক্ত জীবাণুও থাকে। রক্তস্রাবের সময় মহিলাদের সর্বক্ষণ রক্ত নির্গত হওয়ার কারণে কারো কারো যৌনাঙ্গটি এক প্রকার ফোলা ও উষ্ণ থাকে। ঋতুস্রাব বা নেফাস থেকে পবিত্র হয়ে গোসল করার আগ পর্যন্ত মহিলাদের সাথে সহবাস করবে না।

বি.দ্র. ইসলামের সকল বিধান যুক্তির ঊর্ধ্বে। তথাপি কোন বিধান অযৌক্তিক নয়। সামান্য কিছু বিষয়ের যুক্তি আমাদের ক্ষুদ্র জ্ঞানশক্তিতে বোধগম্য হয়, তবে বৃহদাংশ আমাদের জ্ঞানের বাইরে। যাই হোক উপরোক্ত আলোচনা এবং যুক্তির কারণে নিফাস তথা বাচ্চা প্রস্রাব পরবর্তী রক্তস্রাব চলাকালীন সময়ে সহবাস নিষিদ্ধ। আল্লাহ তা‘আলাই ভালো জানেন।

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ