2 Answers

 (12506 পয়েন্ট) জ্ঞান অন্বেষনে তৃষ্ণার্ত! জ্ঞানের জন্য জ্ঞানকে ভালোবাসি, জ্ঞানের জন্যই সাধনা-সিদ্ধির প্রচেষ্টা করি।

উত্তরের সময় 

সক্ষম অক্ষম ভিক্ষুককেও ভিক্ষা দেওয়া জায়েজ। তবুও ভিক্ষুককে ধমক দেওয়া বা ফিরিয়ে দেওয়া যাবে না। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লাম বলেনঃ ভিক্ষা চাওয়া তিন শ্রেনীর ব্যক্তি ব্যতীত অন্যদের জন্য হালাল নয়। (১) ধূলা-মলিন নিঃস্ব ভিক্ষুকের জন্য। (২) প্রচন্ড ঋণের চাপে জর্জরিত ব্যক্তির জন্য। (৩) যার উপর দিয়াত আছে, অথচ তা পরিশোধের অক্ষমতার কারণে নিজের জীবন বিপন্ন এ ধরনের ব্যক্তিরা যাঞ্ছা করতে পারে। (তিরমিযী, ইবনে মাজাহ, নাসাঈ, হাদিসের মানঃ যঈফ) আল্লাহ তাআলা বলেন, অতএব তুমি পিতৃহীনের প্রতি কঠোর হয়ো না এবং ভিক্ষুককে ধমক দিয়ো না। (সূরা যুহা ৯-১০) রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, শক্তিসম্পন্ন ও সুস্থ-সবল ব্যক্তির পক্ষে ভিক্ষা করা হালাল নয়। (সুনানে তিরমিজি) সাহায্য প্রার্থনাকারীর অধিকার সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকটে যে সকল মহিলা বাইআত গ্রহণ করেছিলেন তিনিও তাদের অন্তর্ভুক্ত। তিনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বললেন, ভিক্ষুক এসে আমার দরজায় দাড়ায়, অথচ আমার হাতে তাকে দেওয়ার মত কিছুই থাকে না। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে বললেনঃ যদি তুমি পশুর পায়ের একটি ক্ষুর খুবই সামান্য জিনিস ছাড়া তাকে দেওয়ার মত আর কিছু না পাও তবে তাই তার হাতে তুলে দাও। (তিরমিজীঃ ৬৬৫)
 (1905 পয়েন্ট) 

উত্তরের সময় 

না সক্ষম ভিক্ষুককে ভিক্ষা দেওয়া জায়েজনা। নবী করিম (স.) সক্ষম ভিক্ষুককে ভিক্ষা দেননাই। কারন ভিক্ষাত অসহায়দের জন্য।
সম্পর্কিত প্রশ্নসমূহ

Loading...

জনপ্রিয় বিভাগসমূহ

Loading...