Share

4 টি উত্তর

আজীবন অর্থ হলো যতদিন জীবন আছে ততদিন আর আমরণ অর্থ হলো মৃত্যুর আগে পর্যন্ত । দুইটার অর্থ প্রায় একই।
অভিধানের দোকানে কিন্তু দুটো শব্দই পৃথক পৃথক মোড়কে পৃথক পৃথক অর্থে পাওয়া যাচ্ছে - যেমন 'যাবজ্জীবন' বা সমগ্র জীবনব্যাপী (ব্যবহারিক বাংলা অভিধান, বাংলা অ্যকাদেমি) এবং 'মৃত্যু পর্য্যন্ত স্থায়ী' বা 'মরণ অবধি' । হরিচরণ বন্দ্যোপাধ্যায়-এর 'বঙ্গীয় শব্দকোষ'-এ একই অর্থ দেওয়া আছে । সবচেয়ে বড় কথা - কোথাও আজীবন এর অর্থে আমরণ কিম্বা আমরণ-এর অর্থে আজীবন লেখা নেই । তবে 'আজীবন' এবং 'আমরণ' এই দুইয়েরই তাদের ঘুর্ণায়মান কক্ষপথে চলতে চলতে কোন এক মুহূর্ত্তে তারা এক বিন্দুতে ক্কচিৎ মিলেও যায় - এই ঐক্যসূত্র অবশ্যই বিরাজমান এবং এই বিষয়ে সংশয়ও নেই । অর্থগুলি অভেদের দিক থেকে দেখলে একরকম আর ভেদের দিক থেকে দেখলে আরেকরকম মনে হয় । এই নিয়েই আমাদের দ্বৈতাদ্বৈতের সংসার ! মোটা দাগে সরলীকরণই করে ফেলি, যখন বলি, আজীবন=আমরণ। শব্দ দুটি ব্যবহারের সময় আমাদেরকে অবশ্যই দেখতে হবে প্রাসঙ্গিকতা, যার ভিত্তিতে আমরা বলব, 'যতিন দাশ আমরণ অনশন করেছিলেন', 'আমি আজীবন থাকব সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে'। 'যতিন দাশ আজীবন অনশন করেছিলেন' বলব না (কেননা এতে তাঁর অনশন-পূর্ববর্তী জীবনকালও অনশনের আওতায় এসে যায়), যদিও 'আমি আমরণ থাকব সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে' কথাটি বোধ করি 'আমি আজীবন থাকব সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে' কথাটির সমার্থক হবে,আশা করি বুঝতে পেরেছেন।
আজীবন বলতে বোঝায় বুদ্ধি বিবেক সম্পর্ন হওয়ার পর থেকে বর্তমান(ঐ ব্যক্তির বর্তমান সময় পর্যন্ত) সময় পর্যন্ত যা কিছু করা বা ঘটা। আর আমরন পর্যন্ত হচ্ছে মৃত্যুর পুর্ব পর্যন্ত।(এক্ষেত্রে কত পুর্ব থেকে তা গুরুত্বপুর্ন নয়, কিন্তু অবশ্যই বর্তমান থেকে মৃত্যু পর্যন্ত) করা বা ঘটা।
আজীবন মানে জীবন পর্যন্ত অর্থাৎ যতদিন জীবন আছে। আর আমরণ মানে মরণের পূর্ব পর্যন্ত অর্থাৎ মরণ সময় পর্যন্ত। আপাতদৃষ্টিতে এই দুটির মধ্যে পার্থক্য নেই। বাংলা ভাষায় এমন কতগুলো শব্দ ব্যবহৃত হয়। যেগুলো পরস্পর বিপরিতার্থক শব্দ। কিন্তু উপসর্গ যোগ করার ফলে সমার্থক শব্দ রুপান্তরিত হয়।

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ