অনিয়মিত ঘুমের কি কি সমস্যা হতে পারে?এবং আমার এই টিসু ভিজিয়ে চোখ বেধে রাখা কি ঠিক হবে?

অনিয়মিত ঘুমের কি কি সমস্যা হতে পারে?এবং আমার এই টিসু ভিজিয়ে চোখ বেধে রাখা কি ঠিক হবে?রাত্রে আমি নিয়মিত ঘুমাতে পারি না।সে কারণে আমার চোখে জ্বালাপোড়া করে।এজন্য আমি আমার চোখে টিস্যু ভিজিয়ে দুই চোখ বেঁধে রাখি।এতে কিছুটা ঠান্ডা অনুভূতি হয়।কিন্তু সকালে যখন ঘুম থেকে উঠি,তখন প্রায় আধা ঘন্টার মত চোখ ব্যথা করে।এতে আমার চোখের কি কোনো সমস্যা হবে কি? আশাকরি সকলেই সঠিক উত্তর দিবেন। কেননা এটা চোখের ব্যাপার।
বিভাগ: 
Share

1 টি উত্তর

রাতে অনিয়মিত ঘুমে যেসব সমস‍্যা হয়:

১। রাতে না ঘুমানোর সঙ্গে আত্মহত‍্যার প্রবণতার সম্পর্ক রয়েছে।
২। চোখের চারপাশে কালো দাগ পড়ে যায়।
৩। অকালে চেহারায় বয়সের ছাপ পড়ে।
৪। কাজ করার ইচ্ছা কমে যায়।
৫। ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়।
৬। হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, শারীরিক স্থূলতা, এমনকি স্ট্রোকের সম্ভাবনা বেড়ে যায়।
৭। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমতে থাকে।
৮। হরমোনের ভারসাম‍্য নষ্ট হতে পারে।
৯। মৃত‍্যুঝুকি বেড়ে যায়।
১০। স্বাস্থ নষ্ট হয়ে যায়।
রাতে ঘুমানোর সময় টিস‍্যু ভিজিয়ে চোখ বেঁধে রাখা ঠিক নয়। এতে আপনার হিতে বিপরীত হতে পারে। তাই এমনটি করা থেকে বিরত থাকুন। যতদিন আপনার ঘুম ঠিকমতো না হচ্ছে, ততদিন মোবাইল, ইন্টারনেট, টেলিভিশন, রেডিও ব‍্যবহার থেকে বিরত থাকুন। সারাদিন ধরে কাজ, চাকুরী বা ব‍্যবসা করুন। রাত ৯টায় রাতের খাবারের পর লাইট বন্ধ করে শুয়ে পড়বেন। প্রতিদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়বেন। এশার নামাজ পড়ে রাতের খাবার খেয়ে ঘুমের দোয়া পড়ে শুয়ে পড়বেন। ঘুম থেকে ভোরে ওঠে আবার ফজর নামাজ পড়বেন। নিজের মধ‍্যে নিয়মানুবর্তিতা বা শৃঙ্খলা নিয়ে আসুন, তাহলে এমনিতেই রাতের সময় নিয়মিত ঘুম চলে আসবে। ধন‍্যবাদ।

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ