Share

3 টি উত্তর

নিয়মিত যৌন মিলনের ফলে- ইসলাম ধর্মে স্বামী স্ত্রী বহির্ভুত যেকোন শারিরীক সম্পর্ক যেমন পাপ তেমনি স্বামী-স্ত্রীর শারীরিক মিলন বা সহবাস অত্যান্ত পুণ্যের কাজ। যৌন চাহিদা খুবই স্বাভাবিক ও সাধারণ একটি ব্যাপার।


নারী-পুরুষ শারীরিকভাবে মিলিত হয়, প্রজননে অংশ নেয়, এবং এর মাধ্যমেই পৃথিবীতে মানব প্রজাতির ধারাবাহিকতা বজায় থাকে।সহবাস শুধুই উপভোগ করার জন্য নয়।


সহবাস সাস্থ্যকরও বটে। সহবাস শুধু শরীর মনকে তৃপ্তি দেয় না। বরং শরীরকে রাখে সুস্থ সবল এবং তরতাজা।তাই মনের আনন্দে সহবাস করুন। মন এবং শরীরকে ঝরঝরে রাখুন।


যৌন মিলনের এমন কিছু বৈজ্ঞানিক উপকারিতা রয়েছে যা আমাদের দেহে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে সহায়তা করে থাকে। আসুন এমনই কিছু উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিই।


১) সহবাস করলে শরীরে ক্ষতিকর জীবানু বাসা বাধতে পারে না। গবেষকরা রীতিমতো পরীক্ষা করে জানিয়েছেন, যারা সপ্তাহে অন্তত দুবার সহবাস করেন, তাদের শরীরে ক্ষতিকর জীবানু তুলনায় কম থাকে। তাই শরীরের জীবানু রুখতে হরদম সহবাস করুন নিজের সঙ্গী অথবা সঙ্গীনীর সঙ্গে।


২) যত বেশি সহবাস করেবন, তত বেশি সহবাস করার জন্য সক্ষম হবেন। কোনও কাজ নিয়মিত করলে, তাতে আপনার দক্ষতা বাড়ে। এটাই স্বাভাবিক নিয়ম। তাহলে সহবাস এর ব্যিতক্রম হবে কেন? তাই নিয়মিত সহবাস মানে আরও সহবাস করার জন্য পটু হয়ে ওঠা।


৩) সহবাস করলে মেয়েদের অভ্যন্তরীন অঙ্গ এবং পেশী সচল থাকে। রক্ত সঞ্চালন ভাল হয়। জিমে গিয়ে শরীরের বাইরের দিক তো সুঠাম করে তোলা যায়। কিন্তু শরীরের ভেতরের দিককেও ভাল রাখতে দরকার নিয়মিত সহবাস।


৪) সহবাস করা ব্লাড প্রেসারের জন্য খুবই ভাল। পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, লো ব্লাড প্রেসারের মানুষও অনেক ভাল অনুভব করেন নিয়মিত সহবাস করলে।


৫) সহবাস আসলে এক ধরনের ব্যয়াম। প্রতি মিনিটে এতে পাঁচ ইউনিট ক্যালোরি নষ্ট হয়। রোজ যেমন নিয়ম করে জিমে সময় দেন, একই রকম ভাবে এবার থেকে সহবাসের জন্য সময় বের করুন।


৬) মনের সঙ্গে সহবাসের কী অদ্ভূত মিল। নিয়মিত সহবাস করেল, আপনার হৃদপিন্ড ভাল থাকবে। ফলে কমবে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা।


৭) শরীরে অসহ্য যন্ত্রণা? পেইন কিলার খেতে হবে? পরে খাবেন। আগে একবার টুক করে সহবাস উপভোগ করে নিন। তারপর নিজেই অনুভব করবেন, আপনার যন্ত্রণা ভ্যানিশ!


৮) বেশি সহবাসকরেন? খুব ভাল। খানিকটা নিশ্চিত থাকতে পারেন এটা ভেবে যে, অন্য রোগ আপনাকে ছুঁতে পারে, কিন্তু ক্যানসার অপনার থেকে দূরে থাকবে।


৯) রাতে ঘুম আসে না? খুব চিন্তা মাথায়? কীভাবে কমবে? এই চিন্তায় আরও ঘুম আসছে না চোখে? এত চিন্তা করবেন না। সহবাস করুন আর উপভোগের শেষে বিছানায় শরীর এলিয়ে দিন। দেখবেন আপনার চোখে কখন ঘুম নেমে এসেছে।


১০) জীবন যে গতিতে চলছে, তাতে স্ট্রেস আসাটাই স্বাভাবিক। এই স্ট্রেস থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায় একটাই। সহবাস করুন।


হৃদয়কে সুস্থ রাখতে সহবাসের বিকল্প নেই। গবেষণায় দেখা গেছে, য়ে পুরুষ সপ্তাহে ২ বা তার বেশি সংখ্যকবার যৌনসহবাস করেন তার ক্ষেত্রে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকটাই কম। তাই বেশিদিন সুস্থ ভাবে বাঁচতে চাইলে যৌনতা আপনাকে সাহায্য করতেই পারে।


বেসিনের মধ্যে এক গ্লাস লবন ঢেলে দিন, তারপর যা হবে তা দেখলে আপনি চমকে যাবেন…

বেসিনের মধ্যে এক গ্লাস- লবন শুধুমাত্র রান্নার কাজেই ব্যবহার হয় না, এটি আমাদের শরীরকে সুস্থ ও সবল রাখতেও সহায়তা করে।


এছাড়াও আমরা অনেক কিছুই করতে পারি এই লবনের দ্বারা। এখানে আমরা আলোচনা করব লবনের কিছু অবাক করা উপযোগীতা সম্বন্ধে।


তথ্য সুত্র

★★ইসলাম ধর্মে স্বামী স্ত্রী বহির্ভুত যেকোন শারিরীক সম্পর্ক যেমন পাপ, তেমনি স্বামী-স্ত্রীর শারীরিক মিলন অত্যান্ত পুণ্যের কাজ। যৌন চাহিদা খুবই স্বাভাবিক ও সাধারণ একটি ব্যাপার। সহবাস শুধুই উপভোগ করার জন্য নয়। বরং সহবাস সাস্থ্যকরও বটে। সহবাস শুধু শরীর-মনকে তৃপ্তি দেয় না। বরং শরীরকে রাখে সুস্থ সবল এবং তরতাজা। তাই মনের আনন্দে সহবাস করুন। মন এবং শরীরকে ঝরঝরে রাখুন। →→যৌন মিলনের এমন কিছু বৈজ্ঞানিক উপকারিতা রয়েছে যা আমাদের দেহে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে সহায়তা করে থাকে। আসুন এমনই কিছু উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিই। ১) সহবাস করলে শরীরে ক্ষতিকর জীবানু বাসা বাধতে পারে না।  গবেষকরা রীতিমতো পরীক্ষা করে জানিয়েছেন, যারা সপ্তাহে অন্তত দুবার সহবাস করেন, তাদের শরীরে ক্ষতিকর জীবানু তুলনায় কম থাকে। তাই শরীরের জীবানু রুখতে হরদম সহবাস করুন নিজের সঙ্গী অথবা সঙ্গীনীর সঙ্গে। ২) যত বেশি সহবাস করেবন, তত বেশি সহবাস করার জন্য সক্ষম হবেন। কোনও কাজ নিয়মিত করলে, তাতে আপনার দক্ষতা বাড়ে। এটাই স্বাভাবিক নিয়ম। তাহলে সহবাস এর ব্যিতক্রম হবে কেন? তাই নিয়মিত সহবাস মানে আরও সহবাস করার জন্য পটু হয়ে ওঠা। ৩) সহবাস করলে মেয়েদের অভ্যন্তরীন অঙ্গ এবং পেশী সচল থাকে। রক্ত সঞ্চালন ভাল হয়। জিমে গিয়ে শরীরের বাইরের দিক তো সুঠাম করে তোলা যায়। কিন্তু শরীরের ভেতরের দিককেও ভাল রাখতে দরকার নিয়মিত সহবাস। ৪) সহবাস করা ব্লাড প্রেসারের জন্য খুবই ভাল। পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, লো ব্লাড প্রেসারের মানুষও অনেক ভাল অনুভব করেন নিয়মিত সহবাস করলে। ৫) সহবাস আসলে এক ধরনের ব্যয়াম। প্রতি মিনিটে এতে পাঁচ ইউনিট ক্যালোরি নষ্ট হয়। রোজ যেমন নিয়ম করে জিমে সময় দেন, একই রকম ভাবে এবার থেকে সহবাসের জন্য সময় বের করুন। ৬) মনের সঙ্গে সহবাসের কী অদ্ভূত মিল। নিয়মিত সহবাস করেল, আপনার হৃদপিন্ড ভাল থাকবে। ফলে কমবে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা। ৭) শরীরে অসহ্য যন্ত্রণা? পেইন কিলার খেতে হবে? পরে খাবেন। আগে একবার টুক করে সহবাস উপভোগ করে নিন। তারপর নিজেই অনুভব করবেন, আপনার যন্ত্রণা ভ্যানিশ! ৮) বেশি সহবাসকরেন? খুব ভাল। খানিকটা নিশ্চিত থাকতে পারেন এটা ভেবে যে, অন্য রোগ আপনাকে ছুঁতে পারে, কিন্তু ক্যানসার অপনার থেকে দূরে থাকবে। ৯) রাতে ঘুম আসে না? খুব চিন্তা মাথায়? কীভাবে কমবে? এই চিন্তায় আরও ঘুম আসছে না চোখে? এত চিন্তা করবেন না। সহবাস করুন আর উপভোগের শেষে বিছানায় শরীর এলিয়ে দিন। দেখবেন আপনার চোখে কখন ঘুম নেমে এসেছে। ১০) জীবন যে গতিতে চলছে, তাতে স্ট্রেস আসাটাই স্বাভাবিক। এই স্ট্রেস থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায় একটাই। সহবাস করুন। (১১)হৃদয়কে সুস্থ রাখতে সহবাসের বিকল্প নেই। গবেষণায় দেখা গেছে, য়ে পুরুষ সপ্তাহে ২ বা তার বেশি সংখ্যকবার যৌনসহবাস করেন তার ক্ষেত্রে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকটাই কম। তাই বেশিদিন সুস্থ ভাবে বাঁচতে চাইলে যৌনতা আপনাকে সাহায্য করতেই পারে।
নিয়মিত যৌন মিলনের ফলে- ইসলাম ধর্মে স্বামী স্ত্রী বহির্ভুত যেকোন শারিরীক সম্পর্ক যেমন পাপ তেমনি স্বামী-স্ত্রীর শারীরিক মিলন বা সহবাস অত্যান্ত পুণ্যের কাজ। যৌন চাহিদা খুবই স্বাভাবিক ও সাধারণ একটি ব্যাপার। নারী-পুরুষ শারীরিকভাবে মিলিত হয়, প্রজননে অংশ নেয়, এবং এর মাধ্যমেই পৃথিবীতে মানব প্রজাতির ধারাবাহিকতা বজায় থাকে।সহবাস শুধুই উপভোগ করার জন্য নয়। সহবাস সাস্থ্যকরও বটে। সহবাস শুধু শরীর মনকে তৃপ্তি দেয় না। বরং শরীরকে রাখে সুস্থ সবল এবং তরতাজা।তাই মনের আনন্দে সহবাস করুন। মন এবং শরীরকে ঝরঝরে রাখুন। যৌন মিলনের এমন কিছু বৈজ্ঞানিক উপকারিতা রয়েছে যা আমাদের দেহে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে সহায়তা করে থাকে। আসুন এমনই কিছু উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিই। ১) সহবাস করলে শরীরে ক্ষতিকর জীবানু বাসা বাধতে পারে না। গবেষকরা রীতিমতো পরীক্ষা করে জানিয়েছেন, যারা সপ্তাহে অন্তত দুবার সহবাস করেন, তাদের শরীরে ক্ষতিকর জীবানু তুলনায় কম থাকে। তাই শরীরের জীবানু রুখতে হরদম সহবাস করুন নিজের সঙ্গী অথবা সঙ্গীনীর সঙ্গে। ২) যত বেশি সহবাস করেবন, তত বেশি সহবাস করার জন্য সক্ষম হবেন। কোনও কাজ নিয়মিত করলে, তাতে আপনার দক্ষতা বাড়ে। এটাই স্বাভাবিক নিয়ম। তাহলে সহবাস এর ব্যিতক্রম হবে কেন? তাই নিয়মিত সহবাস মানে আরও সহবাস করার জন্য পটু হয়ে ওঠা। ৩) সহবাস করলে মেয়েদের অভ্যন্তরীন অঙ্গ এবং পেশী সচল থাকে। রক্ত সঞ্চালন ভাল হয়। জিমে গিয়ে শরীরের বাইরের দিক তো সুঠাম করে তোলা যায়। কিন্তু শরীরের ভেতরের দিককেও ভাল রাখতে দরকার নিয়মিত সহবাস। ৪) সহবাস করা ব্লাড প্রেসারের জন্য খুবই ভাল। পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, লো ব্লাড প্রেসারের মানুষও অনেক ভাল অনুভব করেন নিয়মিত সহবাস করলে। ৫) সহবাস আসলে এক ধরনের ব্যয়াম। প্রতি মিনিটে এতে পাঁচ ইউনিট ক্যালোরি নষ্ট হয়। রোজ যেমন নিয়ম করে জিমে সময় দেন, একই রকম ভাবে এবার থেকে সহবাসের জন্য সময় বের করুন। ৬) মনের সঙ্গে সহবাসের কী অদ্ভূত মিল। নিয়মিত সহবাস করেল, আপনার হৃদপিন্ড ভাল থাকবে। ফলে কমবে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা। ৭) শরীরে অসহ্য যন্ত্রণা? পেইন কিলার খেতে হবে? পরে খাবেন। আগে একবার টুক করে সহবাস উপভোগ করে নিন। তারপর নিজেই অনুভব করবেন, আপনার যন্ত্রণা ভ্যানিশ! ৮) বেশি সহবাসকরেন? খুব ভাল। খানিকটা নিশ্চিত থাকতে পারেন এটা ভেবে যে, অন্য রোগ আপনাকে ছুঁতে পারে, কিন্তু ক্যানসার অপনার থেকে দূরে থাকবে। ৯) রাতে ঘুম আসে না? খুব চিন্তা মাথায়? কীভাবে কমবে? এই চিন্তায় আরও ঘুম আসছে না চোখে? এত চিন্তা করবেন না। সহবাস করুন আর উপভোগের শেষে বিছানায় শরীর এলিয়ে দিন। দেখবেন আপনার চোখে কখন ঘুম নেমে এসেছে। ১০) জীবন যে গতিতে চলছে, তাতে স্ট্রেস আসাটাই স্বাভাবিক। এই স্ট্রেস থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায় একটাই। সহবাস করুন। হৃদয়কে সুস্থ রাখতে সহবাসের বিকল্প নেই। গবেষণায় দেখা গেছে, য়ে পুরুষ সপ্তাহে ২ বা তার বেশি সংখ্যকবার যৌনসহবাস করেন তার ক্ষেত্রে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকটাই কম। তাই বেশিদিন সুস্থ ভাবে বাঁচতে চাইলে যৌনতা আপনাকে সাহায্য করতেই পারে। [collected ]

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ