আপনি একজন গর্বিত বাঙালী হিসেবে এই প্রশ্নের উত্তর দিবেন?

আপনার মতে বাংলাদেশ কত সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে তৈরী হবে?

6 টি উত্তর

আমার মতে ২০২৫ সালে..

তবে কদিন আগে টেকটিউনসবিডি'তে একটা টিউন দেখলাম যে ২০২০ সালের মধ্যে নাকি বাংলাদেশ ডিজিটাল হবে।
 তথ্য যোগাযোগ ব্যাবস্থাই শুধু ডিজিটালাইজেশন হলে সেটাকে ডিজিটাল দেশ বলা যায়না। সমস্ত কাজ ডিজিটাল প্রযুক্তির  হতে হবে।  আমরা যে গতিতে এগুচ্ছি তাতে ২০২৫ সালের আগে সম্ভব বলে মনে হয়না।

আমার মনে হয় ডিজিটাল বাংলাদেশের ৭০% আমরা হয়ে গেছি। বর্তমানে যে কারণে আমার এ কথা মনে হয়-

  • স্কুলের ডিজিটাল ক্লাস দেখে
  • রাস্তায় ডিজিটাল অ্যাডভারটাইজমেনট দেখে
  • প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ, মোবাইল, ল্যাপটপ দেখে
  • সকলের হাতে স্মার্টফোন দেখে
  • স্মার্টকার্ড দেখে
  • কৃষিতে উন্নত যন্ত্রপাতি দেখে
  • শিশুদের প্রযুক্তি পারদর্শীতা দেখে
  • টোল নেওয়ার ডিজিটাল পদ্ধতি দেখে
  • স্কুলের সফটওয়ারভিত্তিক রেজাল্ট দেখে
  • স্কুলের খেলায় ডিজিটাল স্কোরকার্ড দেখে
আরো অনেক কিছু দেখে। তাই মনে হয় ২০২১ সালের মধ্যে আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশে পরিণত হয়েই যাব। এত মানুষের স্বপ্ন সত্যি হয়েই যাবে।
কিন্তু আবার মাঝে মাঝে যখন প্রযুক্তি থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন মানুষ দেখি তখন মনে হয় সম্ভব নয়। দারিদ্র‍্য না গেলে কোনোক্রমেই ডিজিটাল বাংলাদেশ হওয়া সম্ভব নয়। আর দারিদ্র‍্যকে পুরোপুরি দূর করতে যে কত সময় লাগবে তা আমার জানা নেই।

পৃথিবীর সব উন্নত দেশগুলোর দিকে তাকান - USA, UK, UAE, সিঙ্গাপুর, জাপান, ফ্রান্স সহ এই লেভেলের যতগুলো দেশ আছে কেউ কিন্তু বলে না যে আমরা ডিজিটাল। একমাত্র বাংলাদেশেই এটা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়ে থাকে। 

ডিজিটাল ব্যাপারটা কি? এটা তো প্রযুক্তির একটা ধরণ নাকি? আরেকটা আছে এনালগ। আর দুটোর সংমিশ্রণ হলে বলি Hybrid. 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়া। কিন্তু শুধুই কি ডিজিটাল?  মূলত উনি চাচ্ছেন আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন বাংলাদেশ গড়তে। হয়তো নির্বাচনী প্রচারণা থেকে ডিজিটাল শব্দটা মার্কেট পেয়ে গেছে। কিন্তু আমি শুধু ডিজিটালে বিশ্বাসী না। 

আমাদের দেশে ডিজিটাল বলতে Electronic Screen আর Online System কেই বোঝানো হয়। আর এরকম করতে গিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে ঢাকায় রাস্তা ঘাটে গাড়ির গতি সীমা দেখাতে digital screen ব্যাবহার করা হচ্ছে। বিজ্ঞাপন দেখানো হচ্ছে digital screen এ। আরো অনেক কিছু করতে টাকা নষ্ট করে এসব করা হয়েছে। যেগুলোর কোন বিশেষ সুবিধা নেই! বরং কদিন পরেই এসব নষ্ট হয়ে যায়!

তবে সুবিধা আছে! যারা এসব কাজ করে থাকে তারা আমাদের হুজুগে চিন্তা ভাবনার সুযোগ নিয়ে এসব কাজের Contract পেয়েছে। আর এই সুযোগে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। 

আর Digital হওয়ার তো শেষ নেই। এখন আমরা যেমন Digital হবার কথা ভাবছি তেমন হতে হতে অন্যান্য দেশ আরো 20 বছর এগিয়ে যাবে। তখন আর সেটাকে ডিজিটাল মনে হবে না। 

তবে Digital হওয়ার মানে যদি Modern কিংবা Develop হওয়াকে বোঝায় তাহলে আমি বলব আমরা সেদিনই (কোন সাল বলতে পারছি না বলে দুঃখিত) আমরা ডিজিটাল হতে পারব যেদিন - 

  • বিদ্যুতের কোন ঘাটতি থাকবে না। প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ থাকবে। 
  • সমস্ত সরকারি অফিস আদালত অনলাইন হবে। মানুষ ঘরে বসে সব সেবা নিতে পারবে। কোন কাজ করাতে ঘুষ নিয়ে যেতে হবেনা। 
  • ভূমি ব্যবস্থা পুরোটা অনলাইন ভিত্তিক হবে। জমির প্রকৃত মালিক কে তা বাসায় বসেই দেখতে পারবেন। 
  • আয়কর দিতে কোন ঝামেলা থাকবে না। আপনি অনলাইনে সব তথ্য পূরণ করবেন। ব্যাংক হিসাব লিংক করা থাকবে। ট্যাক্সের টাকা সরকারের কাছে Automatically চলে যাবে। 
  • পুরো দেশ CC Camera র অধীনে থাকবে। মানুষের অপরাধ প্রবণতা কমে আসবে। (Digital Screen না বসিয়ে এটা করতে পারতো!)
  • প্রতিটি যানবাহন এর গতিবিধি GPS এর মাধ্যমে নজরদারিতে থাকবে
শেষ কথা হল মানুষের হয়রানি যেদিন কমে আসবে Technology র মাধ্যমে সেদিন ই আমরা Digital হতে পারবো। 

আমার সাল উল্লেখ না করার আরেকটা কারণ হলো Digital হয়ে গেলেই থেমে থাকা যাবেনা। এটা চলমান প্রক্রিয়া। আমরা যদি মনে করি আমরা Digital হয়ে গেছি তাহলে এখানেই থেমে থাকব। বাংলাদেশ তো Digital হয়েই গেছে। আরো আগেই। কিন্তু আরো উন্নত হতে হবে। 
আর এখন থেকে আলতু ফালতু বিষয়ে Digital করার পদ্ধতি অনুসরণ না করে Productive (যেটা করলে উপকার হবে) কিছু করা উচিৎ। এতেই দেশ ও জাতির মঙ্গল হবে বলে আশা করি। অসংখ্য ধন্যবাদ। 
বাংলাদেশ ডিজিটাল হতে আরো বেশ কিছু বছর লাগবে। আমার মতে ২০২৫-৩০ এর মধ্যে বাংলাদেশ ডিজিটাল দেশে পরিণত হবে।
আমার মতে সম্পূর্ণ ডিজিটাল বংলাদেশ হতে ২০3০-৩৫ সাল লাগবে

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ