২/৪/১৮ তে আমার পরীক্ষা।?

২/৪/১৮ তে আমার পরীক্ষা।?আসসালামু আলাইকুম ইন শা আল্লাহ্‌ আমি ২/৪/১৮ তে h.s.c পরীক্ষা দিব। আমার প্রশ্ন হচ্ছেঃ পরীক্ষার সময় কি বেশি রাগ জেগে পড়া উচিত। না কম রাত জাগা উচিত। কিছু কিছু পরীক্ষার আগে বেশ কয় এক দিনন করে ছুটি আছে......! তো আমি এখন কি ভাবে লেখা পড়া করবো রাত বেশি জাগবো না দিনে বেশি সময় দিব। সঠিক পরামর্শ দিবেন। জাযাকাল্লাহ ।
বিভাগ: 
Share

5 টি উত্তর

সারা বছর যদি ঠিক মত পড়ে থাকেন তাহলে রাত জাগার কোন মানে হয়না। পরীক্ষার আগে আপনার প্রয়োজন সুস্থ শরীর আর ঠান্ডা মস্তিষ্ক। আর পরীক্ষা নিয়ে কখনো টেনশন করবেন না। এটা হল আপনাকে মূল্যায়নের মাধ্যম।  কাজেই আপনি যা ফলাফল ও তাই হবে।  আর দিনে পড়লেও দুপুরে একটু ঘুমিয়ে নিবেন। পড়ার সময় রিল্যাক্স মুডে পড়বেন। পয়েন্ট ভুলে গেলে খাতায় লিখবেন বেশি করে। আশা করি কাজে লাগবে আপনার। ধন্যবাদ।
অতিরিক্ত রাত্র জাগরণ আপনার মানসিক অবস্থাকে দূর্বল করে দেবে। আপনি ভোর রাত্রে পড়া করতে পারেন তখন মাথা ঠান্ডা থাকে এবং পড়া আয়ত্ব করতে অনেক সহজ হয়। আপনি বাড়তি চাপ না নিয়ে স্বাভাবিক ভাবে পড়া করতে পারেন। আপনি ভোরে ও সকালে কিছু পড়া করলেন। দুপুরে একটু রেস্ট নিলেন। রেস্ট এর পর কিছু পড়া করলেন। বিকালে 30 থেকে 60 মিনিট উন্মুক্ত পরিবেশে হাটা চলা করলেন বা বসে থাকলেন। সন্ধার টাইমে পড়তে পারেন। তবে চেষ্টা করবেন বেশী রাত্র জাগরণ না করার জন্য। আপনার জন্য শুভ কামনা রইল।

আপনি বেশি রাত জেগে পড়ার চেষ্টা করবেন না। যখনই চোখে চলে আসবে ঠিক তখনই ঘুমাতে যাবেন। রাত্রে প্রায় ৫ বা ৬ ঘণটার মত ঘুমাবেন। আর দিনের বেলায় পড়াটা একটু বেশি করার চেষ্টা করবেন।


এবারের রুটিনে কিছুটা অস্বাভাবিকতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাই যে সাব্জেকটিতে একটু বেশি পরিমানে ছুটি আছে, চেষ্টা করুন সেই গ্যাপ টাতে কঠিন সাব্জেকট গুলো কিছুটা হলেও এগিয়ে নেওয়ার। 


পরীক্ষার দিনে সকালে একটু ঘুম থেকে খুব তারাতারি জাগার চেষ্টা করবনে যাতে দিনে রাত্রে যেগুলো পড়ছেন সেগুলো রিভিশন করার সুযোগ পাওয়া যায়। তা না হলে।অনেক গুলোই সকাল বেলা মনে থাকেনা।


পরীক্ষা একেবারেই নিকোটেই তাই মাঝে মাঝে টেনশন আসতে পারে। টেনশন করার কোনো কারণ নাই, পড়িতে বসলে অন্য কোনো দিকে খেয়াল দিবেন না।


ধন্যবাদ, আপনার জন্য শুভ কামনা রইলো!!!!!


ভাল থাকবেন।

পরীক্ষার সময়ের পড়ার চেয়ে সুস্থ থাকাটা বেশি জরুরী। তাই রাত জেগে তো পড়বেনই না। রাতে ১০ টার মধ্যে ঘুমিয়ে পড়বেন।সকালে দ্রুত উঠে পড়াশুনা করতে পারবেন তাহলে। 

আর পরীক্ষা দিয়ে এসে খেয়ে-দেয়ে কিছুক্ষণ ঘুমিয়ে নিবেন। বিকালেও বাইরে হাঁটাহাঁটি করবেন। শুধু পড়লে ক্লান্ত হয়ে যাবেন। সন্ধ্যার দিকে আগে পড়া সবকিছু বেশি করে পড়বেন। 
আর ছুটি আছে যেদিন সেদিন সকালে উঠে খেয়ে-দেয়ে পড়তে বসবেন। বিরতিসহ দুপুর পর্যন্ত পড়ে তারপর আবার আগের মতই সবকিছু করুন।
শেষে আমার পক্ষ থেকে বেস্ট অব লাক। ইনশাল্লাহ রেজাল্ট ভালো হবে। পারলে এ কদিন বিস্ময়ে আসবেন না।
পরীক্ষা হলো মানুষের জীবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়।  অাপনার শারিরীক সুস্থতার উপর একটি ভালো পরীক্ষা নির্ভর করছে অাপনি স্বাভাবিক মতো পরাশুনা করবেন, দুশ্চিন্তা থেকে মুক্ত থাকবেন তবে যদি কোন বিষয়ে বেশি পড়ার প্রয়োজন মনে করেন তাহলে পড়তে পারেন কারন কিছু কিছু বিষয় পূর্ব প্রস্তুতি থাকার সত্বেও  পরীক্ষার অাগে বার বার না পড়লে কাঙ্খিত পরীক্ষা দেওয়া সম্ভব হয়না। সর্বশেষ  কথা হলো ভালো ফলাফল অর্জনের অাশায় পরীক্ষা কেন্দ্রে কোনো অসৎ উপায় অবলম্বন করবেন না।  God bless u!

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ