বয়সে বড় মেয়ের সাথে প্রেম?

বয়সে বড় মেয়ের সাথে প্রেম? আমি একজন বড় মেয়ের প্রেমে পরেছি।।। সেও আমাকে খুব ভালোবাসে।।আমাদের সম্পর্ক খুব ভালো ভাবে চলছে।।আমি জানি না এর পরিনতি কি হবে তবে আমরা দুইজন আটুট।।আমার কি করা উচিত?????
বিভাগ: 

9 টি উত্তর

আপনারা দুজন দুজনকে যেহেতু ভালোবাসেন তাহলে কোন সমস্য হবার কথা না।

আপনার যদি বিয়ের বয়স হয়ে থাকে তাহলে তাকে আপনি বিবাহ করতে পারেন। 

আর যদি আপনার থেকে আপনার আপুর বয়স অনেক বেশি হয়ে থাকে তাহলে সমাজে আপনাকে অনেক কথা শুনতে হবে। 

আপনার থেকে বয়স এ ১ দিনের বড় হলেও সে আপনার বড়। বড় আপুর সাথে প্রেম করা ব্যাপার টা সমাজ,বন্ধু বান্ধব কেউ ভাল ভাবে নিবে না ব্যাপার টা। সবাই আপনাকে বাজে ভাববে। নানা রকম মন্তব্য করবে। যে গুলা শুনতে ভালো লাগবে না। সব থেকে বড় কথা পরিবার কখনো মেনে নিবে না। আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন।

আপনার থেকে কত বছরের বেশি বড় সেটা যদিও উল্লেখ করেননি,তাও এবিষয়ে যথাযথ পরামর্শ দেওয়ার চেষ্টা করছি।আপনি যে রিলেশনে লিপ্ত হয়েছেন বা আপনারা দুজন যে পথে হাঁটছেন সে পথের যাত্রা আর দীর্ঘ না করাটাই হয়তো আপনাদের দুজনের জন্যই ভালো হবে।এই রিলেশন আমাদের সমাজ,পরিবার কেউ এটাকে সমর্থন করবেনা।এই রিলেশনকে আপনার পরিবার, মেয়ের পরিবার সমাজও মেনে নিবেনা।তাই বলবো সমাজের কথা ভেবে,পরিবারের কথা ভেবে সম্পর্ক শেষ করে দিন।

কবি বলেছেন, প্রেম করলে বয়সে বড় মেয়েদের সাথে করিও, ভালবাসাও পাবে শাসনও পাবে|| আপনাকে বলি, ভালবাসা জাত কূল বড় ছোট মানেনা|| আপনারা দুজন অটুট থাকলে সব সম্ভব||

আপনার নিজ এলাকায় হয়ে সামাজিক সমস্যা হওয়া টা স্বাভাবিক।   যে সমাজ আপনার সম্পর্কে জানে না, সে খানে সমস্যা না হওয়ার কথা

বয়সে বড় একা খুব বেশি সমস্যা না । 

কুরআনের আলোকে যাদের সঙ্গে বিবাহ হারাম তারা হলেন:

আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেন- তোমাদের জন্য হারাম করা হয়েছে তোমাদের মাতা, তোমাদের কন্যা, তোমাদের বোন, তোমাদের ফুফু, তোমাদের খালা, ভ্রাতৃকন্যা, ভগিনীকন্যা, তোমাদের সে মাতা যারা তোমাদেরকে স্তন্যপান করিয়েছে, তোমাদের দুধ-বোন, তোমাদের স্ত্রীদের মাতা। তোমাদের ঔরসজাত পুত্রদের স্ত্রী এবং দুই বোনকে একত্রে বিবাহ কর এবং অন্যের বৈধ স্ত্রীকে বিবাহ করা হারাম।

যে সমস্ত মহিলাদেরকে বিবাহ করা হারাম তাদেরকে দু’টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধ মহিলা: তারা তিন শ্রেণীর।

ক.বংশগত কারণে নিষিদ্ধ: তারা হলেন-

১. মাতা

২. দাদী

৩. নানী

৪. নিজের মেয়ে, ছেলের মেয়ে, মেয়ের মেয়ে যত নিচেই যাক না কেন।

৫. আপন বোন, বৈমাত্রেয় বোন ও বৈপিত্রেয় বোন।

৬. নিজের ফুফু, পিতা, মাতা, দাদা, দাদী, নানা ও নানীর ফুফু।

৭. নিজের খালা, পিতা, মাতা, দাদা, দাদী, নানা ও নানীর খালা।

৮. আপন ভাই, বৈমাত্রেয় ভাই ও বৈপিত্রেয় ভাই ও তাদের অধঃতন ছেলেদের কন্যা।

৯. আপন বোন, বৈমাত্রেয় বোন ও বৈপিত্রেয় বোন ও তাদের অধঃতন মেয়েদের কন্যা।

খ. দুগ্ধ সম্বন্ধীয় কারণে নিষিদ্ধ:

বংশগত কারণে যাদেরকে বিবাহ করা নিষিদ্ধ দুগ্ধ সম্বন্ধের কারণেও তারা নিষিদ্ধ। তবে, শর্ত হচ্ছে-

দুই বছরের আগেই স্তন্য পান করা। দুই বছর বয়সের পর স্তন্য পান করলে স্তন্যদানকারীনির সঙ্গে তার দুগ্ধ সম্পর্ক সৃষ্টি হবে না।

প্রেম ভালবাসা জাতি বয়স কিছুই মানে না। মেয়েটি আপনার যত বড়ই হোক ৫/৬/৭ বছর বা আরো কম যাই হোক না কেনো। আপনার যদি তাকে বিবাহ করার মন মানসিকতা থাকে বা আপনাদের দুজনের পরিবার যদি সেটা মেনে নেয় তাহলে প্রেম চালিয়ে যেতে পারেন অন্যথায় বাদ দিন। বড় বয়সে বিয়ে করেছে পৃথিবীতে এমন নজিরের অভাব নেই।
গো অ্যাহেইড ভ্রাদার। ভালবাসা সব কিছুকেই পরাজিত করতে পারে। তবে আপনাকে অবশ্যই সতর্কতার সাথে এবং বুদ্ধিমত্তার সাথে সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। আপনাদের নিজেদের মধ্যে কোন সমস্যা না থাকলে বয়স টা কোন ফ্যাক্ট না। নবী করীম (সাঃ) ২৫ বছর বয়সে ৪০বছর বয়স্ক হযরত খাদিজা (রাঃ) এর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। রহিম-রূপবানের কাহিনীই দেখুন, ১২বছরের একজন মেয়ে ১২মাসের একটি ছেলের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। পরস্পরের প্রতি বিশ্বাস এবং ভালোবাসা অটুট রাখুন। গুরু জেমস্ হলে বলতো, "সব সম্ভব রে পাগলা, সব সম্ভব। " অনেকেই বলবে, সমাজ মেনে নিবেনা তাই ভালোবাসার মানুষটিকে ভুলে যান। কিন্তু কাপুরুষের মতো দূরে সরে না গিয়ে ভালোবাসার মানুষটিকে আগলে রাখাই গৌরবের বিষয়। ধন্যবাদ
আপনার এই প্রেমটি চালিয়ে যাওয়া উচিৎ । যেহেতু মেয়েটি আপনার হতে বয়সে বড় তাই অনেকে বাজে কথা বলতে পারে ।কিন্তু আপনি এতে পিছপা যায়েন না ।প্রেম কখনো বয়স মানে না ।

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ