1 টি উত্তর

ইসলাম/মুসলিম ধর্মই একমাত্র সঠিক ধর্ম। এর প্রমাণ হাজার হাজার আছে , সংক্ষেপ কে সংক্ষেপ করে কিছু বিষয় তুলে ধরছি।

ইসলাম ধর্মের মূল গ্রন্থ/ভিত্তি হলো কোরআন যা স্বয়ং আল্লাহই নাযিল করেছেন  নবী ও রাসূল হযরত মুহাম্মাদ (সঃ) এর উপর। ইসলাম ধর্ম যদি সঠিক না হতো তাহলে কোরআনে অনেক ভূল- ত্রুটি থাকতো, কিন্তু আমরা সবাই জানি পবিত্র কোরআনে কোনো ভুল নেই কোনো অবৈজ্ঞানিক বিষয় নেই। 1400 বছর আগের ভবিষ্যৎ বাণী বর্তমানে সঠিক । যদি আল্লাহ ব্যাতিত অন্য কেউ কোরআন লিখিত তবে এটা সম্ভব হতো না। আল্লাহ সূরা আল ইমরান এর 19 নং আয়াতে বলেছেনঃ  “ নিসন্দেহে আল্লাহর কাছে একমাত্র মনোনিত দীন/জীবন ব্যাবস্তা হলো ইসলাম/আল্লাহর কাছে নিজের ইচ্ছাকে আত্মসর্ম্পণ করে শান্তি অর্জন করা। পৃথিবীতে অন্য যত ধর্ম আছে তা সব গুলোই বিকৃত রূপ/ভুল। বাইবেল, বেদ সহ কোরআন ব্যাতিত এমন কোনো ধর্ম গ্রন্থ নেই যে ধর্ম গ্রন্থ বলছে যে তাদের ধর্মই ঠিক। কোরআন ব্যাতিত এমন কোনো ধর্ম গ্রন্থ নেই যে ধর্ম গ্রন্থে ত্রুটি নেই।

সুতরাং এতোটুই যথেষ্ঠ এটা বোঝার জন্য যে , ইসলামই একমাত্র সঠিক ধর্ম।

তর্কের খাতিরে যদি কয়েক সেকেন্ডের জন্য মেনে নি যে, কোরআন ব্যাতিত অন্য ধর্ম গ্রন্থই সঠিক তাহলে কেন তাদের ধর্ম গ্রন্থে এতো ভুল থাকবে, সৃষ্টিকর্তা কি ভুল করে...? অবশ্যই না। সুতরাং ভুল ধর্মগ্রন্থ গুলো আল্লাহর বাণী বা সঠিক ধর্ম হতে পারে না।

কোরআন ছাড়াও অন্যন্য ধর্ম গ্রন্থ যেমন, বাইবেল এর কিছু বানী সঠিক অর্থাৎ কোরআনের সাথে মিল আছে যে গুলো সঠিক/মিল আছে সে গুলো আল্লাহর বানী , মেনে নিতে কোনো অসুবিধা নেই।ইঞ্জিল কিতাব কে আমরা আমরা আল্লাহর বানী হিসাবে মানি , আমারা ঈসা (আঃ) কে  ভালবাসি এবং এটা মানি তিঁনি আল্লাহর একজন নবী ছিলেন। তবে তিঁনি প্রভু নন, এবং বাইবেল কিতাব ইঞ্জিন কিতাব নয়, ইঞ্জিন কিতাবের বিকৃত করে মানুষ এটাকে বাইবেল নাম দিয়েছে।