কোন্ রাতটি লাইলাতুল কদর?
 (7772 পয়েন্ট)

জিজ্ঞাসার সময়

নির্দিষ্ট করে ২৭ রামাযান লাইলাতুল কদর উদযাপন করার হুকুম কি?

1 Answer

 (7772 পয়েন্ট) 

উত্তরের সময় 

সৌদি আরবের সর্বোচ্চ উলামা পরিষদের ফতোয়া বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সদস্যগণ উপরোক্ত প্রশ্নের জবাবে বলেনঃ

সর্বোত্তম হেদায়াত হচ্ছে মুহাম্মাদ (সাঃ)এর হেদায়াত। আর সবচেয়ে নিকৃষ্ট বিষয় হচ্ছে নব আবিস্কৃত বিদআতসমূহ। রামাযান মাসে নবী (সাঃ)এর হেদায়াত হল নামায, কুরআন তেলাওয়াত এবং দান-খয়রাতসহ অন্যান্য কল্যাণকর কাজের দিকে বেশী বেশী অগ্রসর হওয়া। প্রথম বিশ দিনে তিনি রাতের বেলা ঘুমালেও শেষ দশক নামায ও অন্যান্য এবাদতের মাধ্যমে কটাতেন। শেষ দশকে তিনি পরিবার-পরিজনকে জাগাতেন, এবাদতের জন্য পরিপূর্ণরূপে প্রস্তুতি গ্রহণ করতেন এবং সারা রাত জেগে এবাদতে মশগুল থাকতেন। তিনি রামাযান মাসে এবং লাইলাতুল কদরে কিয়াম করার প্রতি উৎসাহ দিয়ে বলেনঃ
যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে এবং ছাওয়াবের আশায় রামাযান মাসে কিয়াম করবে, তার পূর্বের সমস্ত গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে এবং যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে এবং ছাওয়াবের আশায় লাইলাতুল কদরে কিয়াম করবে, তার পূর্বের সমস্ত গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে। (সহীহ বুখারী ও মুসলিম)

নবী (সাঃ) বলেছেন, লাইলাতুল কদর হচ্ছে, রামাযান মাসের শেষ দশ দিনের বেজোড় রাতসমূহের যে কোন একটি রাত। আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ
তোমরা রামাযান মাসের শেষ দশ দিনে রাতসমূহে লাইলাতুল কদর তালাশ কর। (বুখারী)
আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস হতে অন্য বর্ণনায় রয়েছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ লাইলাতুল কদর রামাযানের শেষ দশ দিনের রাতসমূহে রয়েছে। (বুখারী)
তিনি আরও বলেনঃ
তোমরা তা রামাযানের শেষ দশকের বেজোড় রাতসমূহে লাইলাতুল কদর তালাশ কর। (তিরমজী, মুসনাদে আহমাদ)
এই ছিল রামাযান মাসে এবং লাইলাতুল কদরে নবী (সাঃ)এর সুন্নাত। সুতরাং ২৭ তারিখের রাতকে নির্দিষ্ট করে তাকেই লাইলাতুল কদর মনে করা এবং মাত্র সেই রাতেই নামায ও অন্যান্য এবাদতের মাধ্যমে লাইলাতুল কদর উদযাপন করা রাসূল (সাঃ)এর সুন্নাতের বিরোধী। কেননা নবী (সাঃ) নির্দিষ্টভাবে কোন রাতে লাইলাতুল কদর উদযাপন করেন নি। তাই নির্দিষ্ট করে উহা পালন করা বিদআত।
اللجنة الدائمة للبحوث العلمية والإفتاء
(ইলমী গবেষণা ও ফতোয়া বিষয়ক স্থায়ী কমিটি)

ফতোয়ায় যারা স্বাক্ষর করেছেনঃ
১) আব্দুল্লাহ বিন মানী (সদস্য)
২) আব্দুল্লাহ বিন গুদাইয়্যান (সদস্য)
৩) আব্দুর রাযযাক আফীফি (সহ সভাপতি)

আরবীতে পারদর্শী ভাইদের জন্য ফতোয়ার লিংক দেয়া হল।
http://www.alnasiha.net/cms/node/657

 

 

 

ডাঃ জাকির নায়েকঃ

লাইলাতুল ক্বদরের নির্দিষ্ট তারিখ সম্পর্কে চল্লিশটিরও বেশি মতামত পাওয়া যায়। কেউ বলেন রমাদ্বানের প্রথম রাত, কেউ বলেন সপ্তম রাত আবার কেউ বলেন রমাদ্বানের উনিশতম রাত। কিন্তু এই ব্যাপারে সবচেয় সঠিক মত হলো রমাদ্বানের শেষ দশ দিনের কোনো এক বিজোড় রাত্রিতে।

এ ব্যাপারে হাদীসে বলা হয়েছে যে, “রমাদ্বান মাসের শেষ দশ দিনের বিজোড় রাত্রিগুলোতে লাইলাতুল কদর তালাশ করো।”

(সহীহ আল-বুখারী, হাদীস ২০১৭)

অপর হাদীসে বলা হয়েছে যে, উবাই বিন কা’ব হতে বর্ণিত আছে যে, তিনি বলেন, “লাইলাতুল ক্বদর সম্ভবত রমাদ্বানের ২৭তম রাতে। কারণ ঐ রাতে মুহাম্মাদ [ﷺ] আমাদের নামাজে দাঁড়াতে বলতেন।

(সহীহ মুসলিম, হাদীস ২৩৬৪)

আরো বলা হয়েছে যে, “লাইলাতুল ক্বদর রমাদ্বান মাসের ২১,২৩,২৫,২৭ এবং রমযানের শেষ রাতে খোজ করো।”

(সুনান আত-তিরমিযী, হাদীস ৭৯৪)

রসূল [ﷺ] রমাদ্বানের শেষ দিনে লাইলাতুল কদর খোজ করতেন।

(সহীহ আল-বুখারী, হাদীস ২০২০)

অপর হাদীসে আছে, “রমাদ্বানের শেষ দশ রাতে লাইলাতুল কদর খোজ করো। তবে যদি অপরাগ হও তাহলে শেষ রাতে খোজ করো।”

(সহীহ মুসলিম, হাদীস ২৬২১)

আরো বলা হয়েছে যে, “লাইলাতুল কদর রমযানের শেষ সাত দিনের ভিতর রয়েছে।”

(সহীহ আল-বুখারী, হাদীস ২০১৫)

সুতরাং এসব আলোচনা হতে আমরা জানতে পারলাম যে লাইলাতুল কদর রমযানের শেষ দশ দিনের কোনো এক রাতে।

এই কারণে অধিকাংশ আলিমগণ বলেন যে, লাইলাতুল কদরের নির্দিষ্ট তারিখ কেউ জানে না, তবে এটা রমযান মাসের শেষ দশ দিনের কোন এক বিজোড় রাতে এবং সম্ভবত ২৭ রমাদ্বানের রাতে কিন্তু নির্দিষ্ট তারিখ বাতলে দিতে পারে নি।

সম্পর্কিত প্রশ্নসমূহ
Loading interface...
জনপ্রিয় টপিকসমূহ
Loading interface...