মুসলমানেরা যেখানে এক এবং একই কুরআনের অনুসারী তাহলে মুসলমানদের মধ্যে এত বিভক্তি এবং চিন্তাদারার এত বিভিন্নতা কেন?
 (26716 পয়েন্ট)

জিজ্ঞাসার সময়

1 Answer

 (26716 পয়েন্ট) 

উত্তরের সময় 

ডাঃ জাকির নায়েকঃ আজকের মুসলমানরা বিভিন্ন দলে-উপদলে বিভক্ত। যদিও এ বিভক্তি ইসলামে অনুমদিত নয়। ইসলাম একতায় বিশ্বাসী। পবিত্র কোরআনের ৩নং সূরা আল-ইমরানের ১০৩নং আয়াতে আছে "তোমরা সকলে মিলে আল্লাহ্‌র রুজ্জু দৃঢ়ভাবে আকরে ধরো আর পরস্পর বিচ্ছিন্ন হয়ও না।" এখানে আল্লাহ্‌র রুজ্জু হচ্ছে আল-কোরান। যাকে ঐক্যবদ্ধভাবে আঁকড়ে ধরা উচিত। এই আয়াতে আরও জোর দিয়ে বলা হয়েছে, “পরস্পর বিচ্ছিন্ন হয়না”। পবিত্র কোরআনের ৪নং সূরা আন-নিসার ৫৯নং আয়াতে বলা আছে "তোমরা আনুগত্য করো আল্লাহ্‌র ও আল্লাহ্‌র রাসুলের।" অতএব মুসলমানদের আল-কোরান ও সহীহ হাদীসের অনুসরন করা উচীত। এবং মতপার্থক্য করা উচিত নয়। ইসলামে দলাদলী ও বিভক্তি নিষেধঃ পবিত্র কোরআনের ৬নং সূরা আন্আমের ১৫৯নং আয়াতে বলা হয়েছে, "“নিশ্চয় যারা নিজেদের দ্বীনকে খণ্ড-বিখণ্ড করে ফেলেছে এবং বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে পরেছে, তাদের সাথে আপনার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। তাদের বিষয় আল্লাহ্‌র হাতে ন্যস্ত। অতঃপর তিনি তাদেরকে জানিয়ে দিবেন, যা তারা করতো”" এই আয়াতে আল্লাহ তা’লা বলেছেন যে, যারা নিজেদের দ্বীনকে ভাগ করে নিয়েছে এবং বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে গেছে, তাদের থেকে নিজেদেরকে দূরে সরিয়ে রাখা উচিত। কিন্তু যখন একজন মুসলিমকে প্রশ্ন করা হয় আপনি কে ? তখন তার সাধারন উত্তর হয়ে থাকে, “আমি একজন ‘সুন্নী’ অথবা ‘শীয়া’ অনেকে আবার বলে থাকে আমি একজন ‘হানাফি’ বা ‘শাফিয়ী’ বা ‘হাম্বলী’ বা ‘মালিকী’...। তারা এই পরিচয়টাকে অতন্ত গুরুত্বপূর্ণ মনে করে। অথচ আমাদের মহানবী (সাঃ) কি ছিলেন ? তিনি কি ‘সুন্নী’ না-কি ‘শীয়া’ না-কি ‘হানাফি’ না-কি ‘হাম্বলী’ না-কি ‘শাফিয়ী’ না-কি ‘মালিকী’ ছিলেন......? আসলে তিনি ছিলেন একজন মুসলিম। পবিত্র কোরআনের ৩নং সূরা আল-ইমরানের ৫২ নং আয়াতে আছে, “ঈসা (আঃ) এবং তার অনুসারীরা মুসলিম ছিলো”। পবিত্র কোরআনের ৩নং সূরা আল-ইমরানের ৬৭ নং আয়াতে বলা হয়েছে, "ইবরাহীম (আঃ) না ছিলেন ঈহুদি না ছেলেন খ্রিস্টান তিনিতো ছিলেন একজন মুসলিম”" সুতরাং আমাদের পরিচয় হওয়া উচিত শুধু মুসলিম। আমি একজন “শিয়া” অথবা “সুন্নী” এটা বলা উচিত হবেনা। আল-কোরান নিজেদেরকে “মুসলিম” বলে পরিচয় দিতে বলেঃ নবী করিম (সাঃ) অমুসলিম রাজা-বাদশাহদের নিকট ইসলামের দাওায়াত দিতে গিয়ে বিভিন্ন সময় চিঠি লিখেছিলেন। সেসব চিঠিতে তিনি ৪১নং সূরা ফুসিলাতের ৩৩ নং আয়াত লিখে পাঠাতেন, “"আর তার কথার চেয়ে আর কার কথা অধিক উত্তম যে মানুষকে আল্লাহ্‌র পথে আহ্বান করে এবং নিজে সৎ কাজ করে, আর বলে আমি তো একজন মুসলিম তথা আত্মসমর্পণকারী”" ইসলামের সুবিজ্ঞ মহান ব্যক্তিদের প্রতি সম্মানঃ ইসলামের সুবিজ্ঞ আলেমদের প্রতি অবশ্যই সম্মান জানাতে হবে। যার মধ্যে রয়েছে চার ইমামঃ যথা ইমাম আবু হানিফা, ইমাম শাফেয়ী, ইমাম মালিকী, ইমাম হাম্বলী (রহঃ) । আল্লাহ তাদের প্রতি অনুগ্রহ বর্ষণ করুক। যে কেউ তাদেরকে অনুসরন করতে পারে। কিন্তু ঐ ব্যক্তির পরিচয় হতে হবে শুধু মুসলিম। সুনানে আবু-দাউদের ৪৫৭৯ নং হাদিসে উল্লেখ আছে যে, নবী (সাঃ) বলেছেন, “"আমার উম্মত ৭৩ দলে বিভক্ত হবে”" হাদিসটির মর্ম কথা হল উম্মতের অবস্থা এমন হবে যে, তারা মতপার্থ্যকে জড়িয়ে পড়বে, এমনকি তারা ৭৩ দলে বিভক্ত হয়ে পড়বে। এছাড়া তিরমিযির ১৭১ নং হাদিসে উল্লেখ আছে যে রাসুল (সাঃ) বলেছেন, "“আমার উম্মতগণ ৭৩ দলে বিভক্ত হবে, এবং একটি দল ব্যতীত বাকি সব দল জাহান্নামে যাবে। সাহাবেয়ে কিরাম আরয করিলেন, “হে আল্লাহ্‌র রাসুল! সেই দলটি কোনটি হবে? তিনি উত্তরে বললেন, “সেই দলটি হবে যার আমি এবং আমার সাহাবায়ে কিরাম থাকবো”" সুতরাং আমরা সেই সব জ্ঞানী লোকদের অনুসরণ করবো যাদের মত কোরান এবং সহিহ হাদিসের সাথে মিলে। এবং পরিচয় হবে আমি একজন মুসলিম।
সম্পর্কিত প্রশ্নসমূহ
Loading interface...
জনপ্রিয় টপিকসমূহ
Loading interface...