বিড়ি সিগারেট খাই না তারপরও ঠোট কালো?

বিড়ি সিগারেট খাই না তারপরও ঠোট কালো?

আমি বিড়ি সিগারেট খাই না, খেতামও না। কিন্তু আমার ঠোট অনেক কালো অনেক আগে থেকেই। এই কালচে দাগ দূর করার উপায় কি ? কোন ক্রিম থাকলে বলেন ।

বিভাগ: 
Share

4 টি উত্তর

ঠোঁটের দাগ দূর করতে:- গ্লিসারিন দিয়ে ঘুমাতে যান রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে তুলোর টুকরোতে গ্লিসারিন লাগিয়ে ঠোঁটে ম্যাসেজ করে নিন। গ্লিসারিন ঠোঁট ময়শ্চার রাখে এবং ঠোঁট হতে শুষ্কতা রোধ করে। কিছুদিন এই ভাবে গ্লিসারিন ব্যবহার করার পর দেখবেন ঠোঁটের কালো দাগ ধীরে ধীরে চলে যাবে। বেশি করে পানি পান করুন শুধু ওপর দিয়েই যত্ন নিলে হবে না। দেহের ভিতরে সব ঠিক থাকলে ওপর দিয়ে সব ঠিক থাকবে। তাই দেহকে সতেজ রাখতে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। প্রতিদিন ৮/১০ গ্লাস পানি পান করুন। এতে করে দেহ থাকবে সতেজ ও দেহের অন্য অঙ্গের পাশাপাশি ঠোঁটও ভালো থাকবে। আমন্ড অয়েল প্রতি রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ঠোঁটে আমন্ড অয়েল ম্যাসেজ করে ঘুমাতে যান। আমন্ড অয়েল ঠোঁট উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। শসার জুস ঠোঁটের কালো ছাপ রোধ করতে শসার জুস খুব উপকারী। শসার উপাদান কালো ঠোঁটের সমস্যা সমাধানে খুব উপকারী। প্রতিদিন শসার জুস ঠোঁটে লাগিয়ে কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে ফেলুন। অথবা চ্যাপস্টিক ব্যবহার করতে পারেন।

ছেলেরা ঠোঁট গোলাপি করার উপায়!

image

ছেলেদের ঠোট, মুখের সবচেয়ে আকর্ষণীয়। এখন মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেরাও সৌন্দর্য সচেতন। সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি, ধূমপান, চা-কফি পান এবং বয়স ইত্যাদি বিভিন্ন কারণের ছেলেদের ঠোঁটে কালচে ভাব চলে আসে। যা খুবই অস্বস্তিকর। কিন্তু এই সমস্যারও সমাধান রয়েছে। ঠোঁটের কালচে ভাব দূর করে ঠোঁটে পুনরায় গোলাপি আভা আনতে আছে কিছু প্রাকৃতিক ও সহজ পদ্ধতি-
মধু: মধু একটি প্রাকৃতিক উপাদান যা ত্বককে উজ্জ্বল করতে সহায়তা করে। রাতে ঘুমানোর আগে সামান্য একটু মধু নিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন সারারাত। কয়েক সপ্তাহ এভাবে প্রতিদিন শোবার পূর্বে ঠোঁটে মধু লাগান। কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ঠোঁটের কালচে ভাব দূর হতে দেখবেন।
লেবুর রস: লেবুর রস খুব ভালো একটি ব্লিচিং উপাদান হিসেবে পরিচিত। ঠোঁটের কালচে ভাব দূর করতে এটি খুবই কার্যকরী একটি উপকরণ। রাতে ঘুমাতে যাবার আগে সামান্য লেবু চিপে তাজা রসটি দিয়ে ঠোঁট খুব ভালো ভাবে ম্যাসাজ করুন। নিয়ম মেনে প্রতিদিন এই কাজটি করুন। কয়েকদিনের মধ্যেই ঠোঁটের রঙের পার্থক্য দেখতে পাবেন।
চিনি: প্রাকৃতিক স্ক্রাবার হিসেবে চিনি ব্যবহার করা হয় অনেক কাজেই। চিনি দিয়ে ঠোঁট স্ক্রাব করলে ঠোঁটের কালচে ভাব দূর হওয়ার সাথে সাথে ঠোঁটের মরা চামড়াও দূর হয়। ত্বকের জন্য স্ক্রাবিং যতটা গুরুত্বপূর্ণ ঠোঁটের জন্যও ঠিক তাই। ৩ চামচ চিনি ও ২ চামচ বাটার একসাথে মিসিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করে নিন। সপ্তাহে অন্তত ২ বার এই পেস্টটি দিয়ে ঠোঁট স্ক্রাব করুন। এতে আপনার ঠোঁটের মরা চামড়া দূর হবে এবং কালচে ভাব দূর হয়ে ঠোঁটে গোলাপি আভা আসবে।
বীটরুট: বীটরুট ঠোঁটের রঙ হালকা করা ও উজ্জলতা বাড়াতে বেশ কার্যকরী একটি উপাদান। বীটরুটের রস ঠোঁটে রক্তিম আভা নিয়ে আসে। তাই তাজা বীটরুটের রস ঠোঁটে লাগিয়ে ঠোঁটের কালচে ভাব দূর করতে পারেন।
বরফ: অনেকেই বরফের এই গুণটি সম্পর্কে ধারণা রাখেন না। যে কোন দাগের ওপর বরফ ঘষলে দাগ হালকা হয়ে যায়। ঠোঁটে এক টুকরো বরফ ঘষুন প্রতিদিন। এতে আপনার ঠোঁটের কালচে ভাব দূর হবে। বরফ ঠোঁটের আদ্রর্তার পরিমান ঠিক রেখে ঠোঁটকে রুক্ষতার হাত থেকেও পরিত্রান দেবে।
দুধের সর: দুধের সরের মাধ্যমে ঠোঁটের গোলাপি আভা ধরে রাখার এই পদ্ধতিটি প্রাচীন কাল থেকেই চলে আসছে। প্রাচীন যুগে রানীরা এই পদ্ধতি ব্যবহার করতেন। আপনিও এই পদ্ধতির মাধ্যমে আপনার ঠোঁটের হারানো দ্যুতি ফিরে পেতে পারেন। দুধের সরে মধু মিশিয়ে ঠোঁটে লাগান। দিনে বেশ কয়েকবার ব্যবহারে কিছুদিনের মধ্যেই আপনার ঠোঁটে ফিরবে গোলাপি আভা।

শুধু সিগারেট খেলে যে ঠোট কালো হয় তা নয়,আরো অনেক কারনে কালো হতে পারে।এমনকি এটা জন্মগত সমস্যা ও হতে পারে।নিচের পদ্ধতিগুলো অনুসরন করে দেখতে পারেন।

১.Vitamin C যুক্ত খাবার খেতে হবে। কারণ Vitamin C দেহে মেলানিনের উৎপাদন কমায়।
২.প্রতিদিন দুধ খেতে হবে। দুধের Lactic Acid এর whitening properties আছে, অর্থাৎ এটি কালো দাগ দূর করতে বিশেষ ভাবে কার্যকরী। এছাড়া দুধ মৃত চামড়া ঝড়িয়ে ফেলতে সাহায্য করে।
৩.Cocoa butter এ antioxidants আছে যা ঠোটকে নরম রাখে এবং দূষন থেকে রক্ষা করে।
৪. লেবুর রসে প্রাকৃতিক bleaching ক্ষমতা আছে । তাই লেবুর রস পান করুন এবং লেবুর রসের সাথে মধু মিশিয়ে ঠোটে লাগান।
৫.প্রচুর পরিমান পানি পান করতে হবে। যা ঠোটকে আদ্র রাখতে সাহায্য করবে। শুষ্কতা ঠোটের কালো দাগের অন্যতম কারণ।
৬.যাদের ঠোটে কালো দাগ রয়েছে তারা কখনই খুব গরম খাবার খাবেন না। খাবার কিছুটা ঠান্ডা করে তারপর খান। কারণ অতিরিক্ত তাপ কালো দাগকে বাড়িয়ে দিতে পারে।
৭. খাবার তালিকায় সবজি ও ফল রাখুর প্রচুর পরিমানে।
৮.বেদেনা বা ডালিমের রস খুবই উপকারী।

আরও যা করণীয়:
১.সবসময় ঠোট আদ্র রাখতে চেষ্টা করুন। ।এক্ষেত্রে Almond oil, coconut oil, cucumber extract,ভাল মানের lip bum ব্যবহার করতে পারেন্
২. সানস্ক্রীন ব্যবহার করুন।
৩.হালকা রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করুন।
তথ্যসূত্র-বিভিন্ন সাইট থেকে নেয়া

Betnovate cl oinment ক্রিম ব্যাবহার করুন।কালো টোঠ ভাল হইয়া যাবে

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ