উত্তর টা জানালে খুব উপকৃত হব। আমি এখন নিউ টেন এ।মানবিক শাখায় অামি।
hamidulazam
জিজ্ঞাসা করেছেন
5 টি উত্তর
দিয়েছেন
এসএসসি ও এইচএসসিতে জিপিএ ৫ পাওয়ার কিছু কৌশল পড়ালেখার পাশাপাশি কিছু কৌশল অবলম্বন করলে খুব সহজেই ভালো রেজাল্ট করা যায়। আমাদের সবারই ইচ্ছা এসএসসি বা এইচএসসিতে ভালো ফল করার। এজন্য ভালোপড়ালেখা করতে হবে এবং পাশাপাশি কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হবে। শুধু পড়লাম কিছু বুঝলামনা, শুধ মুখস্ত করলাম কিছু দিন পর আবার ভুলে গেলাম। একবার মুখস্ত করে আর তাতে হাত দিলাম না, পরীক্ষার আগের দিন রাতে পড়তে গিয়ে দেখলাম কিছু মনে নেই। এরকম পরিস্থিতে যেগুলো মনে আছে টেনশানে সেগুলোও ভুলে যাওয়ার উপক্রম। এজন্য পরীক্ষায় ভালোফলালের জন্য আমাদের নিচের টিপসগুলো অনুসরণ করলে ভালো ফল পাওয়া যাবে। টিপস ১- নিয়ম করে প্রত্যেকদিন পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। কমপক্ষে ৪ থেকে ৫ ঘন্টা। টিপস ১- শিক্ষকের দেয়া সাজেশানের পাশাপাশি বিভিন্ন সালের ও বোডের প্রশ্ন ঘেটে নিজে একটি সাজেশন তৈরি করা। টিপস ১-প্রতিদিন কমপক্ষে প্রত্যেক বিষয় হতে ১টি করে প্রশ্নর উত্তর মুখস্ত করতে হবে। এবং সাথে সাথে সম্ভব না হলে পরদিন লিখতে হবে। টিপস ১- প্রত্যেকদিন নিয়ম করে মুখস্ত পড়াগুলো একবার করে দেখে পড়তে হবে। দেখে পড়লে বানানগুলো ভুল হওয়ার আর কোন সম্ভাবনা থাকবে না। টিপস ১-পরীক্ষায় খাতায় প্রশ্নের উত্তর প্রাসঙ্গিক ও নিভুল হওয়ার প্রতি নজর দিতে হবে। বানান ও হাতের লেখা সুন্দর করার চেষ্টা করতে হবে। টিপস ১- প্রশ্নের উত্তর লেখার সময় মান বন্টনের প্রতি খেয়াল রাখতে হবে।পাচ নম্বর প্রশ্নের উত্তরের জন্য যেমন লিখতে হবে ১০ নম্বরের জন্য সে রকম লিখলে হবে না। টিপস ১-প্রশ্নে যে উত্তরটি চাওয়া হবে ততটুকুই লিখতে হবে। অতিরিক্ত কিছু না লেখাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। টিপস ১- পাথক্য লেখার সময় যত নম্বর থাকবে ততটি পাথক্য লিখতে হবে। যদি ৫ নম্বর থাকে তাহলে কমপক্ষে ৫টি পাথক্য লিখতে হবে। মোটামোটি নিয়ম করে পড়ালেখা করলে ভালোফল অবশ্যই সম্ভব। সবোপরি নিজের চেষ্টা ও আগ্রহ থাকতে হবে। মনে জেদ আনতে হবে। দেখবে ভালো ফল তোমার পিছু দৌড়াবে।
দিয়েছেন
বেশি কিছু করা লাগবে না। একটা রুটিন বানান যেটাতে রাত্রে ৫ সাবজেক্ট লিখিত অংশ থাকবে। প্রতিটা সাবজেক্ট এর পিছনে সময় দিবেন এক ঘন্টা। আর রাত্রে যে সাবজেক্ট পড়বেন সকালে তার নৈর্ব্যক্তিক পড়বেন। রুটিন এমন ভাবে তৈরি করুন যেন রাত্রে কোন সাবজেক্ট পড়ে সকালেই তার নৈর্ব্যক্তিক পড়া যায়। আর প্রতিদিন যে ৪ সাবজেক্ট নৈর্ব্যক্তিক পড়া হয়। প্রতিটা সাবজেক্ট সপ্তাহে মিনিমাম ৩ বার থাকবে। আপনি যেমন ছাত্র/ছাত্রি হন গোল্ডেন নিশ্চিত।
দিয়েছেন
এ প্লাস পেতে আপনাকে এখন থেকেই ভালভাবে পডতে হবে। ভাল রেজাল্ট করতে বেশি বেশি লেখাপডার বিকল্প নেই। শুধু বই পডলেই চলবে না। চোখ কান খোলা রাখতে হবে। প্রতিটা বিষয় ভাল করে বুঝতে হবে।প্রতিদিনের পডা প্রতিদিন পডতে হবে। পরিশ্রম ও সাধনা করতে যাও সফল অবশ্যই হবে।
দিয়েছেন
এসএসসি তে এ প্লাস যা করনীয়: ১.প্রতিদিন ভোরে ঘুম থেকে উঠে পড়াশুনা করবেন। ২.পড়ালেখার বিকল্প অন্য কোনোকিছু নেই। ৩.প্রতিদিন কমপক্ষে ৬ ঘন্টা পড়বেন। ৪.পরিকল্পনা করে পড়াশুনা করবেন। ৫.ঘুমাবেন কম। ৬.বেশী করে বোর্ড বই পড়বেন। ৭. পত্রিকায় প্রকাশিত বিভিন্ন বিষয়ের নৈব্যক্তিকগুলো পড়বেন।
দিয়েছেন
এ প্লাসের জন্য আপনাকে ভালোভাবে পড়তে হবে, প্রতিদিন কমপক্ষে ৬ ঘন্টা পড়তে হবে, আর যেগুলো পড়বেন সেগুলো মনে রাখার জন্য লিখতে হবে, হাতের লেখা দ্রুত এবং পরিষ্কার করবেন,
Download Bissoy Answers App Bissoy Answers