মানুশ ঘুমের মধ্যে সপ্ন কেন দেখে? আমি ঘুমের মাঝে পুরোটা সময় সপ্ন দেখি। এতে কি আমার সরিরে অনেক সমস্যা হবে বা মাথায়? মুক্তি কিভাবে পাব? মানুশ ঘুমের মধ্যে সপ্ন কেন দেখে? আমি ঘুমের মাঝে পুরোটা সময় সপ্ন দেখি। এতে কি আমার সরিরে অনেক সমস্যা হবে বা মাথায়? মুক্তি কিভাবে পাব?
1 টি উত্তর
অনেক কারনেই মানুষ ভয়ের স্বপ্ন দেখে। এর মধ্যে কোন প্রিয়জনকে হারালে, অসুস্থ হলে, স্ট্রেস এর কারনে বা কখনো কখনো অনেক প্রেসক্রাইব অসুধের কারনেও হতে পারে। দুঃস্বপ্ন দেখা থেকে মুক্তি পেতে হলে কয়েকটা নিয়ম মেনে চলে দেখতে পার। ১)প্রতিদিন একই সময়ে ঘুমাতে যাও এবং একই সময়ে উঠো। ঘুমাতে যাবার আগে রিলাক্স মুডে থাক। হট শাওয়ার নাও, হারবাল চা পান করতে পার, মেডিটেশন করতে পার অথবা হালকা স্ট্রেচিং ব্যায়াম করতে পার। ২) নিজের সব সমস্যা মাথা থেকে দূর করে দাও। যদি কোন সমস্যা নিয়ে চিন্তিত থাক তা আগে কাগজে লিখ, সম্ভাব্য সমাধান লিখ, এরপর কাল দেখা যাবে এটা ভেবে রিলাক্স মুডে বিছানায় যাও। ৩) ঘুমাতে যাবার আগে কোন হরর মুভি, টিভির খবর দেখা চলবেনা। এমনকি গ্রাফিক ভায়োলেন্স মুভিও না। ৪) হালকা স্ন্যাক্স খেতে পার, যেমন হাল্কা গরম দুধ অথবা দই। এতে ক্যালসিয়াম আছে, এটা তোমাকে রিলাক্স হতে সাহায্য করবে। ৫) ফ্যাটি এবং স্পাইসি খাবার খাবেনা কারন এতে গ্যাস হতে পারে , আর তা থেকে দুঃস্বপ্ন দেখতে পার। ৬) ধুমপান ছেড়ে দাও, নিকোটিন এর কারনে অনেক সময় মানুষ দুঃস্বপ্ন দেখে। ৭) সব ধরনের ড্রাগ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে। ( আমি বলতে চাইছিনা তুমি ড্রাগ এডিক্ট, দয়া করে ভুল বুঝবেনা) , ৮ ) স্বপ্ন দেখার পর ঘুম ভাংতেই লিখে রাখ কি দেখলে আর নিজের জীবনের সাথে মিলিয়ে দেখ কোন মিল পাচ্ছ কিনা, এতে পরবর্তীতে স্বপ্ন দেখা কমে যাবে। এগুলো বিজ্ঞানভিত্তিক সমাধান দিলাম । আর ইসলামিক সমাধান হল, ঘুমাতে যাবার আগে অজু করে চার ক্বুল ( সুরা ইখলাস, নাস, ফালাক,কাফেরুন ) পড়, আর আয়াতুল কুরসী পড়ে বুকে ফু দাও। জোরে তিন বার হাত তালি দাও। ইনশা আল্লাহ দুঃস্বপ্ন দেখা আস্তে আস্তে বন্ধ হয়ে যাবে।