পুরুষত্বহীনতা, উচ্চ রক্তচাপ, বাত ও গ্যাস্ট্রাইটিস একেবারে নির্মূল করার কোন চিকিৎসা আছে কি?

পুরুষত্বহীনতা, উচ্চ রক্তচাপ, বাত ও গ্যাস্ট্রাইটিস একেবারে নির্মূল করার কোন চিকিৎসা আছে কি?
বিভাগ: 
Share

2 টি উত্তর

লামাদের প্রাচীন ভেষজ ওষুধ নানা প্রকার তরুণ এবং ক্রনিক বা জটিল রোগই সারিয়ে তুলতে পারে। বিশ্বের তাবড় বিজ্ঞানীরাই স্বীকার করেছেন। সেরকমই একটি ভেষজ রেসিপি-র সন্ধান মিলেছে তিব্বতের একটি বৌদ্ধমঠে। রেসিপি-টি প্রায় ৫ হাজার বছরের প্রাচীন। পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, এই মিশ্রণটি ৫ বছরে একবার করে খেলেই ফুসফুসের যে কোনও রোগ, পুরুষত্বহীনতা, উচ্চ রক্তচাপ, বাত ও গ্যাস্ট্রাইটিস একেবারে নির্মূল হয়ে যাবে। ৫ হাজার বছর আগের প্রাচীন এই মহৌষধের গুণাগুণ দেখে চোখ কপালে বিজ্ঞানীদের। দাবি একটি ওয়েবসাইটের।।

প্রাচীন ভেষজ রেসিপি-টি সাড়া ফেলে দিয়েছে তামাম দুনিয়ায়। কী দিয়ে তৈরি ওই প্রাচীন মিশ্রণ, যা ৫ বছরে একবার খেলেই নিরোগ হয়ে যাবে শরীর? বাড়িতেও এই মিশ্রণটি তৈরি করা যায় খুব সহজেই। কী ভাবে?

উপকরণ :-

  • সাড়ে ৩০০ গ্রাম খোসা সমেত রসুন
  • ২০০ মিলিগ্রাম অ্যালকোহল বা রাম

মিশ্রণ :- প্রথমে রসুন ভালো করে থেঁতো করে নিতে হবে। তার সঙ্গে অ্যালকোহল বা রাম মিশিয়ে নিন। পুরো মিশ্রণটি একটি পরিষ্কার পাত্রে ঢেলে রাখতে হবে। ১০ দিন ওই মিশ্রণ রাখার পর তৈরি তরলটি একটি আলাদা পাত্রে ঢেলে রাখুন। এরপর ওই তরল ফ্রিজে টানা ২ দিন রাখতে হবে। এই মিশ্রণ ১২ দিনের ওষুধ।

কী ভাবে খেতে হবে :- প্রতিদিন ব্রেকফাস্ট, লাঞ্চ ও ডিনারের আগে এক গ্লাস পানিতে কয়েক ফোঁটাফেলে পানিটি খেয়ে নিলেই কেল্লাফতে।বিজ্ঞানীদের দাবি, এই ভেষজ মিশ্রণ ওয়েট লস করতে সাহায্য করে, পাশাপাশি চোখের দৃষ্টি ও শ্রবণ ক্ষমতাও বাড়ে।

সতর্কতা :- তবে ব্রেকফাস্টের আগে এক ফোঁটা, লাঞ্চের আগে দু‘ফোঁটা ও ডিনারের আগে তিনফোঁটা– এই ভাবে খেলে কিন্তু হিতে বিপরীত হবে।

নির্দেশনা :- অনেকেই আমাদের ফেইসবুক পেইজে প্রশ্ন করছেন অ্যালকোহল বা রাম কোথায় পাওয়া যায়। আপনি যেকোন পাইকারী হোমিও ঔষধ বিক্রেতাদের কাছ থেকেই কিনে নিতে পারবেন। তবে হোমিওপ্যাথিতে এটি RS নামে পরিচিত।

পুরুষত্বহীনতা, উচ্চ রক্তচাপ, বাত ও গ্যাস্ট্রাইটিস সহ সকল রোগ একেবারে নির্মূল করার একটাই মহৌষধ রয়েছে, আর তা হচ্ছে 'কালোজিরা'। পবিত্র হাদীসে কালোজিরাকে 'সকল রোগের মহৌষধ' বলা হয়েছে। একজন মানুষ যদি প্রতিদিন কাঁচা কালোজিরা চিবিয়ে খায়, কালোজিরার শরবত খায়, কালোজিরা ও কালোজিরার তেল দিয়ে তরকারি রান্না করে খায়, শরীর ও মাথার চুলে কালোজিরার তেল ব‍্যবহার করে, হাতে তৈরি বিভিন্ন খাবারে সামান্য কালোজিরা ব‍্যবহার করে, তাহলে তার শরীর সম্পূর্ণ সুস্থ থাকবে। কালোজিরার বিভিন্ন গুণাগুণ বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে। তবে সর্বশ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানী হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) যেহেতু কালোজিরাকে সকল রোগের মহৌষধ বলেছেন, সেহেতু আমাদের উচিত কালোজিরা নিয়ে বৈজ্ঞানিক গবেষণা আরো বৃদ্ধি করা, 'কালোজিরা গবেষণাগার' নির্মাণ করা, বাড়ির আশে-পাশে ও উপযুক্ত জমিতে কালোজিরা চাষ করা, কালোজিরা দিয়ে বিভিন্ন ঔষধ তৈরি করা, যা সকল রোগীই খেতে পারবে, সর্বোপরি সর্বত্র কালোজিরার চাহিদা তৈরি করা ও সেই অনুযায়ী উৎপাদন বৃদ্ধি করা, সকল মানুষের প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় যেনো কালোজিরা থাকে, সেই সুব‍্যবস্থা করা। ঔষধ ও পথ‍্য হিসেবে কালোজিরার বিকল্প কিছু হতে পারে না, এর বিন্দুমাত্র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পর্যন্ত নেই। তাই সকল রোগের মহৌষধ কালোজিরার যথার্থ ব‍্যবহারই পারে পুরুষত্বহীনতা, উচ্চ রক্তচাপ, বাত ও গ্যাস্ট্রাইটিস সহ সকল রোগ একেবারে নির্মূল করতে। ধন্যবাদ।

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ