জোয়ার ভাটা কেন হয়? জোয়ার ভাটা কেন হয়?
জিজ্ঞাসা করেছেন
1 টি উত্তর

পৃথিবীর ভূ-পৃষ্ঠের প্রায় ৭১ ভাগ পানি এবং ২৯ ভাগ স্থল। এই বিশাল পানি রাশি সমুদ্রে মুক্তভাবে প্রবাহমান। 

আমরা জানি যেকোন বস্তুর আকর্ষন ক্ষমতা রয়েছে। মহাবিশ্বের যেকোন দুটি বস্তু পরস্পরকে তার নিজের কেন্দ্র বরাবর আকর্ষন করে। একে মহাকর্ষ বলা হয়। যে বস্তু যত বড় তার আকর্ষন ক্ষমতা বেশি। আবার দুরত্ব বাড়লে আকর্ষন ক্ষমতাও কমে যায়।

আমাদের পৃথিবী ও তার সকল উপাদানকে মহাবিশ্বের অন্য বস্তু গ্রহ নক্ষত্র তাদের নিজের দিকে টানছে। পৃথিবীও তাদেরকে আকর্ষন করছে। কিন্তু পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে হচ্ছে চাঁদ এবং সুর্য। তাই চাদ ও সূর্যের আকর্ষনে পৃথিবীর পৃষ্ঠের বস্তু তাদের দিকে একটি বল অনুভব করে। আবার পৃথিবীও তার নিজ অক্ষের উপর ঘুরছে। ফলে কেন্দ্রমূখী বলের প্রভাবে ভারসাম্য যুক্ত অন্য বস্তুগুলো একটি কেন্দ্রবিমুখী বল লাভ করে পৃথিবীর পৃষ্ঠ থেকে ছিটকে যেতে চায়। কাজেই এই বল এবং চাঁদ ও সূর্যের আকর্ষন বল যখন একই দিকে ক্রিয়া করে তখন প্রবাহমান পানি ভূ-পৃষ্ঠ থেকে লাফিয়ে উঠতে ফুলে ওঠে। সমুদ্রের মাঝে এভাবে জলরাশি বিশাল উচ্চতায় ফুলে উঠে আবার পৃথিবীর নিজস্ব কেন্দ্র বরাবর অভিকর্ষের প্রভাবে চারপাশে নেমে যেতে থাকে ঠিক যেন পাহাড় থেকে পানি চারপাশে গড়িয়ে যাচ্ছে এমন। এর ফলে এই পানি সমুদ্র থেকে নদী হয়ে উপনদী ইত্যাদি চারপাশে পানি প্রবাহ সৃষ্টি করে। একে জোয়ার বলা হয়। সূর্যের আকর্ষন শক্তি বেশি হলেও সূর্য অনেক দুরে তাই মূলত চন্দ্রের আকর্ষনে এই পানি ফুলে উঠে জোয়ার হয়। জোয়ার হবার পর যখন ফুলে ওঠা পানি আবার নিচে নেমে যায় তখন চরপাশে চলে যাওয়া পানি আবার উল্টা প্রবাহিত হয়ে ফুলে ওঠা স্থানের কমে যাওয়া পানির শুন্যতা পূরন করে। ফলে একে ভাটা বলা হয়। এভাবে মূলত চন্দ্র সূর্যের আকর্ষনে জোয়ার ভাটা হয়।