মানতের রোজা কি একটানা করতে হয়?

আসসালামু আলাইকুম,,
আম্মা অসুস্থ থাকায় একটা টেস্ট এর রিপোর্ট নিয়ে বেশ কিছুদিন দুশচিন্তায় ছিলাম যে রিপোর্ট কেমন হবে না হবে। ৩টা রোজা মানত করেছিলাম রিপোর্ট ভালো হলে করবো। আলহামদুলিল্লাহ্‌ রিপোর্ট ভালো আসে। এরপর ১ম রোজা করলাম, পরদিন ২য় রোজার জন্য ঠিকসময়ে সেহরিতে উঠলাম, কিন্তু শারীরিক সমস্যা (স্বপ্নদোষ) এর কারণে মনে করলাম যে রোজা রাখা যাবেনা। অথচ এমনটা জানতাম যে স্বপ্নদোষ হলেও রোজা রাখা যায়। কিন্তু ওইসময় কেন জানি না বুঝতে পারিনি হয়তো শয়তান বিভ্রান্ত করেছিল। পরে আজানেরও ১৫ মিনিট পর পানি খেয়ে মনে করলাম রোজা রাখবো, আবার ভাবলাম রোজা রাখবো,, আবার মনে করলাম এতো দেরিতে খেলাম আর নিয়ত কেমন গড়মিল হয়ে গেলো। তাই মনে করলাম পরদিন থেকে টানা ৩টা রোজা পুনরায় করবো। এভাবে আসলে মানত রোজা পূর্ণ হবে কিনা এটা প্রশ্ন ছিল। আর রোজা কি পর পর একটানা করতে হয় নাকি মাঝে বাদ দিয়েও পরে করা যায়? দয়া করে জানাবেন।

আসসালামু আলাইকুম,,
আম্মা অসুস্থ থাকায় একটা টেস্ট এর রিপোর্ট নিয়ে বেশ কিছুদিন দুশচিন্তায় ছিলাম যে রিপোর্ট কেমন হবে না হবে। ৩টা রোজা মানত করেছিলাম রিপোর্ট ভালো হলে করবো। আলহামদুলিল্লাহ্‌ রিপোর্ট ভালো আসে। এরপর ১ম রোজা করলাম, পরদিন ২য় রোজার জন্য ঠিকসময়ে সেহরিতে উঠলাম, কিন্তু শারীরিক সমস্যা (স্বপ্নদোষ) এর কারণে মনে করলাম যে রোজা রাখা যাবেনা। অথচ এমনটা জানতাম যে স্বপ্নদোষ হলেও রোজা রাখা যায়। কিন্তু ওইসময় কেন জানি না বুঝতে পারিনি হয়তো শয়তান বিভ্রান্ত করেছিল। পরে আজানেরও ১৫ মিনিট পর পানি খেয়ে মনে করলাম রোজা রাখবো, আবার ভাবলাম রোজা রাখবো,, আবার মনে করলাম এতো দেরিতে খেলাম আর নিয়ত কেমন গড়মিল হয়ে গেলো। তাই মনে করলাম পরদিন থেকে টানা ৩টা রোজা পুনরায় করবো। এভাবে আসলে মানত রোজা পূর্ণ হবে কিনা এটা প্রশ্ন ছিল। আর রোজা কি পর পর একটানা করতে হয় নাকি মাঝে বাদ দিয়েও পরে করা যায়? দয়া করে জানাবেন।

জিজ্ঞাসা করেছেন
বিভাগ:
2 টি উত্তর

আপনার মানত পরিপূর্ণ হয়ে যাবে যদি আপনি ৩ টি রোজা রাখেন। আল্লাহর প্রতি আনুগত্যের সাথে যদি ৩ টি রোজা পরিপূর্ণ করে ফেলেন তাহলে আপনার মানত পূর্ণ হয়ে যাবে। (কেননা আপনি নতুন করে ৩ টি রোজার নিয়ত করেছেন)। নফল ইবাদতের নিয়ত করলে তা ওয়াজিব হয়ে যায় যা পালন করা অবশ্যক। টানা ৩ টি রোজা রাখাই আপনার জন্য ওয়াজিব, রাখা অবশ্যক। 

আল্লাহ তায়ালা বলেন, 
নিশ্চয় তোমরা যা কিছু করো আল্লাহ সে সবই অত্যন্ত ভালো করে দেখেন। (সূরা আল বাকারাহ : ২৩৭) আশাকরি ক্ষমা এবং আনুগত্যের সাথে আপনি যে ভাবেই তার ইবাদত করেন তিনি কবুল করবেন। যদি আপনার সমস্যার কারণে গেপ দিয়ে রোজা রাখেন আর আল্লহর কাছে ক্ষমা চান আশাকরি তিনি আপনার মানত পূূূূর্ণ করে দিবেন। আল্লাহ তায়ালা ইসলামকে আমাদের জন্য সহজ করে দিয়েছেন।

এই উত্তরের জন্য Md Jaber ahsan পেয়েছেন 1 টি উপহার
দিয়েছেন উপহার সংখ্যা অর্থ
Ariful চকলেট 1 3 টাকা

ভাইয়া মান্নতের রোজা দুই প্রকার।

১। নজরে মুআইয়ান অর্থাৎ কেউ কোনো কিছুর প্রত্যাশা করে যদি সুনির্দিষ্ট দিন তারিখ উল্লেখ করে রোজার নিয়ত করে।

২। নজরে গাইরে মুয়াইয়ান অর্থাৎ অনির্দিষ্ট দিন তারিখ উল্লেখ করে রোজার নিয়ত করে।

আপনি কি মান্নতের ক্ষেত্রে একটানা তিনটি রোজার রাখার নিয়ত করছেন?

তাহলে মান্নতের রোজা একটানা তিনটি করতে হবে।

আপনি যদি মান্নতের ক্ষেত্রে একটানা তিনটি রোজার রাখার সুনির্দিষ্ট দিনের নিয়ত না করেন তবে বিরতি দিয়ে তিনটি করতে পারেন।

শরিয়তের দৃষ্টিতে যেসব দিনে রোজা রাখা নিষিদ্ধ, সেগুলো হচ্ছে, দুই ঈদের দুই দিন, কোরবানির পর তিন দিনসহ মোট পাঁচ দিন। এসব দিনে নফল, কাজা ও মান্নত সব ধরনের রোজা রাখাই নিষেধ। (সূত্র : মাজমাউল আনহুর ১/৩৪৩)।

আবার বলছি যদি কেউ নির্দিষ্ট কোন দিনে রোজা রাখার মান্নত করে এবং ঐ নির্দিষ্ট দিনই তার রোজা রাখা উদ্দেশ্য হয়ে থাকে। তাহলে মান্নত পুরা করার জন্য সে দিনই রোজা রাখতে হবে। যদি না সে দিন রোজা রাখার ব্যপারে শরীয়তের কোন নিষেধাজ্ঞা থেকে থাকে।

মানত করার পর তা পূরণ করার ক্ষেত্রে অযথা বিলম্ব করা অনুচিত। কেননা মানত পূরণ করার পূর্বে কারো মৃত্যু এসে গেলে এজন্য সে গুনাহগার হবে।