ছেলেরা হয় মা ভক্ত, আর মেয়েরা হয় বাবা ভক্ত কিন্তু কেন?

ছেলেরা হয় মা ভক্ত, আর মেয়েরা হয় বাবা ভক্ত কিন্তু কেন?

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায় ছেলেরা মায়ের প্রতি ভালবাসা অনেকটাই বেশি, আর মেয়েদের ভালবাসা বাবার প্রতি। এই ভালবাসা, মহব্বত বা স্নেহের মুল রহস্যটা কি।

বাবা মা আর সন্তানদের মধ্যে স্নেহ ভালবাসা যদিও তা কোন কিছু দিয়েই পরিমাপ করা যায় না। তবুও যেন ছেলেরা মায়ের সাথে আর মেয়েরা বাবার সাথে স্নেহ ভালবাসার দিক থেকে বেশি ঘনিষ্ট হয়ে থাকে। কিন্তু কেন? এই কারনটাই জানতে চাওয়া।

বিভাগ: 
Share

5 টি উত্তর

বেশ কিছু ক্ষেত্রে এমনটা দেখা গেলেও অনেক বৈজ্ঞানিক গবেষনায় পুরাপুরি এই তথ্য প্রমানিত হয়নি। তবে বয়ঃসন্ধি কালে সেকেন্ডারি যৌন হরমোন ক্ষরিত হয় যা নারী বা পুরুষ দেহের বৈষিষ্ট্য প্রকট করে ও বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকৃষ্ট করে। এই সময় মেয়েরা ছেলেদের প্রতি ও ছেলেরা মেয়েদের প্রতি যে টান অনুভব করে তা থেকেই স্বাভাবিক ভাবে মা বা বাবা তাদের কত যত্নে ভালাবাসা দিয়া বড় করেছে সেই জ্ঞান প্রাপ্ত হয়। কারন ছেলে বা মেয়ে দেহের হরমোন গুলো সন্তান লালনে উদ্দিপিত করে। এগুলোকে বলা হয় সহজাত আচরন। এই আচরন অবশ্যই জিন নিয়ন্ত্রিত। কিছু গবেষনা বলছে মেয়ে দেহে পুরুষের y ক্রোমোজোম থাকেনা কিন্তু পুরুষ ক্রোমোসোমের জিন গুলো xx এর সাথে লোকাসে থাকে এবং এর ফলে y ফ্যাক্টরের প্রতি অভাব বোধ হয় ফলে বাবার প্রতি টান বাড়ে ও অধিক মায়াশীল হয়। অন্য দিকে ছেলে দেহে xy উভয় ক্রোমোজোম থাকায় x ফ্যাক্টরের প্রতি অধিক টান হয়না বলে মায়াশীল কম হয়। কিন্তু মাতৃ ফ্যাকটরের জিন লোকাসে থাকায় মায়ের প্রতি ভালবাসা জন্মায় কেননা নিজ y ফ্যাক্টর মেন্ডেলীয় প্রকট হওয়ায় নিজের ভেতর সমস্ত y ফ্যাক্টর ফুটে উঠে বলে তার আলাদা কোন অভাব বোধ হয়না। কিন্তু মাতৃ জিনের কিছুটা অভাব থেকেই যায়।

আপনার কথাটা বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমানিত নয়। তবুও ছেলেরা মা ভক্ত ও মেয়েরা বাবা ভক্ত হবার দুটি কারণ আছে ।
১। আমাদের আদি পিতা ও মাতাকে আল্লাহ তায়ালা সৃষ্টি করেছেন । তারা পরস্পর ভিন্ন লিঙ্গের । আল্লাহ তায়ালা তাদের থেকে বংশানুক্রমে আমাদের সৃষ্টি । তাদের মায়া-মমতা ছিল বিপরীত লিঙ্গের প্রতি । আমাদের আদি পিতা অর্থাৎ আদম (আঃ) কে হাওয়া (আঃ) এর প্রতি মায়া-মমতা তৈরি করেছেন । আদম (আঃ) জান্নাতে ভুল করেছিলেন বলেই আমরা ভুল করি । আল্লাহ তায়ালা বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আদম (আঃ) ও হাওয়া (আঃ) আকৃষ্ট করেছিলেন বলেই আমরা বিপরীত লিঙ্গের প্রতি বেশি আকৃষ্ট হই ।
২। হরমোনের কারণে বয়ঃসন্ধির কারণে আমরা বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকৃষ্ট হই । তা মা , বোন ইত্যাদি সব ক্ষেত্রে হয়। মেয়েরা বাবা, ভাই ইত্যাদির প্রতি বেশি আকৃষ্ট হয় ।

এর কারন হিসেবে বলা যায়, ছেলেরা বাবার সংগ বেশি পায় এবং মায়ের সংগ কম পায়, অন্যদিকে মেয়েরা মায়ের সংগ বেশি এবং বাবার সংগ কম পায়। এক্ষেত্রে দুজনের প্রতি সমান ভালোবাসা থাকায় যার সংগ কম পায় তার সংগ পাওয়ার জন্য মন ঝুকে যায় যা থেকে আপাতদৃষ্টিতে মনে হয় ছেলেরা মায়ের আর মেয়েরা বাবার ভক্ত। অন্যদিকে, মেয়েরা মায়ের কাছে শাসিত এবং ছেলেরা বাবার কাছে শাসিত হবার ফলেও এমনটা ঘটে। এছাড়া বৈজ্ঞানিক কিছু অস্পষ্ট ব্যাখ্যা রয়েছে।
দুই লাইনে উত্তর দেই- মেয়ে যখন বিয়ে করে চলে যায় তখন সবচাইতে বেশি কষ্ট বাবার লাগে তাই মেয়েরা বাবার সান্নিধ্য বেশি পায়। অপর দিকে ছেলেরা হয় বংশের প্রদীপ তাই মায়েরা ছেলেদের মেয়েদের তুলনায় বেশি ভালবাসেন। কিন্তু এইসব অল্তু ফল্যূ কথা বাস্তবে সব বাবামা নিজদের সন্তানকে প্রাণের চেয়ে বেশি ভালবাসেন।
হ্যাঁ এমনটা আমরা প্রায়ই দেখি। যদিও এটি বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত নয়।তবে আমারা মাঝে মাঝে এমনটা লক্ষ করি আমাদের পরিবার বা আত্মীয়স্বজনদের মধ্যে।এর প্রধান কারণ হচ্ছে বিপরীত লিঙ্গ। প্রাকৃতিকভাবেই আমরা বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকৃষ্ট।

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ