স্ত্রীকে দিয়ে লিংগ চুসালে কি গুন্নাহ হবে? স্ত্রীকে দিয়ে লিংগ চুসালে কি গুন্নাহ হবে?
জিজ্ঞাসা করেছেন
বিভাগ:
5 টি উত্তর
অবশ্যই।কারণ এটা হারাম কাজ
নাউযুবিল্লাহ! এটা খুব মারাত্মক বিষয়। ইসলাম যেখানে পায়ুপথে সঙ্গম নিষিদ্ধ করেছে সেখানে এটা তো কেমন গুনাহের কাজ সহজেেে অনুমেয়। এসম্পর্কে ইসলামে কঠোর নিষেধাজ্ঞা ও হুমকি আছে। আল্লাহ সকলকে রক্ষা করুন।
এটা অত্যন্ত বাজে এবং নাযায়েজ একটি কাজ । হাদিসে বর্ণিত আছে, স্ত্রীকে দারা লিংঙ্গ চুষালে তালাক পর্যন্ত হয়ে যায় ।
অবশ্য হবে কেন না আল্লাহ নিযেই মায়ের পেটে খাবার খায়েছে নাভির মাধ্যমে । সূতরাং এটি হারাম কাজ ।
স্বামী-স্ত্রী পরস্পরের লজ্জাস্থানে মুখ দেয়া, যৌনাঙ্গতে মুখ লাগানো এটি একটি পশুভিক্তিক আচরণ। যৌনাঙ্গতে মুখ লাগানো এটা সভ্য মানুষের আচরণ হতে পারেনা। পশুদের হাত নেই বলেই তার সঙ্গীনিকে মুখ দ্বারা উত্তেজিত করে। এর মাঝে ইসলামী শিষ্টাচার-বহির্ভূত কিছু দিক রয়েছে। যেমন,

১। লজ্জাস্থান থেকে নির্গত নাপাক বীর্য, মযি ইত্যাদি জিহ্বা, মুখ ইত্যাদিতে লাগবে। আর জরুরত ছাড়া নাপাক স্পর্শ করাকে ফকিহগণ বৈধ মনে করেন না।

২। মানুষের শরীরের সবচেয়ে সম্মানিত অঙ্গ হলো চেহারা। আর লজ্জাস্থান হলো নাপাকির জায়গা। তাই স্ত্রীকে দিয়ে লিঙ্গ চুষানো উচিত নয়।

৩। মুখ দ্বারা আল্লাহর কালাম তিলাওয়াত করা হয়, যিকির করা হয়। এই মুখে নাপাক লাগানো এবং নাপাকির স্থান মুখে নেওয়া বড় গর্হিত কাজ।

৪। মুখের অনেক জীবাণু লজ্জাস্থানে রোগ সংক্রামণের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তাছাড়া লজ্জাস্থানের জীবাণু মুখে এবং মুখের ভায়া হয়ে ভেতরে রোগ সংক্রামণ করার আশংকা থাকে। দুর্ঘটনাবশত ধারালো দাঁতও বিপদের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। এসব কারণে ফকিহগণ এটাকে মাকরুহ বলেছেন।

যেমন, প্রসিদ্ধ হানাফি ফকিহ বুরহানুদ্দীন মাহমুদ ইবন তাজুদ্দীন (রহঃ) বলেন, যদি পুরুষ নিজের লজ্জাস্থান স্ত্রীর মুখে প্রবেশ করায় তাহলে তা মাকরুহ হবে। কেননা, মুখ কোরআন তেলাওয়াতের স্থান। সুতরাং এখানে লজ্জাস্থান প্রবেশ করানো অনুচিত। (আল্মুহীতুল বুরহানীঃ ৮/১৩৪)

সুতরাং এধরণের মাকরুহ ত্যাগ না করলে গুনাহ আছে।