নামাজ পড়া যাবে কি? আমাদের স্কুলে মডেল টেস্ট পরীক্ষা চলছে।পরীক্ষা ১:০০ থেকে ৩:৩০ পর্যন্ত।আমি ঘর থেকে ১২:২৫ বা ৩০ এ বের হয়ে যায়।কিন্তু আমার যোহরের নামাজ ক্বাজা হয়ে যায়।তাই এখন আমি জানতে চাচ্ছি আমি কি ১১:৫৫ তে যোহরের নামাজ পড়তে পারব??   
বিভাগ:
2 টি উত্তর
অব্যশ্যই পড়তে পারবেন এখন যহরের ওয়াক্ত শুরু হয় ১১ঃ০০ টার ও আগে। 

যোহরের নামাজের সময়:

ঠিক দ্বিপ্রহরের পর সূর্য পশ্চিম আকাশে ঢলে পড়ার পর যোহরের নামাজের সময় শুরু হয়। প্রত্যেক জিনিসের ছায়ায়ে আছলি তথা মূল ছায়া ব্যতীত ওই জিনিসের দ্বিগুণ ছায়া হওয়া পর্যন্ত যোহরের নামাজের সময় বাকী থাকে। এই সময় নির্ধারণ করার একটি সহজ পদ্ধতি হলো মাটিতে কোনো লাঠি পুঁতে রেখে তার ছায়ার দিকে লক্ষ করা। যতক্ষণ পর্যন্ত দ্বিগুণ হবেনা ততক্ষণ পর্যন্ত যোহরের সময় থাকবে। (সহিহ বুখারি, হাদিস নং ৫১১, শরহে বেকায়া ০১/২৮)

যোহরের নামাজের সময়ের হাদিস:

হাদিস নং ০১-

عن أبي بُرزَة رضي الله عنه قال كان النبي صلي الله عليه وسلم يُصَلّْى الصُّبْحَ وأحدُنا يُعْرفُ جَلِيْسَه ويَقْرَأُ فيها مَا بَين السِّتين ألي المائة، رواه البخاري والمسلم

অর্থ : হজরত আনাস রাযিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নামাজের নিয়ম ছিল : গরমের মৌসুমে গরম তীব্র হয়ে হ্রাস পাওয়ার পর যোহরের নামাজ আদায় করতেন। শীত কালে আগে আগে আদায় করতেন। (নাসায়ি শরিফ ০১/৫৮)