1 টি উত্তর
দ্বন্দ্ব সমাস: যে সমাসে দুই বা তার বেশি পদের মিলন হয় এবং সমস্যমান পদগুলোর প্রতিটিতেই অর্থের প্রাধান্য থাকে তাকে দ্বন্দ্ব সমাস বলে। দ্বন্দ্ব সমাসে প্রত্যেকটিতে সংযোজক অব্যয় (ও, আর) থাকবে। যেমন: ভালো ও মন্দ = ভালোমন্দ। ২. দ্বিগু সমাস: যে তৎপুরুষ জাতীয় সমাসের পূর্বপদ সংখ্যাবাচক বিশেষণের সঙ্গে বিশেষ্য জাতীয় উত্তরপদের সমাস হয় তাকে দ্বিগু সমাস বলে। দ্বিগু সমাসে সমস্ত পদটি বিশেষ্য হয়। যেমন: তিন ভুজের সমাহার = ত্রিভুজ। ৩. কর্মধারয় সমাস : বিশেষণ ও বিশেষণ পদে কিংবা বিশেষ ও বিশেষণ পদে যে সমাস হয় এবং পরপদের অর্থ প্রাধান্য পায় তাকে কর্মধারয় সমাস বলা হয়। যেমন: মহান যে নবী = মহানবী। ৪. তৎপুরুষ সমাস : যে সমাস নিষ্পন্ন হওয়ার পর পূর্বপদে বিদ্যমান দ্বিতীয়া, তৃতীয়া, চতুর্থী,পঞ্চমী, ষষ্ঠী, সপ্তমী প্রভৃতি বিভক্তি লোপ পায় এবং সমস্তপদে পরপদের অর্থ প্রধান্য লাভ করে তাকে তৎপুরুষ সমাস বলা হয়। যেমন: ছায়া দ্বারা শীতল = ছায়াশীতল। ৫. অব্যয়ীভাব সমাস : অব্যয় পদ পূর্ব বসে যে সমাস হয় এবং যাতে অব্যয় পদের বা পূর্বপদের অর্থের প্রাধান্য থাকে তাকে অব্যয়ীভাব সমাস বলে। যেমন: শহরের সদৃশ = উপশহর। ৬. বহুব্রীহি সমাস: যে সমাস সমস্যমান পদগুলোর কোনোটির অর্থ প্রধানভাবে না বুঝিয়ে অন্য কোনো কিছুর অর্থ বুঝিয়ে থাকে তাকে বহুব্রীহি সমাস বলে। যেমন: দশ হাত যার = দশহাতি (এখানে দশহাতি হলো একজন দেবী)।