সমাজে প্রচলিত কিছু জাল হাদিস বলুন?
বিভাগ:
2 টি উত্তর

১. মহানবী সঃ নূরের তৈরী। 

২. নবী করিম সঃ কে না সৃষ্টি করলে এই জাহান সৃষ্টি করা হতো না। 

ইত্যাদি ইত্যাদি।  

 নিম্নে দেখুন কিছু জাল হাদিস।  জাল হাদিস 
 মুহাম্মাদ ﷺ এর নামে প্রচারিত জাল হাদিস সমূহ↓যেই হাদিস বিশারদরা জাল প্রমাণ করেছেন↓
জ্ঞানীর কলমের কালি শহীদের রক্তের চেয়ে বেশি পবিত্র।আল-খাতিব আল-বাগদাদি—হিস্টরি অফ বাগদাদ
দেশপ্রেম ঈমানের অঙ্গ।আস-সাগানি, নাসিরুদ্দিন আলবানি
নিজের কুপ্রবৃত্তির বিরুদ্ধে জিহাদ সর্বোত্তম জিহাদ।ইবন তাইমিয়্যাহ, ইবন বাআয।
সবুজ গাছপালা, শস্যর দিকে তাকিয়ে থাকলে দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধি পায়।আয-যাহাবি
আল্লাহ সেই বান্দাকে ভালবাসেন যে তাঁর ইবাদতে ক্লান্ত, নিস্তেজ হয়ে পড়ে।আদ-দারকুতনি
সুদ খাওয়ার ৭০ পর্যায়ের নিষেধাজ্ঞা আছে, এর মধ্যে আল্লাহর দৃষ্টিতে সবচেয়ে ছোট অপরাধ হচ্ছে মায়ের সাথে ব্যভিচার   করা।ইবন জাওযি, আল হুয়ায়নি (দুর্বল বা জাল হাদিস)
মুহাম্মাদকে ﷺ সৃষ্টি না করলে আল্লাহ কোন কিছুই সৃষ্টি করতেন না। মুহাম্মাদ ﷺ—এর নূর থেকে সমস্ত সৃষ্টি জগত সৃষ্টি হয়েছে।আয-যাহাবি, ইবন হিব্বান, নাসিরুদ্দিন আলবানি
যে শুক্রবার মুহাম্মাদ ﷺ এর প্রতি ৮০বার দুরুদ পাঠাবে তার ৮০ বছরের গুনাহ মাফ হয়ে যাবে।আল্লামা সাখায়ি, আলবানি
আযানের মধ্যে আঙ্গুল চুম্বন করে চোখে মোছা।আস-সুয়ুতি, আলবানি
১০এক ঘণ্টা গভীরভাবে চিন্তা করা ৬০ বছর ইবাদতের সমান।ইবন জাওযি
১১যারা মানুষকে ইসলামের দাওয়াত দেয় এবং মানুষকে ইসলাম গ্রহন করায় তাদের জন্য জান্নাত নিশ্চিত।আস-সাগানি
১২সুরা ইয়াসিন কু’রআনের হৃদয়। একবার সুরা ইয়াসিন পড়লে দশবার কু’রআন খতম দেওয়ার সমান সওয়াব পাওয়া যায়।ইবন আবি হাতিম, আলবানি
১৩মৃতের জন্য সুরা ইয়াসিন পড়।আদ-দার কুদনি
১৪আরবদেরকে ভালোবাসো, কারণ আমি একজন আরব, কু’রআন আরবিতে নাজিল হয়েছে এবং জান্নাতের ভাষা হবে আরবি।আবি হাতিম—জারহ ওয়া তাদিল
১৫পাগড়ী পরে নামায পড়লে ১৫টি পাগড়ী ছাড়া নামায পড়ার সমান সওয়াব।ইবন হাজার—লিসানুল মিজান
১৬আমি জ্ঞানের শহর এবং আলি তার দরজাইমাম-বুখারি
১৭প্রত্যেক নবীর একজন উত্তরসূরি আছে। আমার উত্তরসূরি আলি।ইবন জাওযি, ইবন হিব্বান, ইবন মাদিনি
১৮আমার উম্মতের আলেমরা বনি ইসরাইলিদের নবীদের সমান।আলেমদের ইজমা দ্বারা স্বীকৃত
১৯আমার পরিবার, সাহাবীরা আকাশের তারার মত, তাদের মধ্যে যাকেই তোমরা অনুসরণ করবে, তোমরা সঠিক পথে   থাকবে।আহমাদ হানবাল,   আয-যাহাবি, আলবানি
২০বিশ্বাসীর অন্তরে আল্লাহ ﷻ থাকেন।আয-যারকাশি, ইবন তাইমিয়া
২১যে নিজেকে জেনেছে, সে আল্লাহকেও ﷻ জেনেছে।আস-সুয়ুতি, ইমাম নাওয়ায়ি
২২আমি তোমাদেরকে দুটি উপশম বলে দিলাম—মধু এবং কু’রআন।আলবানি
২৩যদি আরবদের অধঃপতন হয়, তাহলে ইসলামেরও অধঃপতন হবে।ইবন আবি হাতিম
২৪যে কু’রআন শেখানোর জন্য কোন পারিশ্রমিক নেয়, সে কু’রআন শিখিয়ে আর কোন সওয়াব পাবে না।আয-যাহাবি
২৫বিয়ে কর, আর কখনও তালাক দিয়ো না, কারণ তালাক দিলে আল্লাহর ﷻ আরশ কাঁপে।ইবন জাওযি
২৬যে বরকতের আশায় তার ছেলের নাম মুহাম্মাদ রাখবে সে এবং তার ছেলে জান্নাত পাবে।ইবন জাওযি
২৭যে হজ্জের উদ্দেশে মক্কায় গেছে কিন্তু মদিনায় গিয়ে আমার কবর জিয়ারত করেনি সে আমাকে অপমান করেছে।আস-সাগানি, ইবন জাওযি, আশ-শাওকানি
২৮যে আমার (মুহম্মাদ ﷺ) কবর জিয়ারত করে তার জন্য সুপারিশ করা আমার জন্য ওয়াজিব হয়ে যায়।আলবানি
২৯যে স্ত্রী তার স্বামীর অনুমতি না নিয়ে ঘরের বাইরে যায়, সে ফেরত না আসা পর্যন্ত আল্লাহর অসন্তুষ্টিতে থাকবে বা যতক্ষন না তার স্বামী তার প্রতি সন্তুষ্ট হয়।আলবানি
৩০যদি নারী জাতি না থাকতো, তাহলে আল্লাহর ﷻ যথাযথ ইবাদত হতো।শেখ ফয়সাল
৩১নারীর উপদেশ মেনে চললে অনুশোচনায় ভুগবে।