3 টি উত্তর
আপনি যেহেতু ছেলে তাই ২১ বছরের আগে বিবাহ করা ঠিক হবে না। বাংলাদেশ সংবিধান অনুযায়ী আপনাকে ২১ বছর বয়স হতে হবে। আর এই বয়সে ছেলেদের বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ না হওয়াই উত্তম।

আপনি একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ ,সাধারণত একজন পুরুষ ১৫ বছরেই প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে যায়৷"বিয়ে"ব্যক্তির শারীরিক, মানসিক ও আর্থিক অবস্থার উপর নির্ভর করে বিয়ের হুকুম। তাই সকলের ক্ষেত্রে বিয়ের হুকুম এক রকম নয়; বরং ব্যক্তিভেদে বিয়ে ফরজ, ওয়াজিব, সুন্নাতে মুয়াক্কাদা, মুবাহ, মাকরূহ ও হারাম বলে বিবেচিত হয়। ব্যক্তির জন্য বিয়ে ফরজ হয় চার শর্তে। যা এখানে তুলে ধরা হলো-১. যে ব্যক্তি বিয়ে না করলে ব্যভিচারে লিপ্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল থাকে।২. ঐ ব্যক্তির জন্য বিয়ে ফরজ যে, ব্যভিচার থেকে বাঁচার জন্য রোজা রাখতেও অক্ষম।৩. যে ব্যক্তির বাঁদী গ্রহণেরও সুযোগ নেই।৪. সর্বোপরি যে ব্যক্তি বৈধ পন্থায় স্ত্রীর মোহর ও ভরণ-পোষণে ব্যয় করতে সক্ষম। এমন ব্যক্তির জন্যে বিয়ে করা ফরজ।সুতরাং আপনি যদি এ চারটি শর্তের মধ্যে পড়েন আপনার জন্য  বিয়ে করে নেওয়া উচিৎ!

অন্যথায়-আমাদের রাষ্ট্রীয় আয়ন অনুযায়ী ২১ বছরের পর বিয়ে করুন!এতে শয়ীরতও আইন দুটিই মান্য করা হবে৷ ধন্যবাদ....


অল্প বয়সে বিবাহ না করাই উত্তম । আর ১৯ বছরে বিবাহ করলে তা বাংলাদেশের আইনের বিরুদ্ধে যাবে । বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী পুরুষের বিবাহের বয়স কমপক্ষে ২১ বছর হতে হবে । সুতরাং, ১৯ বছরে বিবাহ না করাই ভালো ।