3 টি উত্তর

জনাব! বিস্ময় আসক্তি থাকলে আমি বলবো, সেটা আপনার ভাল দিক। কেননা, এই সাইটটির দ্বারা আপনি এমন নিত্য-নতুন কিছু ঘটনাবহ সম্পর্কে অবগত হতে পারছেন, যেটাকে আমরা মোটেও নেতিবাচক দিকের ওপর রাখতে পারি না। আপনার জীবনের ক্ষেত্রে অবশ্যই এটি একটি ইতিবাচক দিক।

উদাহরণ স্বরূপঃ ধরুন, আপনি দৈনিক-ই এই সাইটে পদার্পণ করেন। হঠাৎ করে একদিন এমনকিছু জানলেন, যেটা আপনার বাস্তব জীবনে উপকারে আসলো। তাহলে এখন কী বলবেন? এই সাইটের আসক্তি থাকা কি খারাপ কোনো দিক?

না, অবশ্যই না। বিস্ময় আসক্তি থাকা মোটেও খারাপ কিছু নয়। তাছাড়া আপনি এখানে প্রশ্ন করে নতুন কিছু জানতে পারছেন, যেটা আপনার-ই সাফল্য ক্ষেত্র। শুধু তাই নয়, আপনি অন্যের সমস্যা সমাধানের জন্য ভাল ভাল উত্তরও দিচ্ছেন, এটা ছাড়া আপনার ক্ষেত্রে অন্য আর কী শম হতে পারে?

বিস্ময় অনেক উপকারী একটা সাইট।কিন্তু এটার কিছু নেতিবাচক দিকও আসে।এই সাইট বেশি ব্যবহারের ফলে পড়ালেখার ক্ষতি হয়।যা যা করতে পারেন:

  • মোবাইল থেকে নিজেকে দূরে রাখার চেষ্টা করুন
  • নিজেকে বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত রাখতে পারেন।
  • বই পড়ার আসক্তি থাকলে,বই পড়তে পারেন।
আশাাাাকরি আসক্তি কমে যাবে।

বিস্ময়ে শ্নোত্তরে আমি অনেক অজানা তথ্য জানতে এবং জানাতে পারি।নিজের জ্ঞানের পরিধি বাড়াতে,দক্ষতা অর্জনে, বাস্তবিক নানা সমস্যার সমাধানে,নিজের বিচক্ষণতা শক্তি প্রকাশ করতে,লেখনী দক্ষতা আরও ভাল করতে,পড়াশোনা সম্পর্কিত বিভিন্ন সমাধান প্রাপ্তিতে বিস্ময় অভূতপূর্ব ভূমিকা রাখে।তাই জ্ঞানের ঝুলি বাড়াতে অবশ্যই বিস্ময় সহায়ক।এ কারণে আমরা বিস্ময়ের স্রোতে ভেসে থাকি।

তবুও এর কিছু নেতিবাচক দিকও রয়েছে বটে।পৃথিবী কোনকিছু সম্পূর্ণ ইতিবাচক নয়।

"বিস্ময়" বেশি কার্যক্রম চালালে পড়াশোনার ক্ষতি হয়,এতে নিজের ক্ষতি হয়।সবসময় মোবাইলে থাকার কারণে নানা সমস্যা হয়,একারণে অবশ্যই পিতা মাতার বকাও শুনতে হয়।

তাই বিস্ময়ে আমাদের অবসর সময়টাতে আসা উচিত।মানুষের উপকার করব ঠিক,কিন্তু নিজের পড়াশোনার বড় ক্ষতি করে নয়।[এটাই বাস্তব]।

আপনি বিস্ময়ে পরিমিত  কার্যক্রম চালান।এর পাশাপাশি নিচের কাজগুলো করুন:

  • মোবাইলে বেশি সময় দিবেননা,নির্দিষ্ট সময় মোতাবেক।
  • পড়াশোনায় বেশি সময় দিন।
  • অবসরসময়ে কেবল বিস্ময়ে না এসে,বই পড়ার অভ্যাস গড়ুন।
  • টেলিভিশন দেখুন,খেলাধুলা করুন,ছবি আঁকা,গান করা ইত্যাদি প্রতিভাবিকাশক কাজগুলো করুন।
  • নিজের মনে সব পরিকল্পনা ভালোকরে সেট করে ফেলুন।ভাবের দাসে পরিণত হবেনা।