বিয়ের আগে শারিরিক সম্পর্ক করে, পরে বিয়ে করলে কি জিনার গুনা মাফ হবে? কোনো ছেলে মেয়ে যদি, বিয়ের আগেই শারিরিক সম্পর্ক করে। তারপর দুজন বিয়ে করে, তাহলে কি তারা জিনার গুনাহ থেকে মুক্তি পাবে?
3 টি উত্তর
কোনো ছেলে মেয়ে যদি বিয়ের পূর্বে যেনা করে এবং পরে তারা বিয়ে করে তাহলে পূর্বের যেনার গুনাহ কখন মাফ হবে না। আল-কুরআনে বা হাদিসে কোথাও লেখা নাই যে যেনা করে বিয়ে করে ফেললে যেনার গুনাহ মাফ হয়ে যাবে। যেনা করা কবিরা গুনাহ আর এই গুনার জন্য তাওবার শর্ত অনুয়ায়ী আল্লাহর কাছে তাওবাহ করতে হবে তাহলে আশাকরি হয়ত আল্লাহ তায়ালা ক্ষমা করে দিলে দিতেও পারে।

নিশ্চয় অবৈধ সম্পর্ক থেকে ফিরে আসার জন্য বিয়ে একটি বড় মাধ্যম৷এবং যে ব্যাক্তি অবৈধ সম্পর্ক করার পর তারা বৈধ পদ্ধতিতে বিয়ে করে ফেললো,নিশ্চয় তারা নিজেদের গোনাহের ব্যাপারে অনুতপ্ত! 

এখন কথা হলো-শুধুমাত্র বিয়ে করার কারণে বিবাহ পূর্ববর্তী যৌন সম্পর্কের গোনাহ ক্ষমা হবে না,তবে হ্যা!নিশ্চয় ক্ষমা পাবে যদি ওরা অনুতপ্ত হয়ে তাওবাহ করে৷  

 যে ব্যক্তি শির্ক, হত্যা ও ব্যভিচারের গুনাহ থেকে তওবা করবে আল্লাহ্‌ তাকে এ নিশ্চয়তা দিয়েছেন যে, তিনি তার গুনাহগুলোকে নেকীতে পরিণত করে দিবেন। এ বিধানটি সব ধরণের গুনাহ থেকে তওবাকারীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

আল্লাহ্‌ তাআলা বলেন: "বলুন, হে আমার বান্দাগণ! তোমরা যারা নিজেদের প্রতি অবিচার করেছ— আল্লাহ্‌র অনুগ্রহ হতে নিরাশ হয়ো না; নিশ্চয় আল্লাহ্‌ সমস্ত গোনাহ ক্ষমা করে দেবেন। নিশ্চয় তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।"[সূরা যুমার, আয়াত: ৫৩]

অতএব, এ আম বিধান থেকে কোন একটি গুনাহও বাদ পড়বে না। কিন্তু এটি তাওবাকারীদের জন্য খাস।

আল্লাহ আমাদেরও তাওবাকারীদের মধ্যে শামিল করুন৷ (আমিন)    

ইসলামে দৃষ্টিতে যিনা, সুস্পষ্ট হারাম এবং শিরক ও হত্যার পর বৃহত্তম অপরাধ। যিন হলো অবিবাহিত দুইজন মানুষের মধ্যে যৌনক্রিয়া। যা তওবা ব্যাতিরেকে মাফ হয় না। এজন্য নিজের কৃতকর্মের উপর লজ্জিত হয়ে ভবিষ্যতে যিনা না করার ব্যাপারে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ হয়ে আন্তরিকভাবে তওবা করতে হবে। গুণাহ যতই হোক না কেন তওবা করলে মাফ পাওয়া সম্ভব। আল্লাহ তাআলা কুরআন মাজীদে ইরশাদ করেন, অবশ্যই আল্লাহ তাদের তওবা কবুল করবেন, যারা ভুলবশত মন্দ কাজ করে অত:পর অনতিবিলম্বে তওবা করে এরাই সেসব লোক যাদেরকে আল্লাহ তাআলা ক্ষমা করে দেন। আল্লাহ মহাজ্ঞানী রহস্যবিদ। (সূরা নিসাঃ ১৭) হযরত আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, বান্দা নিজ কৃত গুনাহের কথা স্বীকার করে যদি তওবা করে তাহলে আল্লাহ তার তওবা কবুল করেন। (বুখারী ও মুসলিম) এতএব প্রশ্নে উল্লেখিত ব্যক্তিদ্বয়ের কৃত কর্মের জন্য অনতিবিলম্বে তওবা করা ও বেশি বেশি ইস্তেগফার পাঠ করা আবশ্যক। জনাব! কোনো ছেলে মেয়ে যদি, বিয়ের আগেই শারীরিক সম্পর্ক করে তারপর দুজন বিয়ে করে, তাহলে তারা জিনার গুনাহ থেকে মুক্তি পাবে যদি তওবা করে। উল্লেখ্য যে, উক্ত নারীর সাথে বৈধভাবে বসবাস করতে চাইলে শরয়ী পদ্ধতিতে তাকে বিবাহ করে ঘর সংসার করার ও সুযোগ রয়েছে। এজন্য তাকে বিয়ে করে নিন।