কানের মধ্যে ফরৎ ফরৎ,আম্মু বলে কানের পোকা? যখনি বিছানায় শুই বাম পাশে, মানে প্রথমে আমি সোজা হয়ে শুই,এরপর মাথা ঘুরিয়ে বাম কাত হলে ৫-৬ দিন হলো কানের মধ্য ফর-ফর করছে,আমার মনে হচ্ছে কানের পদ্দা নরছে,শুধু মাত্র বাম কাত হয়ে শুলেই,তাছাড়া না,আমি কটনবার্ড দিয়ে কান পরিস্কার প্রায়ই করি,এ ঘটনার পর আবার করি,কিন্তু ঠিক হয়না,মানে মাথা নাড়িয়ে বাম কাত হলেই দুবার এই ফরৎ ফরৎ করে তাছাড়া না,আমার কোন সমস্যা হয়না,এটা খুব ই হালকা শব্দ, মানে কাত হলেই একটু, কিন্তু এটা নিয়েই আমি সিরিয়াস,ভয় পাই,ভেতরে যদি কিছু হয়ে থাকে!কানের পদ্দা কি ফেটে গেলো?সেটা হলে তো শুনতে পেতাম না,আম্মু গ্রামের মানুষ, সে তার দাদিমার ভাষায় বলে, কানের পোকা নড়ছে,কানের ভেতর নাকি পোকা থাকে?আর এই পোকা বের হলে সে ব্যাক্তি কানে কম শোনে বা ঠসা হয়,আরো বলে কানের ভেতর খাবার-মানে কানের খৈল খায় তারা,খাবার না পেলে নড়ানড়ি করে,দুকানে দুটা পোকা আছে,কানে তেল দিয়ে -এমনি ঠিক হবে,কিন্তু আমি গ্রাম্য কথায় বিশ্বাসী না,বৈজ্ঞানিক ব্যাখায় এটা কি?
1 টি উত্তর
আপনার কানে ইনফেকশন থেকে এইসমস্যাটি হতে পারে। আপনি চিকিৎসক এর পরামর্শ ব্যতীত কোনোপ্রকার ড্রপ কিংবা মলম লাগাবেন না,এতে ক্ষতি হতে পারে।আপনি চিকিৎসক এর পরামর্শ নিয়ে অ্যান্টি হিসটামিন ট্যাবলেট এবং স্টেরয়েড কানের ড্রপ ব্যবহার করুন।যদি ফাঙ্গাস সংক্রমণ থেকে এটি হয়ে থাকে তাহলে চিকিৎসক আপনাকে অ্যান্টিফাঙ্গাল ক্রিম দিবেন।প্রাথমিকভাবে আপনি গরম শেক দিন।দু চামচ অলিভ অয়েলের সঙ্গে কয়েকটি রসুনের কোয়া মিলিয়ে তেলটিকে কিছুক্ষণ গরম করুন। তারপর ঠান্ডা করে কয়েক ফোটা অলিভ অয়েল কানে দিন। ভালো ফল পাবেন। সাধারণত সাধারণত কানের ভিতরে পর্দা সাদা চকচকে থাকে। যখনই কোনো সংক্রমণ হয়, পর্দা লাল হয়ে যায়। তারপর অনেক সময় পর্দায় ছিদ্র পাওয়া যায়।আর একারনে অনেকসময় কানে এমন সমস্যা হতে পারে।এছাড়া অতিরিক্ত পরিমাণে খৈল এর উপস্হিতি কর্ণকুহর আটকে দিয়ে কানের পর্দার উপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে এবং এমন সমস্যা হতে পারে।