1 টি উত্তর

অন্তঃক্ষরা গ্রন্থি হল হচ্ছে রাসায়নিক বার্তাবহনের একটি অবস্থা, যা হরমোন তৈরীকারক গ্রন্থি দিয়ে গঠিত।আর বহি:ক্ষরা গ্রন্থি হচ্ছে সেইসব গ্রন্থি যারা নালীর মাধ্যমে এপিথেলিয়ালের উপরিভাগে পদার্থ উৎপন্ন এবং ক্ষরণ করে।অন্তক্ষরা গ্রন্থি হরমোন বা প্রাণরস তৈরি করে,ব্যাপন পক্রিয়ার মাধ্যমে হরমোন রক্তের প্রবাহে নির্দিষ্ট অঙ্গে পৌঁছায়।উদাহরণ – পিটুইটারি গ্রন্থি,থাইরয়েড গ্রন্থি,প্যারা-থাইরয়েড গ্রন্থি। আর বহিঃক্ষরা গ্রন্থি: হরমোন ব্যতীত অন্য রস নিঃসৃত করে,নালীর মাধ্যমে রস নিঃসরণ হয়।উদাহরণ -যকৃত,স্তন গ্রন্থি,ল্যাক্রিমাল গ্রন্থি,ঘর্ম গ্রন্থি।যেহেতু অন্তঃক্ষরা ও বহিঃক্ষরা দুইরকম গ্রন্থিই অগ্নাশয়ে আছে সেহেতু অবশ্যই এদের সাথে ডায়াবেটিস এর রিলেশন আছে।এর অন্তঃক্ষরা অংশের নাম ল্যাঙ্গারহান্স কোষপুঞ্জ যার বিটা কোষ ইনসুলিন, আলফা কোষ গ্লুকাগণ, ডেল্টা কোষ সোমাটোস্টাটিন হরমোন নিঃসরণ করে।আর এই ইনসুলিন এক ধরনের হরমোন যা চিনির বিপাক নিয়ন্ত্রণ করে।এর অভাবে ডায়াবেটিস /বহুমূত্র রোগ হয়।এই রোগে রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ দীর্ঘস্থায়ীভাবে বেড়ে যায়।মূলত আমাদের শরীরে ইনসুলিন নামের হরমোনের সম্পূর্ণ বা আপেক্ষিক ঘাটতির কারণে বিপাকজনিত গোলযোগ সৃষ্টি হয়ে রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। একসময় তা প্রস্রাবের সঙ্গে বেরিয়ে আসে। এই সামগ্রিক অবস্থাকে ডায়াবেটিস বলে।

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ