কারো উপর যদি গোসল ফরজ হয় কিন্তু অসুস্থতার কারনে গোসল করতে না পারলে, সে কিভাবে পবিত্র হবে?

কারো উপর যদি গোসল ফরজ হয় কিন্তু অসুস্থতার কারনে গোসল করতে না পারলে, সে কিভাবে পবিত্র হবে?
বিভাগ: 
Share

2 টি উত্তর

কোনো কারনে গোসল ফরজ হলে পবিত্র হবার জন্য ফরজ গোসল করতেই হবে। অসুস্থতার জন্য ফরজ গোসল মাফ হয়না। আপনি সুস্থ হলে ফরজ গোসল করে নিবেন        
কারো উপর যদি গোসল ফরজ হয় কিন্তু অসুস্থতার কারনে গোসল করতে না পারলে সে তায়াম্মুম করে পবিত্র হবে। আল্লাহ তায়ালা বলেনঃ যদি তোমরা অপবিত্র থাক, তবে বিশেষভাবে পবিত্র হবে। আর যদি তোমরা অসুস্থ হও বা সফরে থাক বা তোমাদের কেউ পায়খানা থেকে আসে, বা তোমরা স্ত্রীর সাথে সংগত হও এবং পানি না পাও তবে পবিত্র মাটি দিয়ে তায়াম্মুম করবে। সুতরাং তা দ্বারা মুখমণ্ডলে ও হাতে মাসেহ করবে। আল্লাহ তোমাদের উপর কোন সংকীর্ণতা করতে চান না; বরং তিনি তোমাদেরকে পবিত্র করতে চান এবং তোমাদের প্রতি তাঁর নেয়ামত সম্পূর্ণ করতে চান, যাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন কর। (সুরা মায়েদাঃ ৬) অর্থাৎ তোমরা যদি অপবিত্র থাক অপবিত্রতা বলতে স্বপ্নদোষ বা স্ত্রী সহবাস ও মহিলাদের মাসিক ও নিফাসজনিত অপবিত্রতা। এ জাতীয় অপবিত্রতা হলে অথবা মহিলাদের মাসিক বা নিফাস বন্ধ হয়ে গেলে তখনই গোসল করে পবিত্রতা অর্জন করা জরুরী। পানি না পাওয়া গেলে তায়াম্মুম করতে হবে। যেমনটি হাদীসে বর্ণিত হয়েছে। (আইসারুত তাফাসীর, ১/৫০৫) আবার কেউ যদি এমন অসুস্থ হয় যে, পানি ব্যবহার করলে ক্ষতি হবে অথবা সফরে থাকে এবং পানি না পায় বা প্রস্রাব পায়খানা থেকে আগমন করে অথবা স্ত্রীর সাথে দৈহিক সম্পর্ক করে কিন্তু পানি না পায় তাহলে তায়াম্মুম করবে, এতে পবিত্র হয়ে যাবে। তায়াম্মুমের নিয়ম হলঃ বিসমিল্লাহ বলে উভয় হাত একবার পবিত্র মাটিতে মেরে মুখমণ্ডল ও উভয় হাতের কব্জি পর্যন্ত মাসেহ করবে। আম্মার ইবনু ইয়াসার (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি একদা উমার (রাঃ) কে বললেনঃ আপনার কি মনে আছে যে, আমি ও আপনি সফরে ছিলাম এবং উভয়েই অপবিত্র হয়েছিলাম। কিন্তু আপনি সালাত আদায় করলেন না। আমি মাটিতে গড়াগড়ি করলাম ও সালাত আদায় করলাম। তারপর আমি নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে এ বিষয়ে জানালাম। তিনি বললেনঃ এটিই তোমার জন্য যথেষ্ট ছিল- এ কথা বলে তিনি তার দুহাতের তালু মাটিতে মারলেন এবং ফুঁ দিয়ে ঝাড়লেন। তারপর মুখমণ্ডল ও হাতদ্বয় মাসাহ করলেন। (সহীহ বুখারীঃ ৩৩৮)

সাম্প্রতিক প্রশ্নসমূহ