বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
121 জন দেখেছেন
"পবিত্রতা ও সালাত" বিভাগে করেছেন (6,118 পয়েন্ট)
অনেক ইমাম নামায পড়ানোর সময় অনেক ধীরে রুকু-সিজদার তসবিহ পাঠ করেন ফলে তিনবারের পাঠ করার পরও আমাদের চুপ থাকতে হয়। এ্রক্ষেত্রে তিনবারের বেশি পড়া কি জায়েজ? আশা করি রেফারেন্সসহ গুছিয়ে উত্তর দিবেন।

2 উত্তর

+1 টি পছন্দ
করেছেন (10,889 পয়েন্ট)
রুকু-সিজদার তাসবীহ তিন বার পড়া সুন্নাত। তবে কেউ যদি রুকু-সিজদায় গিয়ে তিনবারের বেশি এই তাসবীহ পড়ে তবে তা নিষেধের অন্তর্ভুক্ত নয়।

হুযাইফাহ ইবনুল ইয়ামান (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে রুকূতে সুবহানা রবিবয়াল আযীম তিনবার বলতে এবং সিজদায় সুবাহানা রবিয়াল আলা তিনবার বলতে শুনেছেন।

(সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস নম্বরঃ ৮৮৮ হাদিসের মানঃ সহিহ)।

আলী ইবনু হুজর (রহঃ) ইবনে মাসঊদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণনা করেন যে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন তোমদের কেউ যদি রুকূতে তিনবার সুবহানা রাব্বিআল আযীম পাঠ করে নেয় তবে তার রুকূ পূর্ণ হলো। আর এ হলো সর্বনিম্ন পরিমান।

এমনিভবে কেউ যদি সিজদার মাঝে সুবহানা রাব্বিআল আলা তিনবার পাঠ করে নেয় তবে তার সিজদাও পূর্ণ হলো। আর এ হলো সর্বনিম্ন পরিমাণ।

(সূনান তিরমিজী, হাদিস নম্বরঃ ২৬১ ইবনে মাজাহ ৮৯০)।

এক্ষেত্রে আপনার তিনবার পাঠ করার চুপ থাকা উত্তম। আবার তিনবারের বেশি পড়তে চান এটাও জায়েজ তবে তা তিন পাঁচ বা সাতবার হতে হবে।
সাবির ইসলাম অত্যন্ত ধর্মীয় জ্ঞান পিপাসু এক জ্ঞানান্বেষী। জ্ঞান অন্বেষণ চেতনায় জাগ্রতময়। আপন জ্ঞানকে আরো সমুন্নত করার ইচ্ছা নিয়েই তথ্য প্রযুক্তির জগতে যুক্ত হয়েছেন নিজে জানতে এবং অন্যকে জানাতে। লক্ষ কোটি মানুষের নীরব আলাপনের তীর্থ ক্ষেত্রে যুক্ত আছেন একজন সমন্বয়ক হিসেবে।
0 টি পছন্দ
করেছেন (6,452 পয়েন্ট)

না, রুকু সিজদায় তাসবীহ তিনবারের বেশি পড়া নিষেধ নয়৷ কিছু মানুষ মনে করেন, রুকু বা সিজদার তাসবীহ তিনবারের বেশি পড়া যায় না। ফলে তারা যখন ইমামের পিছনে নামায পড়েন তখন সুযোগ থাকা সত্ত্বেও তিনবার তাসবীহ পড়েই চুপ করে থাকেন।

অনেক ইমাম সাহেবই রুকু সিজদার তাসবীহ বেশ ধীরে পড়েন। কোনো কোনো ইমাম সাহেবের ক্ষেত্রে মুসল্লিগণ তিনবারই তাসবীহ পড়ার সুযোগ পান। আবার কোনো কোনো ইমামের ক্ষেত্রে পঁচ থেকে সাতবার পর্যন্ত পড়ার সুযোগ পাওয়া যায়।

সুতরাং এক্ষেত্রে তিনবার পড়ে চুপ না থেকে ইমাম সাহেব রুকু বা সিজদা থেকে উঠা পর্যন্ত যতক্ষণ সময় পাওয়া যায়, ততক্ষণ পড়তে থাকা, সেটা যতবারই হোক না কেন।

তথ্যসূত্রঃ আল কাউসার

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
2 টি উত্তর
07 নভেম্বর 2018 "পবিত্রতা ও সালাত" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন হোসাইন মুরাদ (17 পয়েন্ট)

368,621 টি প্রশ্ন

464,147 টি উত্তর

145,527 টি মন্তব্য

193,658 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...