user-avatar

Md Jaber ahsan

JaberAhsan

JaberAhsan এর সম্পর্কে
যোগ্যতা ও হাইলাইট
Kishoreganj এ/তে থাকেন 2002–বর্তমান
পুরুষ
অবিবাহিত
ইসলাম
প্রশ্ন-উত্তর সমূহ 3.65M বার দেখা হয়েছে
জিজ্ঞাসা করেছেন 984 টি প্রশ্ন দেখা হয়েছে 697.11k বার
দিয়েছেন 3.07k টি উত্তর দেখা হয়েছে 2.95M বার
19 টি ব্লগ
76 টি মন্তব্য

মিজানুর রহমান আজহারীর অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে ১ মিলিয়ন সাবক্রাইব হয়েছে মাত্র ২২ দিনে।

তাছাড়াও কোনো ভিডিও আপলোড ছাড়াই ১০০k সাবক্রাইব অর্জন করা রেকর্ড রয়েছে তার। 

জুম অর্থ কী?

JaberAhsan
Jan 5, 01:37 PM

জুম শব্দের অর্থ : অতিশয় বেগে ও খাড়াভাবে বিমান উপরে উঠানো, সাঁই সাঁই করে চলা।

আপনি যা শুনেছেন তা সঠিক নয়ত। শিক্ষা বোর্ড এরকম নিয়ম পরিবর্তন সংক্রান্ত কোনো নোটিশ দেয়নি। অর্থাৎ আগের নিয়মেই বহাল আছে। 


রেজিস্ট্রেশনের মেয়াদ থাকাকালীন সময় যতবার F গ্রেড আসবে যতবার ততবারই ইম্প্রুভমেন্ট দিতে পারবে। ডিগ্রীর ক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশন এর মেয়াদ ৬ বছর, অনার্সের ক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশন এর মেয়াদ ৬ ছিল এখন ৬ বছর থেকে এখন ৭ বছরে করা হয়েছে।


আশাকরি আপনিও অনার্সের কোনো সাবজেক্ট এ অকৃতকার্য হলে ইনপ্রোভ দিতে পারবেন পরবর্তি শ্রেণী /ইয়ার এ উঠে।

ইবাদতের মধ্যে একটি ধূলিকণা পরিমাণ লোক দেখানো মনোভাব থাকলে আল্লাহ তায়ালা ওই ইবাদত কবুল করবেন না। আর লোক দেখানো ভালো কাজ/ ইবাদত এই ধরনের মনোভাবও শিরক। 


মানুষকে দেখানো সকল প্রকার ভালো কাজ শিরক। রিয়া অর্থ লোক দেখানো ইবাদত। ইবাদত একান্ত আল্লাহর জন্য কেউ যদি লোক দেখানো কোন ভালো কাজ করে মানুষকে খুশি করার জন্য করে তাহলে গোপন শিরক হবে। এবং এর জন্য কিয়ামতে জাহান্নামের যেতে হবে। 


আল্লাহ তায়ালা একমাত্র শিকরের গুনাহ ক্ষমা করে না। ইবাদত করা দেখে অন্য কেউ দেখে ভালো বলুক এরূপ মনোভাব নিয়ে ইবাদত করলে প্রকৃত পক্ষে সে ইবাদত আল্লাহর উদ্দেশ্যে করা হয় না। এ কারণে রিয়াকে গোপন শিরক বলা হয়।


আপনার কাজটি বড় শিরক হয়নি তবে রিয়া তথা লোক দেখানো ইবাদাত করা ছোট শিরক। যা কবীরা গুণাহর চাইতেও ভয়ংকর। শিরকে আসগর বা ছোট শিরক এর উদাহরণ হচ্ছে, লোকদেখানোর উদ্দেশ্যে সৎ কাজকরা। যা আপনি করছেন


হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, এক ব্যক্তি হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞাসা করল, ইয়া রাসূলুল্লাহ (সা.) কোন কাজে মুক্তি ও পরিত্রাণ পাওয়া যাবে? নবী করিম (সা.) উত্তরে বললেন, তুমি আল্লাহ তায়ালার ইবাদত করবে এবং তা মানুষকে দেখানোর ইচ্ছা করবে না। হজরত মুহাম্মদ (সা.) আরও বলেন, কিয়ামতের দিন এক ব্যক্তিকে আল্লাহতায়ালার দরবারে হাজিরপূর্বক বলবেন, তুমি কি প্রকার ইবাদত করেছ? সে ব্যক্তি বলবে আমি নিজের প্রাণকে আল্লাহর রাস্তায় কোরবান করেছি। আমি জেহাদে যোগদান করলে কাফেররা আমাকে শহিদ করেছে।

আল্লাহতায়ালা বলবেন, তুমি মিথ্যা বলছ, তুমি শুধু এই উদ্দেশ্যে যুদ্ধ করেছিলে যে, লোকে তোমাকে বীরযোদ্ধা বলে আখ্যায়িত করবে। হে ফেরেশতাগণ! এ ব্যক্তিকে দোজখে নিয়ে যাও। অপর এক ব্যক্তিকে উপস্থিত করে জিজ্ঞাসা করা হবে তুমি কি প্রকারের ইবাদত করেছ? সে ব্যক্তি উত্তরে বলবে, আমার ধন-সম্পদ যা কিছু ছিল আমি তা আল্লাহর রাস্তায় দান-খয়রাত করেছি। আল্লাহপাক বলবেন, তুমি মিথ্যা বলছ, তুমি শুধু এ উদ্দেশ্য দান-খয়রাত করেছিলে যে, মানুষ তোমাকে দাতা বলে প্রশংসা করবে। অতএব এ ব্যক্তিকেও দোজখে নিক্ষেপ কর।

অতঃপর আরেক ব্যক্তিকে হাজির করে জিজ্ঞাসা করা হবে, তুমি কি প্রকারের ইবাদত করেছ? সে ব্যক্তি উত্তরে বলবে, আমি বহু পরিশ্রম করে বিদ্যা অর্জন করেছি এবং কোরআন শরিফ পাঠ করেছি। আল্লাহতায়ালা বলবেন, তুমি মিথ্যাবাদী, মানুষ তোমাকে আলেম বলবে এ উদ্দেশ্যে জ্ঞানার্জন করেছ। ফেরেশতাগণ! এ ব্যক্তিকেও দোজখে ফেলে দাও।

হজরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন, আমি আমার উম্মতের জন্য ছোট শিরকের ভয় যত করছি, এত ভয় অন্য কোনো বিষয়ে করি না। উপস্থিত সাহাবারা জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ! ছোট শিরক কি? হুজুর (সা.) উত্তর দিলেন, তা হচ্ছে- রিয়া।  

হাদিসে আরও বলা হয়েছে, ইবাদতের মধ্যে একটি ধূলিকণা পরিমাণ লোক দেখানো মনোভাব থাকলে আল্লাহ তায়ালা ওই ইবাদত কবুল করেন না।  

অন্য আরেক হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, কেয়ামতের দিন লোক দেখানো ইবাদতকারীদের এভাবে আহ্বান করা হবে, ওহে রিয়াকার, ওহে বিশ্বাসঘাতক, ওহে হতভাগা! তোমার সমস্ত নেক আমল বিনষ্ট হয়েছে। তুমি যে ব্যক্তিকে সন্তুষ্ট করার উদ্দেশ্যে ইবাদত করেছিলে এখন তাদের নিকট তোমার পারিশ্রমিক প্রার্থনা করো।

আপনার এখন করণীয় হলো আল্লাহ কাছে খাঁটি মনে তাওবা করা। ইখলাসের সাথে সহিহ নিয়তে তাওবা করা এবং তার দেয়া সকল বিধান আনুগত্যের সাথে মেনে নেয়া এই ধরনের কাজ /মনোভাব পরিহার করা।তাহলে ক্ষমা চাইলে হয়ত আল্লাহ তায়ালা রহমত করতে পারে। 


আল্লাহ তাআলা জানিয়েছেন যে, তিনি তওবাকারীর ও তার দিকে প্রত্যাবর্তনকারীর সকল গুনাহ মাফ করে দিবেন। তিনি বলেন, বলুন, হে আমার বান্দাগণ! তোমরা যারা নিজেদের প্রতি অবিচার করেছ আল্লাহ্‌র অনুগ্রহ হতে নিরাশ হয়ো না; নিশ্চয় আল্লাহ্‌ সমস্ত গোনাহ ক্ষমা করে দিবেন। নিশ্চয় তিনি ক্ষমাশীল ও পরম দয়ালু।” [সূরা যুমার, আয়াত: ৫৩]

আল্লাহ তায়ালা সকল প্রকার প্রকাশ্য, গোপন, ছোট-বড় সকল শিরকের গুনাহ থেকে আমাদেরকে রক্ষা করক। আমিন।

আপনি আগে কারণগুলি চিনহৃিত করুন কি কারণে মানুষ আপনাকে অপছন্দ করতেছে।

কি কথার কারণে আপনি মানুষের কাছে খারাপ হয়ে উঠতেছেন অনতিবিলম্বে এই কারণগুলি পরিহার করুন।


অসৎ গুণাবলী, মিত্যাবলা, অতিরিক্ত কথা বলা, হিসাবের বাহিরে কথা বলা পরিহার করুন। কাউকে কুটুক্তি করা, কাউকে অসম্মান, উপহাস করা থেকে বিরত থাকুন। হয়ত এই ধরনের কোনো কাজের কারনেই মানুষের কাছে ভালো থাকতে পারেন না।


নিচের কৌশলগুলি অনুসরণ করুন আশাকরি মানুষের কাছে আপন/পছন্দের পাত্র হতে পারবেন। অর্থাৎ ভালো থাকতে পারবেন সবার কাছে। 


১/ সাদর সম্ভাষণ এটা একটি প্রাথমিক কার্যকরী মাধ্যম। প্রিয় কারো সাথে দেখা হলে বিনয়ীর সাথে তাকে সম্ভাষণ জানান। এ ক্ষেত্রে আপনার ব্যাস্ততাকে বাদ দিয়ে দিয়ে তাকেই গুরুত্ব প্রদান করুন। যার ফলে তার মনে আপনার জন্য ইতিবাচক দিক তৈরি হব। কেননা এর ফলে সে ভাববে আপনি তাকে প্রাধান্য দিচ্ছেন। যেটি আপনাকে তার প্রিয় পাত্র হতে সাহায্য করবে। তাই সম্ভাষন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন বিষয়।   


২/ ইগো পরিহার করুন আমরা প্রত্যকেই অধিকাংশ সময় নিজস্ব ইগো বা অহংকার নিজেদের মধ্যে পুষে রাখি। এটি ধীরে ধীরে আমাদের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ছড়িয়ে পড়ে। বিস্তার করতে থাকে তার ভয়ংকর ডালপালা। পরিশেষে ইগোর জাল আমাদের আষ্টেপৃষ্ঠে ধরে, যে জাল ছিড়ে বের হওয়া কঠিন হয়ে পরে। কিন্তু পছন্দের পাত্র হতে হলে আপনাকে আপনার ইগো বর্জন করতে হবে। শিকড় থেকে উপড়ে ফেলতে হবে ইগো নামক ভ্রান্ত বৃক্ষ। কেননা ইগো আপনাকে মনের অজান্তেই মানুষের কাছ থেকে দূরে নিয়ে আসার প্রক্রিয়া চালায়। ইগো মানুষের সাথে সহজভাবে মেশার ক্ষেত্রে দেয়াল হয়ে দাঁড়ায়। যার ফলে মানুষের কাছাকাছি আসয়ে ব্যাঘাত ঘটে। কিন্তু প্রিয়পাত্র হয়ে ওঠার জন্য মানুষের সাথে মেশা জরুরী, বিনীয়ি হওয়া জরুরী। তাই সবার পছন্দের পাত্র হয়ে উঠার জন্য ইগো পরিহার করা অপরিহার্য।


৩/ ভালো শ্রোতা হয়ে উঠুন

আমরা সবাই বলতে চাই কিন্তু কেউ আসলে শোনার ইচ্ছা বা আগ্রহ প্রকাশ করি না। কিন্তু আমাদের খেয়াল রাখা জরুরী অন্যের সাথে ভালো সম্পর্ক স্থাপন অথবা মেশার ক্ষেত্রে তার কথা মনযোগ সহকারে শোনা অন্ত্যন্ত জরুরী। কেননা কেউ একজন আপনার সাথে কথা বলছে অথচ আপনি তার কথা মনযোগ দিয়ে শুনছেন না। তাহলে বক্তা আপনার উপর বিরূপ ধারনা পোষণ করবে।

অন্যদিকে আপনি যদি বক্তার দিকে হালকা ঝুকে, তার চোখের দিকে তাকিয়ে ধৈর্য সহকারে তার কথা মনযোগ দিয়ে শুনে এবং সঠিক সময়ে উত্তর প্রদান করেন তাহলে বক্তা খুশী হবে এবং অতি সহজে আপনি তার প্রিয় ব্যাক্তিতে রুপান্তরিত হতে পারবেন। তাই সবার কাছে পছন্দের মানুষ হতে গেলে আপনাকে অবশ্যই ভালো শ্রতা হতে হবে।

 

৪/ নতুনকে আপন করে নিন

এই কৌশলটি অতি দ্রুত পছন্দের ব্যাক্তি হিসেবে আপনাকে প্রতিষ্ঠিত করবে। নতুন কোন মানুষ আপনার কাছাকাছি আসলে তাকে অতিদ্রুত আপন করে নিন। কেননা, কেউই বিরূপ কোন মানুষ পছন্দ করে না। আর আমরা জানি যে নতুন কোন পরিবেশে একজন মানুষ আসলে কিছুটা উদ্বিগ্ন এবং সংকোচ বোধ করে।আপনি যদি সেখানে আগে থেকেই থাকেন তাহলে আপনার উচিৎ পরিচয়ের সঙ্গে সঙ্গে তার উদ্বিগ্নতা দূর করার চেষ্টা করা। তাহলে সহজেই সে ব্যাক্তি আপনাকে তার পছন্দের কাতারে রাখবে।

 

৫/ বডি ল্যাংগুয়েজ বা অঙ্গভঙ্গি

আমাদের মস্তিষ্ক কারো সাথে কথা বলার আগেই তার অঙ্গভঙ্গি দেখেই তার সমন্ধে একটি ছোটখাট ছক কষে ফেলে। আপনি কিভাবে হাটলেন, কিভাবে দাঁড়ালেন, কিভাবে হাসলেন, কথা বলার সময় কিরূপ ভঙ্গি করলেন ইত্যাদি দিয়ে আপনার আচরণবিধি প্রকাশিত হয়। অনেক মানুষই আপনার এসব বিষয় খুব নিখুঁত ভাবে পর্যবেক্ষণ করে আপনাকে বিচার করবে। তাই আপনার পরিবেশের সাথে মিল রেখে অঙ্গভঙ্গি করতে হবে। তাহলেই মানুষ আপনাকে পছন্দের শীর্ষে রাখবে।

পায়খানার/মলের সাথে রক্ত যাওয়া সাধারণ কোনো বেপার না এটাকে গুরুত্বদিয়ে দেখতে হবে এবং দ্রুত অভিজ্ঞ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পারামর্শ মতে প্রয়োজনীয় পরিক্ষা করে চিকিৎসা গ্রুহণ করা উচিত।

সাধারণ পাইলস থেকে শুরু করে ক্যানসার পর্যন্ত নানা কারণে পায়ুপথে রক্তপাত হতে পারে। 

অনেক সময় মলের সঙ্গে কালো রঙের পিচ্ছিল রক্ত যায়, যা ফ্ল্যাশ করলেও কখনো কখনো রয়ে যায়। এটি কিন্তু তাজা রক্ত নয়। সাধারণত পাকস্থলী বা অন্ত্র থেকে রক্তক্ষরণ হলে তা মলের সঙ্গে কালো আলকাতরার মতো রং ধারণ করে। কিন্তু পায়ুপথে তাজা লাল রক্ত গেলে তা বৃহদন্ত্রের একেবারে নিচের অংশ থেকে আসছে বলে ধরে নিতে হবে। পাইলস, অ্যানাল ফিশার, রেকটাল পলিপ বা রেকটাল ক্যানসার হতে পারে এর অন্তর্নিহিত কারণ। 


মলের সঙ্গে রক্তক্ষরণ, কখনো ডায়রিয়া, কখনো কোষ্ঠকাঠিন্য, দুর্বলতা, রক্তশূন্যতা, মলত্যাগ করার পরও আরও খানিকটা ইচ্ছে ইত্যাদি হতে পারে এর উপসর্গ।


আপাতত পরিমাণমতো পানি খাওয়া, অল পরিমানে হাটাহাটি করা, নির্দিষ্ট পরিমাণ সবজি খাওয়া, প্রতিদিনই অন্তত একবার টয়লেটে যাওয়ার অভ্যাস করুন। টয়লেটে যাওয়ার সময়টিও নির্দিষ্ট করা আছে। সকালে নাশতা করার আধা ঘণ্টা পরে টয়লেটে গিয়ে ১০ মিনিট সময় কাটিয়ে আসতে হবে। তাহলে তার অভ্যাস নিয়মিত তৈরি হবে। আর যার নিয়মিত অভ্যাস তৈরি হবে, তার এই রোগগুলো হওয়ার আশঙ্কা কমে যাবে।


মলদ্বার দিয়ে রক্ত পড়াকে স্বাভাবিকভাবে নিয়ে থাকে অনেকে। এটা করা যাবে না অবশ্যই আপনাকে দ্রুতই চিকিৎসকের পারামর্শ নিতে হবে, ভালো চিকিৎসকের এবং প্রয়োজনীয় পরিক্ষা করে চিকিৎসা নিতে হবে।

হ্যাঁ অবশ্যই আপনি HSC (BM) শাখা থেকে পাশ করে পলিটেকনিকে ভর্তি হতে পারবেন।

পলিটেকনিকে ভর্তির যোগ্যতা হলো সাধারণ SSC/সমমান/দাখিল।

সাধারণত HSC এর বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্ররা যদি এই ধরনের ডিপ্লোমা কোনো কর্সে ভর্তি হয় তাহলে সারাসরি তারা তৃতীয় সেমিস্টারে ভর্তি হতে পারে। 

পৃথিবীর গভিরে কি আছে আসুন পর্যায়ক্রমে জেনে নেই:

ভূপৃষ্ঠ থেকে অর্থাৎ যেখানে আমরা বসবাস করি এটাই পৃথিবীর সবথেকে উপরের অংশ। পৃথিবী পৃষ্ঠ দেশটির বিভিন্ন শিলা ও পাথর দিয়ে তৈরি। 


এটা পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ স্তর গুলোর তুলনায় পাতলা হলেও একেবারে কঠিন স্তর পৃথিবীর উপরিভাগের এই সব থেকে পাতলা স্তরটি প্রধানত দু'ভাগে বিভক্ত প্রথম হলো অসানিক কাস্ট  অর্থাৎ মহাসাগরীয় ভূত্বক এবং দ্বিতীয় কন্টিনেন্টাল কাস্ট অর্থাৎ মহাদেশীয় ভূত্বক| আমরা যদি সমগ্র পৃথিবীর ব্যাসার্ধের কথা বলি তবে সমুদ্রের অত্যন্ত গভীর জায়গাও আসলে খুব একটা গভীর নয়। কেননা প্রচণ্ড গভীর সমুদ্র পৃথিবীর উপরিভাগে শেষ হয়ে যায় পৃথিবীর আসল গভীরতা পৃথিবীর ভূত্বক অর্থাৎ  পৃথিবীর বহির্ভাগ এর পর থেকে শুরু হয়।

 

এই প্রথম মহাসাগর মহাদেশ নিয়ে প্রায় 100 কিলোমিটার গভীরতা পর্যন্ত বিস্তৃত। আর এই ভূত্বকের উষ্ণতা অভ্যন্তরীণ ভাবে প্রায় 500 থেকে 1000 ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত হয়। চলুন এরপর আরও খানিকটা গভীরে যাওয়া যাক এরপর আমরা পৌঁছাব দ্বিতীয় স্তরে এই স্তর টির নাম ম্যানটেল গুরুমন্ডল।      এই স্তরটি 2900 কিলোমিটার গভীর আর এখানকার উষ্ণতা প্রায় 4000 ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত হয়।


এই স্তরটি ট্রানজেকশন জোন এর মাধ্যমে দুটি ভাগে বিভক্ত আপার মেনটেল ও লোয়ার মেনটেল। আপার ম্যানটেল ও ভূমিষ্ট একসাথে একটি দীর্ঘ অঞ্চল গঠন করে এই অংশে ফাটল দিয়ে মেগমা ভূপৃষ্ঠে পৌঁছায় এবং আগ্নেওগিরির মাধ্যমে নির্গত হয়। চলুন বন্ধুরা আরো গভীরে যাওয়া যাক এবার আমরা এসে পৌছালাম পৃথিবীর সবথেকে অভ্যন্তরীণ ভাগে অর্থাৎ কোর বা কেন্দ্রে পৃথিবীর এই কেন্দ্র দুটি ভাগে বিভক্ত এর উপরিভাগকে বলা আউটার কোর এবং নিচের অংশটি কে বলা হয় ইনার কোর।


প্রথমে আউটার কোর কথা আলোচনা করা যাক এটা প্রায় 2400 কিলোমিটার পুরো পৃথিবীর ইনার কোর ও ম্যানটেল এর মাঝে অবস্থিত। এই স্তরটি লোহা ও নিকেল দিয়ে গঠিত একটি তরল স্তর।এখন আপনাদের মনে হতেই পারে যে লোহা দিয়ে তৈরি একটি স্তর কীভাবে তরল হতে পারে তাই না।  জানিয়ে রাখি বন্ধুরা এই আউটার কোরের উষ্ণতা প্রায় 4500 ডিগ্রি সেলসিয়াস হয় আর লোহা 1500 ডিগ্রি সেলসিয়াসে গোলে তরল হয়ে যাই। তাই এই অংশটি তরল লোহা দিয়ে তৈরি আরো জানিয়েছে বন্ধুরা এই আউটার করে জন্যই পৃথিবীতে চৌম্বকীয় তরঙ্গ ক্ষেত্রে সৃষ্টি হয়েছে । যার ফলে আমরা সহজেই কম্পাস ব্যবহার করতে পারি এখান থেকে আরো গভীরে গেলে আমরা পৌঁছে যাব পৃথিবীর কেন্দ্রে অর্থাৎ ইনার কোরে  এটা প্রায় 1200 কিলোমিটার ব্যাসার্ধ যুক্ত একটি কঠিন অংশ যা পৃথিবীর ব্যাসার্ধের প্রায় 20% ও চাঁদের ব্যাসার্ধের প্রায় 70 শতাংশ এটা পৃথিবী পৃষ্ঠ থেকে প্রায় 6371 কিলোমিটার গভীরে অবস্থিত। 


এটা কঠিন লোহা নিকেল দিয়ে গঠিত পৃথিবীর ইনার কোরের উষ্ণতা প্রায় 6000 ডিগ্রী সেলসিয়াস সূর্যের পৃষ্ঠের উচ্চতা প্রায় একই রকম হয়। বন্ধুরা আপনাদের মনে হতেই পারে যে এত অধিক হওয়া সত্বেও এই স্তরটি কিভাবে কঠিন অবস্থায় থাকে তাই না তাহলে জেনে রাখুন বন্ধুরা এই স্তরে পৃথিবীর অন্যান্য স্তরে সৃষ্ট চাপ এসে পড়ে  এবং এই বিশাল চাপের কারণে এই স্তরের লোহা ও নিকেলের গলনাঙ্ক অদ্ভুতভাবে প্রচন্ড হারে বৃদ্ধি পায় ফলে এই অংশটি কঠিন অবস্থায় থাকে।  


এখন প্রশ্ন হলো পৃথিবীর এত গভীরে কেউ তো যাইনি তাহলে পৃথিবীর অভ্যন্তরে এত গভীরতা পর্যন্ত। এত কিছু আছে আর এই অবস্থায় আছে আমরা কিভাবে জানলাম পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ বিষয়ে জানার জন্য আমরা সিসমিক ওয়েব ব্যবহার করি এই ওয়েবের সময় ও শক্তি আমাদের পৃথিবীর অভ্যন্তরের খবর দেয় এটি একটি এনার্জি ওয়েব এবং পাথরের

ঘনত্ব বদলানোর সাথে সাথে এটা ক্রোমো বিভক্ত হয় এবং নিজের গতিবেগ বদলায় এছাড়াও  পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ অবস্থা জানার জন্য আরো একটি প্রক্রিয়া আছে এবং সেটা হল দীপ রক স্টাডি অর্থাৎ পৃথিবীর অভ্যন্তরে যে সমস্ত পাথর থাকে সেগুলো বিভিন্ন আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের ফলে ভূপৃষ্ঠে চলে আসে এবং এই পাথরগুলো নিরীক্ষণ করে আমরা পৃথিবীর অভ্যন্তরভাগ সম্পর্কে জানতে পারি।

কম্পিউটার কি?

JaberAhsan
Jan 1, 12:23 PM

কম্পিউটার একটি ইলেকট্রনিক ডিভাইস, যা ব্যবহারকারীর দ্বারা ইনপুট করা তথ্যের রেজাল্টের রুপে সরবরাহ করে। 

অর্থাৎ কম্পিউটার এমন একটি ইলেকট্রনিক মেশিন যা ব্যবহারকারীর দ্বারা চালিত নির্দেশাবলী অনুসরণ করে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬০ সালে গোপন সংগঠন তৈরি করেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬০ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের লক্ষ্যে কাজ করার জন্য বিশিষ্ট ছাত্র নেতৃবৃন্দদের নিয়ে গঠন করেন ‘স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদ’ নামের একটি গোপন সংগঠন। প্রতিটি থানায় এবং মহকুমায় গঠন করেন ‘নিউক্লিয়াস’।

কিছু দিন পরপর জর আসে কি করণীয়?

Symphony mobile এর দাম?

JaberAhsan
Nov 30, 10:27 AM
Symphony Mobile কোন মডেলটা ভাল? যা deya youtube a video upload kora যাবে দাম 3600/3500 er majhe বলুন plz model.
Symphony mobile model E80 দিয়া কী Youtube a video upload করা যায়?
৬V ব্যাটারি ৬V চার্জার দিয়ে চার্জ করতে কয় ঘন্টা সময় লাগে?
আমার একটি হাই পাওয়ার ব্যাটারি আছে ৬ ভোল্টের এখন আমার ব্যাটারিটি আমি ৬ ভোল্টের চার্জার দিয়ে কয় ঘন্টা চার্জ দিলে অামার ব্যাটারির কোনো ক্ষতি হবে না।

৬V ব্যাটারি?

JaberAhsan
May 20, 02:59 AM
আমি কি করে ৬V ব্যাটারি থেকে ১২V বিদ্যুৎ বের করব? আমাকে বিস্তারিত বলে  সাহায্য করুন।
আমি কি করে আমার ছয় বোল্টের ব্যাটারি দিয়ে আমার এন্ড্রয়েট মোবাইল E15 মোবাইল চার্জ করব? কি আইসি ব্যাবহার করব ?
৬ ভোল্টের ব্যাটারি কোন কোম্পানির ব্যাটারি ভালো দাম সহ লিখুন।