বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
104 জন দেখেছেন
"স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে করেছেন (12 পয়েন্ট)
করেছেন (5,975 পয়েন্ট)
ঘুমের সময় টা আসলে নির্ভর করে মানুষের বয়স,শারীরিক পরিশ্রম, লাইফ স্টাইল,সাস্থ্য ইত্যাদির উপর...এগুলোর উপর ভিত্তি করে মানুষের ঘুমের সময় কম বেশি হতে পারে... কিন্তু মাত্রাতিরিক্ত ঘুম শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর... অতিরিক্ত ঘুমানো আসলে একটা রোগ যাকে Hypersomnia বলা হয়ে থাকে... এ রোগ হয়ে থাকলে মানুষ সাধারণত দিনে বা রাতে খুব বেশি পরিমানে ঘুমিয়ে থাকে...মানুষ খুব বেশি পরিমানে ঘুমালে অলস হয়ে যায়, কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলে, মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়...অতিরিক্ত ঘুম স্থুলতা,daibetes,মাথা বেথা,শরীরের বেথা,হতাশার অন্যতম কারণ.এছাড়া অতিরিক্ত ঘুমানের ফলে আপনার হার্ট এর অসুখ ও বাড়িয়ে দিবে,ব্লাড প্রেসার বাড়াবে,রক্তে কলেস্টেরল এর মাত্র বাড়িয়ে দিবে...আপনার শরীরের ন্যাচারাল বডি ডিফেন্স কে নষ্ট করে দিবে... জরিপে দেখা গেছে যে কোনো প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষ যদি রাতে ৯ ঘন্টা বা তার অধিক সময় ঘুমায় তার মৃত্যর ঝুকি ৭-৮ ঘন্টা ঘুমানো মানুসের তুলনায় বেশি থাকে...তাই ঘুমুতে যতই ভালো লাগুক, অতিরিক্ত ঘুম কখনো ই না

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (5,192 পয়েন্ট)

আপনি নিম্মোক্ত কিছু কাজ করুন।

১. অনেক মানুষ ঘুমতে যাওয়ার জন্য যুদ্ধ করে কেননা তারা অনেক কিছু করতে চায়- তাদের একটি দিন থেকে বিচ্যুতির অনিশ্চিয়তাবোধ রয়েছে। বোধহয় দিনটি শেষ হয়ে গেল। কিন্তু মর্গানস্টেইন তার গ্রাহকদের ভিন্নভাবে চিন্তা করতে শিক্ষা দিয়ে থাকেন। "ধরে নিন ঘুম হচ্ছে পরবর্তীদিনের শুরু", তিনি বলেন, এ ধরনের চিন্তা ঘুম সম্পর্কে আপনার চিন্তাকে পরিবর্তন করবে ঘুম সম্পর্কে আপনাকে আগ্রহীও করে তুলবে। আপনি নিয়ম অনুসারে ঘুম থেকে উঠুন।
২. আমাদের অনেকেই আছেন যারা ঘুম বঞ্চিত এবং অতিরিক্ত কয়েক ঘন্টা ঘুম চুরি আমাদের ব্যর্থতার দিকেই ঠেলে দিবে। সফল হওয়ার অন্যতম উপায় হলো তাড়াতাড়ি বিছানায় যাওয়া। ঠিক করুন আপনার শরীরের জন্য ক'ঘন্টা ঘুমের প্রয়োজন আর সেখান থেকেই ঘুমানো শুরু করুন। "তাড়াতাড়ি উঠার জন্য মস্তিষ্কের মধ্যেই একটা মৌলিক পরিবর্তন দরকার।" তিনি বলেন, এই পরিবর্তনটি দিনের পূর্বেই আপনার সমস্ত চেতনাকে তৈরি করবে যে কালকের দিনটি আপনার জন্য খুবই পরিশ্রমের হবে আর এর পূর্বে আপনার কিছু মাত্রায় বিশ্রাম দরকার।
৩. আপনাকে রাত্রিকালীন খাবার এবং খাবার খাওয়ার পরে মানসিক ভাবে হালকা হওয়ার কাজের (যেমন বই পড়া) মধ্যে সমন্বয় করতে হবে। আপনাকে রাতের খাবার অবশ্যই দুই থেকে তিন ঘন্টা আগে শেষ করতে হবে যদি আপনি সময় মতো ঘুমতে যেতে চান বা ভালো ঘুম দিতে চান।
৪. আপনি দিনের কাজ গুলো তৈরি করুন মাঝেমাঝে কিছু একটা বিছানায় শুয়ে থাকাকেও ক্লান্তিকর করেনা অথচ আমাদের পরের দিনের কাজের পরিকল্পনা বেশ ভারী। ইচ্ছে করলেই এই রাতেই কালকের কাজগুলোকে একটু গুছিয়ে নেয়া যেতে পারে। যেমনঃ যদি জিমে যান তো আজ রাতেই জিমে যাওয়ার কাপড়গুলো, ইয়োগার ম্যাট, জুতো গুছিয়ে রাখতে পারেন। যদি কাল অফিস যান তো আজ রাতেই কালকের জামা- কাপড়গুলোকে গুছিয়ে রাখতে পারেন। এতে আপনার ঘুম থেকে উঠতে দেড়ি হলেও কিছু কাজ থেকে আপনি বাঁচবেন।
৫. আপনি অন্ততঃ দেড় ঘন্টা আগে আপনি আপনার সমস্ত ইলেক্ট্রনিকস যন্ত্রগুলোর সুইচ বন্ধ করুন। টিভি বন্ধ করুন। বন্ধ করুন মেইল চেক করা, সোসাল মিডিয়ায় বিচরণ এমনকি ই-বই পড়াও। তিনি বলেন, "বিজ্ঞান বলে এগুলো আমারদের শক্তির উৎস হিসেবে কাজ করে এবং অতিরিক্ত উদ্দীপ্ত করে জাগিয়ে রাখে। এটা অনেকটা ঘুমতে যাওয়ার আগে এনার্জি ড্রিঙ্ক পান করার মতো যা কোনো মতেই ঘুমতে সাহায্য করেনা।" তিনি এর পরিবর্তে বরঞ্চ যা আমাদের মনকে হালকা করে এমন কিছু করতে উপদেশ দেন। যেমনঃ বই পড়া, গান শোনা, ছবি আঁকা অথবা পরবর্তী দিনের জন্য নাস্তা তৈরি করা। ৬. আপনি ঘুমতে যাওয়ার আগে কিছু কাজ করুন যা আপনার মনকে শান্তি দিবে এবং হাপ ছাড়ার জন্য সময় নিন। যেমনঃ দরজা- জানালা বন্ধ হলো কিনা দেখুন।, পানির কল বন্ধ কিনা, এলার্ম সেট করুন, বাত্বিগুলো নিভিয়ে দিন। প্রয়োজনে কিছুক্ষন হাটাহাটি করুন। এতে দ্রুত ঘুম আসবে আপনি তাড়াতাড়ি উঠতে পারবেন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

4 টি উত্তর
21 অক্টোবর 2018 "সাধারণ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন মো:আরমান (74 পয়েন্ট)

311,721 টি প্রশ্ন

401,307 টি উত্তর

123,210 টি মন্তব্য

172,788 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...