বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
106 জন দেখেছেন
"ফল" বিভাগে করেছেন (2,833 পয়েন্ট)

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (2,833 পয়েন্ট)

বাংলাদেশের জাতীয় বৃক্ষ। ২০১০ খ্রিষ্টাব্দের নিয়মিত সংসদীয় সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। এই বিচারে জাতীয় ফল কাঁঠাল কিন্তু জাতীয় গাছ আম।


ইংরেজি Mango।
বৈজ্ঞানিক নাম Man
gifera indica

এটি Anacardiaceae পরিবার ভূক্ত চিরহরিৎ সপুষ্পক বৃক্ষ। এই গাছের আদি নিবাস দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া। এই গাছের এর  ।

প্রজাতি অনুসারে এই গাছ বিভিন্ন উচ্চতার হয়ে থাকে। এই উচ্চতার পার্থক্য ১৫ থেকে ৫০ ফুট-এর ভিতরে হয়ে থাকে। এর পাতা লম্বায় ৮-১১ ইঞ্চি হয়। লম্বার বিচারে চওড়া কম।  পাতার অগ্রভাগ সরু। পাতার রঙ ঘন সবুজ। এর ফুল একটি পুষ্পদণ্ডে গুচ্ছাকারে হয়। ফুল পীতবর্ণ, গন্ধযুক্ত এবং স্ত্রী ও পুংকেশরযুক্ত। ফুলে পাঁচটি পাপড়ি আছে। পাঁচটি পুংকেশরের একটি বড় অপর চারটি ছোট। চৈত্র মাসের শেষের দিকে আমের গুঁটি দেখা যায়। সাধারণত বৈশাখ মাসের শেষাংশ থেকে থেকে আষাঢ় মাস পর্যন্ত আম পাওয়া যায়। কাঁচা অবস্থায় আমের রঙ সবুজ, কিন্তু পাকলে প্রজাতিভেদে হলদে, কমলা, পীত ইত্যাদি বর্ণ ধারণ করে। আমগাছ প্রাকৃতিকভাবে আঁটি থেকে জন্মে।
বাংলাদেশে বহু প্রজাতির আম প্রচলিত আছে। এসকল আম আঞ্চলিক নাম নিয়ে খ্যাতি লাভ করেছে। যেমন- ফজলি, ল্যাংড়া, গোপালভোগ, খিরসা, সিন্দুরি ইত্যাদি। 

 

এক নজরে আমের উপকারিতা:

• আমে প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকায় অ্যানেমিয়ার সমস্যায় উপকারী
• ফাইবার সমৃদ্ধ হওয়ায় কনস্টিপেশন দূর করে
• কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে
• শরীরে পটাশিয়ামের অভাব দূর করে
• শরীরে এনার্জি বাড়াতে সাহায্য করে
• পটাশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম প্রচুর পরিমাণে থাকায় এসিডিটি, মাসল ক্যাম্প, স্ট্রেস ও হার্টের সমস্যায় উপকারী
• ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ কাঁচা আম চোখ ভালো রাখতে সাহায্য করে
• শরীরে কোলেস্টেরল লেভেল কম রাখতে সাহায্য করে
• ভিটামিন-সি প্রচুর পরিমাণে থাকায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে
• গরমের সময় সর্দিতে আম উপকারী
• হজমের দুর্বলতা কমাতে সহায়ক
• কিডনির সমস্যায় সাহায্য করে
• এসিডিটি উপশমে ভালো কাজ করে
• আম দিয়ে শরবত তৈরি করে খেলে বেশ উপকার পাওয়া যায়
• আম পিপাসা মেটাতে সহায়তা করে।
• আম লিভার ভালো রাখে।
• ভিটামিন-সি প্রচুর পরিমাণে থাকায় আম ব্লাড ডিজঅর্ডারের সমস্যাতেও উপকারী।
• চোখের কর্ণিয়া নরম হয়ে যাওয়া, বিফ্রেকটিভ সমস্যায়ও আম উপকারী।
• আম যথেষ্ট পরিমাণে খেলে হেলদি এপিথেলিয়াম তৈরি হয়।
• সাইনাসের সমস্যা অনেকটা কমে যায়।
• আমে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি থাকে।

আম অনেক পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ হলেও অতিরিক্ত আম শরীরের জন্য ভালো নয়। গলার সমস্যাসহ অতিরিক্ত আম হজমে সমস্যা তৈরি করতে পারে। অনেক সময় কাঁচা আম খাওয়ার সময় আমরা অতিরিক্ত লবণ মরিচ মিশিয়ে খেয়ে থাকি। শরীরের জন্য অতিরিক্ত লবণ ক্ষতিকারক। পরে এই অতিরিক্ত লবণ শরীর থেকে বের করে দিতে বডি সিস্টেম এর ধকল পোহাতে হয়।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
08 জুন "ফল" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল
2 টি উত্তর
02 জুন "ফল" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন MD Nabab Ali (163 পয়েন্ট)
2 টি উত্তর
2 টি উত্তর
03 জুলাই 2018 "ফল" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তিস্তা পাড়ের ফিরোজ (13 পয়েন্ট)
2 টি উত্তর
13 জুন 2018 "ফল" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Goneshray (40 পয়েন্ট)

311,918 টি প্রশ্ন

401,528 টি উত্তর

123,309 টি মন্তব্য

172,883 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...