132 জন দেখেছেন
"ফাতাওয়া-আরকানুল-ইসলাম" বিভাগে করেছেন (8 পয়েন্ট)
বন্ধ করেছেন
বন্ধ

2 উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (731 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর
সমকামিতা একটি জঘন্যতম গোনাহ;এই গোনাহের কারণে ক‌ওমে লূতকে কঠিন শাস্তির মাধ্যমে ধ্বংস করা হয়েছে। কোরআনে তাদের ধ্বংসের কথা এভাবে এসেছে;সূরা হুদ:82 - অবশেষে যখন আমার হুকুম এসে পৌঁছাল, তখন আমি উক্ত জনপদকে উপরকে নীচে করে দিলাম এবং তার উপর স্তরে স্তরে কাঁকর পাথর বর্ষণ করলাম।

সূরা আল ক্বামার:37 - তারা লূতের (আঃ) কাছে তার মেহমানদেরকে দাবী করেছিল। তখন আমি তাদের চক্ষু লোপ করে দিলাম। অতএব, আস্বাদন কর আমার শাস্তি ও সতর্কবাণী।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হাদিসে এই অপকর্মকে জঘন্যতম অপরাধ সাব্যস্ত করে বলেছেন,ইবনু ‘আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃতিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃ তোমরা কাউকে যদি লুত গোত্রের মতই কুকর্মে লিপ্ত দেখতে পাও তাহলে কর্তা ও যার সঙ্গে করা হয়েছে তাদের উভয়কে হত্যা করো।সুনানে আবু দাউদ, হাদিস নং ৪৪৬২

হাদিসের মান: হাসান সহিহ

সমকামিতা এত জঘন্যতম হলেও খাঁটি তাওবার মাধ্যমে ক্ষমা পাওয়া সম্ভব। এদিকে ইঙ্গিত করে কোরআনে আল্লাহ পাক বলেন;

 সূরা আল-ফুরকান:68 - এবং যারা আল্লাহর সাথে অন্য উপাস্যের এবাদত করে না, আল্লাহ যার হত্যা অবৈধ করেছেন, সঙ্গত কারণ ব্যতীত তাকে হত্যা করে না এবং ব্যভিচার করে না। যারা একাজ করে, তারা শাস্তির সম্মুখীন হবে।69 - কেয়ামতের দিন তাদের শাস্তি দ্বিগুন হবে এবং তথায় লাঞ্ছিত অবস্থায় চিরকাল বসবাস করবে। 70 - কিন্তু যারা তওবা করে বিশ্বাস স্থাপন করে এবং সৎকর্ম করে, আল্লাহ তাদের গোনাহকে পুন্য দ্বারা পরিবর্তত করে দেবেন। আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।
3 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (4,426 পয়েন্ট)

আপনি যা করেছেন তা অবশ্যই ইসলামী শরীয়তে একটি জঘন্যতম অপরাধ। তবে আপনি যদি খাঁটি দিলে তাওবা করেন তাহলে অবশ্যয় আপনাকে মহান আল্লাহ তাআলা ক্ষমা করবেন। কারণ হাদীসে এসেছে- রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-

عن أبي عبيدة بن عبد الله عن أبيه قال قال رسثول الله صلى الله عليه و سلم:( التائب من الذنب كمن لا ذنب له ).

অর্থাৎ গুনাহ থেকে (খাঁটি দিলে) তাওবাকারী কেমন যেন তার কোন গুনাহই নেই। -সুনানে ইবনে মাযা: হা. নং ৪২৫০


টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

4 টি উত্তর
আমি জিনা করেছিলাম।আমি আল্লাহর কাছে মনে মনে অনুতপ্ত হয়েছি,ক্ষমা চেয়েছি কিন্তু নামাজ পরে তওবা করিনি।আমি তখন জানতাম না যে এরকম ব্যভিচার করলে পবিত্র কাউকে বিয়ে করা যায়না।আমি আমার স্বামীকে বিয়ের আগে জানিয়েছিলাম যে আমার আগে একজনের সাথে সম্পর্ক ছিল কিন্তু জিনার কথা লজ্জায় বলিনি।বিয়ের কিছুিদন পর সে সব জেনে যায়।এখন সে আমাকে খুব সন্দেহ করে।আমি জানি সেটা তার দোষ না।কিন্তু আমাদের সংসার প্রায় ভেঙ্গে যাওয়ার পথে।আমি ইস্তেগফারের নামাজ পরে আল্লাহর কাছে মাফ চেয়েছি।আমি আমার স্বামীকে অনেক ভালোবাসি।কিন্তু কিভাবে সব ঠিক হবে বুঝি না।আমার জন্য দোয়া করবেন যেন আল্লাহ আমাকে মাফ করেন।?
06 জানুয়ারি 2016 "ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন সিমিন (9 পয়েন্ট)
1 উত্তর
22 ডিসেম্বর 2018 "যৌন" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তোপা (8 পয়েন্ট)

282,929 টি প্রশ্ন

367,225 টি উত্তর

110,581 টি মন্তব্য

152,581 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...