80 জন দেখেছেন
"ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে করেছেন (1,174 পয়েন্ট)
বন্ধ করেছেন
এই চিরকূট সহকারে বন্ধ করা হয়েছে : যথেষ্ট উত্তর দেওয়া হয়েছে

5 উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (3,320 পয়েন্ট)
হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর উপদেশ এবং বিখ‍্যাত বাণীসমূহঃ ১-তোমরা তোমাদের গৃহসমূহকে কবর বানিয়ে নিয়ো না। ২-তোমাদের মধ্যে সেই ব্যাক্তি উত্তম,যে কুরআন শিক্ষা করে এবং অপরকে শিক্ষা দেয়। ৩- অতি ঝগড়াটে ব্যক্তি আল্লাহর নিকট সর্বাপেক্ষা নিকৃষ্ট ব্যক্তি। ৪ - সকল কাজ নিয়্যতের উপর নির্ভরশীল। ৫- দ্বীন হচ্ছে শুভকামনা।
1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (5,711 পয়েন্ট)
হযরত মোহাম্মদ (সাঃ)-এর উপদেশ বাণীসমূহ লিখে শেষ করা যাবে না। তবুও গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি উপদেশ তুলে ধরা হলোঃ

রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দাসদের সাথে উত্তম ব্যবহার করার উপদেশ দিতেন এবং বলতেনঃ তোমরা যা খাও তাদেরকেও তা খাওয়াও, তোমরা যা পরিধান করো তাদেরকেও তা পরিধান করাও এবং আল্লাহর সৃষ্টিকে কষ্ট দিও না। যারা আল্লাহর সঙ্গে কুফরী করে তাদের বিরুদ্ধে লড়াই করবে। জিহাদ করবে কিন্তু গনীমতের খিয়ানত করবে না, বিশ্বাসঘাতকতা করবে না। মুছলা করবে না অর্থাৎ নিহত ব্যক্তির নাক কান ইত্যাদি কেটে তাকে বিকৃত করবে না, শিশুদের হত্যা করবে না।
1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (4,477 পয়েন্ট)

আবূ আব্বাস আব্দুল্লাহ্ ইবন আব্বাস রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু বর্ণনা করেছেন- একদিন আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর পিছনে ছিলাম, তিনি আমাকে বললেন: “হে যুবক! আমি তোমাকে কয়েকটি কথা শেখাবো- আল্লাহকে সংরক্ষণ করবে।*(আল্লাহ্কে সংরক্ষণ করার অর্থ, আল্লাহ তাওহীদ ও অধিকার সংরক্ষণ। আল্লাহ আদেশ নিষেধ ও শরী‘আতের বিধি- বিধানের সীমারেখা সংরক্ষণ।) তো তিনি তোমাকে সংরক্ষণ করবেন, আল্লাহকে স্মরণ করলে তাঁকে তোমার সামনেই পাবে। যখন কিছু চাইবে তো আল্লাহর কাছেই চাইবে ; যখন সাহায্য চাইবে তো আল্লাহর কাছেই
সাহায্য চাইবে। জেনে রাখ, সমস্ত মানুষ যদি তোমার কোন উপকার করতে চায় তবে আল্লাহ্ তোমার জন্য যা নির্দিষ্ট

করে দিয়েছেন, তা ব্যতীত আর কোন উপকার করতে পারবে না। আর যদি সমস্ত মানুষ তোমার কোন অনিষ্ট করতে চায় তবে আল্লাহ্ তোমার জন্য যা নির্দিষ্ট করে দিয়েছেন তা ব্যতীত আর কোন অনিষ্ট করতে পারবে না। কলম তুলে নেয়া হয়েছে এবং পৃষ্ঠা শুকিয়ে গেছে।” [তিরমিযী: ২৫১৬, হাদীসটি সহীহ হাসান ।]

অন্য বর্ণনায় বলা হয়েছে: “আল্লাহকে স্মরণ করবে তো তাঁকে তোমার সম্মুখে পাবে, তুমি স্বচ্ছল অবস্থায় আল্লাহকে স্মরণ করবে তো তিনি তোমাকে কঠিন অবস্থায় স্মরণ করবেন। মনে রেখো- যা তুমি পেলে না, তা তোমার পাবার ছিল না, আর যা তুমি পেলে তা তুমি না পেয়ে থাকতে না। আরো জেনে রাখো- ধৈর্য্য ধারণের ফলে (আল্লাহর) সাহায্য লাভ করা যায়। কষ্টের পর স্বাচ্ছন্দ আসে। কঠিন অবস্থার পর স্বচ্ছলতা আসে।”

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (3,782 পয়েন্ট)

মুসলমান হিসেবে আমাদের দায়িত্ব ইসলামকে জানা। সেজন্য আল্লাহর বাণী কুরআনের পাশাপাশি হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাণী হাদিস পড়তে হবে এবং সে অনুযায়ী চলতে হবে। এখানে জীবনাচার সম্পৃক্ত কিছু হাদিসের বাণী সংকলন করা হলো-

জ্ঞানার্জন
০১. রাতে কিছুক্ষণ জ্ঞানচর্চা করা সারারাত জেগে (ইবাদতে মশগুল) থাকার চেয়ে উত্তম। -সুনানে দারেমী

০২. যে জ্ঞানের সন্ধানে বের হয়, সে আল্লাহর পথে বের হয়। -সুনানে তিরমিযী

০৩. আমার পরে সবচেয়ে বড় দানশীল সে, যে কোনো বিষয়ে জ্ঞান লাভ করলো- অতঃপর তা ছড়িয়ে দিলো। -বায়হাকি

শ্রেষ্ঠ আমল
০১.
শ্রেষ্ঠ আমল হলো- আল্লাহর জন্যে ভালোবাসা এবং আল্লাহর জন্যে ঘৃণা করা। -আবু দাউদ

সুধারণা-কুধারণা
০১.
সুধারণা করা একটি ইবাদত। -আহমদ

০২. অনুমান ও কুধারণা করা থেকে বিরত থাকো, কেননা অনুমান হলো- বড় মিথ্যা কথা। -সহিহ বোখারি

অত্যাচার
০১.
অত্যাচার করা থেকে বিরত থাকা। কেননা, কিয়ামতের দিন অত্যাচার অন্ধকারের রূপ নেবে। -সহিহ মুসলিম

০২. অত্যাচারিতের ফরিয়াদ বা আর্তনাদ থেকে নিজেকে আত্মরক্ষা করো। -সহিহ বোখারি

ভ্রাতৃত্ব
০১. মুমিন মুমিনের ভাই। -মিশকাত

০২. মুসলমান মুসলমানের ভাই। -সহিহ বোখারি

বর্ণিত এই দুই হাদিসে ঈমান এবং ইসলামকে ভ্রাতৃত্বের ভিত্তি বলে উল্লেখ করা হয়েছে। 

ভ্রাতৃত্বের দায়িত্ব
০১.
মুমিন মুমিনের আয়না। -মিশকাত

এ হাদিসের শিক্ষা হলো- আয়না যেমন ময়লা দূর করতে এবং সাজ সৌন্দর্য গ্রহণ করতে সাহায্য করে, তেমনি একজন মুমিনের কর্তব্য তার মুমিন ভাইয়ের দোষত্রুটি দূর ও সুন্দর গুণাবলী অর্জন করার কাজে সাহায্য করা।

০২. মুসলমান মুসলমানের ভাই। সে তার ভাইয়ের প্রতি অত্যাচার করে না এবং তাকে অপমানিতও করে না। -সহিহ মুসলিম

০৩. মুমিন মুমিনের সঙ্গে প্রাচীরের গাঁথুনির মতো মজবুত সম্পর্ক রাখে। -সহিহ বোখারি

০৪. মুমিন ছাড়া অন্যকে সাথী বন্ধু বানাবে না। -মিশকাত

বিনয়
০১ .
যে আল্লাহর উদ্দেশ্যে বিনয়ী হয়, আল্লাহতায়ালা তার মর্যাদা বাড়িয়ে দেন। -মিশকাত

বিশ্বাস ভঙ্গ করা
০১.
যে তোমার সঙ্গে বিশ্বাস ভঙ্গ করেছে, তুমি তার সঙ্গে বিশ্বাস ভঙ্গ করো না। -তিরমিজি

আনুগত্য ও নেতৃত্ব
০১.
যে নেতার আনুগত্য করলো- সে আমারই আনুগত্য করলো। -সহিহ বোখারি

০২. যে নেতার অবাধ্য হলো- সে আমার অবাধ্য হলো। -সহিহ বোখারি

০৩. যে আল্লাহর অবাধ্য হয়, তার আনুগত্য করা যাবে না। -কানজুল উম্মাল

০৪. কারও এমন হুকুম মানা যাবে না, যাতে আল্লাহর হুকুম অমান্য করতে হয়। -সহিহ মুসলিম

০৫. যে নেতা হয়, তাকে সবার চেয়ে দীর্ঘ হিসাব দিতে হবে। -কানজুল উম্মাল 

ভালো ব্যবহার
০১.
যে আল্লাহ ও পরকালের প্রতি ঈমান রাখে, সে যেনো উত্তম কথা বলে। - সহিহ বোখারি

০২. তোমার ভাইয়ের দিকে হাসি মুখে তাকানো একটি দান। -তিরমিজি

০৩. যে মানুষের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে না, সে আল্লাহরও কৃতজ্ঞ হয় না। - আবু দাউদ

প্রফুল্লতা
০১.
মনের প্রফুল্লতা আল্লাহর একটি অনুগ্রহ। -মিশকাত

ক্ষতিগ্রস্ত লোক
০১.
যার দু’টি দিন সমান গেলো- সে ক্ষতিগ্রস্ত হলো। -দায়লামি

এ হাদিসের মর্ম হলো- যে ব্যক্তি প্রতিদিন নিজেকে আগের দিনের চেয়ে এক ধাপ উন্নত কতে পারে না, কিছু‌টা এগিয়ে নিতে পারে না, সে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং পিছিয়ে পড়ে।

ভালো মানুষ
০১.
তোমাদের মধ্যে ভালো মানুষ তারা, যাদের দেখলে আল্লাহর কথা স্মরণ হয়। -ইবনে মাজাহ

ভালো কাজ
০১.
প্রতিটি ভালো কাজ একটি দান। -সহিহ বোখারি

০২. উত্তম লোক সে, যার বয়স হয় দীর্ঘ আর কর্ম হয় সুন্দর। -তিরমিজি

প্রতারণা ও হিংসা-বিদ্বেষ
০১.
যে কাউকেও প্রতারণা করলো সে আমার লোক নয়। -সহিহ মুসলিম

০২. সাবধান! তোমরা হিংসা করা থেকে আত্মরক্ষা করো। -আবু দাউদ

০৩. তোমরা একে অপরের প্রতি হিংসা করো না, ঘৃণা বিদ্বেষ করো না এবং পরস্পর থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়ো না। -সহিহ মুসলিম

জনসেবা
০১.
রোগীর সেবা করো এবং ক্ষুধার্তকে খেতে দাও। -সহিহ বোখারি

০২. আল্লাহ সব কিছুর প্রতি দয়া ও সহানুভূতি দেখানোর নির্দেশ দিয়েছেন। - সহিহ মুসলিম

০৩. আল্লাহ ততোক্ষণ বান্দার সাহায্য করেন, যতোক্ষণ সে তার ভাইয়ের সাহায্য করে। -সহিহ মুসলিম

০৪. যে তার ভাইয়ের প্রয়োজন পূরণ করে, আল্লাহ তার প্রয়োজন পূরণ করেন। -সহিহ বোখারি

০৫. তোমার ভাইয়ের বিপদে আনন্দ প্রকাশ করো না। -তিরমিজি

তওবা
০১.
বান্দা যখন অপরাধ স্বীকার করে এবং তওবা করে, তখন আল্লাহ তার তওবা কবুল করেন। -সহিহ বোখারি

তওবা মানে ফিরে আসা। তওবা করার অর্থ হলো- অন্যায়, অপরাধ ও ভুল হয়ে গেলে তা স্বীকার করে সে জন্যে অনুশোচনা করা ও তা থেকে, ফিরে আসা এবং এমন কাজ আর কখনও না করার সিদ্ধান্ত নেওয়া।

০২. সব আদম সন্তানই ভুল করে। তবে এদের মধ্যে উত্তম হলো- তারা যারা ভুলের জন্যে তওবা করে। -তিরমিজি

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (315 পয়েন্ট)
হযরত মোহাম্মদ সাঃ এর উপদেশ ও বিখ্যাত বানী নিচে তুলে ধরা হল## ১.জান্নাতের চাবি হলো – ‘ আল্লাহ ছাড়া কোনো ইলাহ নাই ’ এ সাক্ষ্য দেয়া । ( আহমদ ) শব্দার্থ : ‘ ইলাহ’ মানে হুকুমকর্তা , আইনদাতা , আশ্রয়দাতা, ত্রাণকর্তা, উপাস্য, প্রার্থনা শ্রবণকারী। ২.আল্লাহ সুন্দর ! তিনি সৌন্দর্যকেই পছন্দ করেন। [ সহীহ মুসলিম ] ৩. শ্রেষ্ঠ কথা চারটি : ক. সুবহানাল্লাহ – আল্লাহ পবিত্র , খ. আল হামদুলিল্লাহ – সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর , গ. লা – ইলাহা ইল্লাল্লাহ – আল্লাহ ছাড়া কোন ইলাহ নাই, ঘ. আল্লাহু আকবর – আল্লাহ মহান। [ সহীহ মুসলিম ] আল্লাহর অধিকার ৪. বান্দাহর উপর আল্লাহর অধিকার হলো , তারা কেবল তাঁরই আনুগত্য ও দাসত্ব করবে এবং তাঁর সাথে কোনো অংশীদার বানাবেনা । [ সহীহ বুখারী ] ঈমান ৫.বলো : ‘ আমি আল্লাহর প্রতি ঈমান এনেছি ; অতপর এ কথার উপর অটল থাকো । [ সহীহ মুসলিম ] ৬. ঈমান না এনে তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবেনা। [ তারগীব ] ৭. যে কেউ এই ঘোষণা দেবে : ‘ আল্লাহ ছাড়া কোনো ইলাহ নাই আর মুহাম্মদ সাঃ আল্লাহর রসূল ’ – আল্লাহ তাকে জাহান্নামের জন্যে নিষিদ্ধ করে দেবেন।[ সহীহ বুখারী ] ঈমান থাকার লক্ষণ ৮. তুমি মুমিন হবে তখন , যখন তোমার ভালো কাজ তোমাকে আনন্দ দেবে , আর মন্দ কাজ দেবে মনোকষ্ট। [ আহমদ ] ইসলাম ৯. সব কাজের আসল কাজ হলো ‘ ইসলাম’ । [ আহমদ ] ১০. কোনো বান্দাহ ততোক্ষণ পর্যন্ত মুসলিম হয়না , যতোক্ষণ তার মন ও যবান মুসলিম না হয়। [ তাগরীব ] পবিত্রতা ১১. পবিত্রতা ঈমানের অর্ধেক। [ সহীহ মুসলিম ] ১২ . যে পূত পবিত্র থাকতে চায় , আল্লাহ তাকে পূত পবিত্র রাখেন। [ সহীহ বুখারী ] সালাত ১৩. সালাত জান্নাতের চাবি। [ আহমদ ] শব্দার্থ : সালাত – নামায । জান্নাত – বেহেশত। ১৪ . সালাত হলো ‘ নূর’ । [ সহীহ মুসলিম ] ১৫. সালাত আমার চক্ষু শীতলকারী । [ নাসায়ী ] ১৬. পবিত্রতা সালাতের চাবি । [ আহমদ ] ১৭. সালাত মুমিনদের মি’রাজ । [ মিশকাত ] শব্দার্থ : মি’রাজ মানে – উর্ধ্বে গমন করা বা আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা। ১৮. যে পরিশুদ্ধ হয়না , তার সালাত হয়না। [ মিশকাত ] ১৯. সাত বছর বয়স হলেই তোমাদের সন্তানদের সালাত আদায় কতে আদেশ করো । [ আবু দাউদ ] ২০. কিয়ামতের দিন পয়লা হিসাব নেয়া হবে সালাতের । [ তাবরানি ] ২১ . আল্লাহর অনুগত দাস আর কুফরীর মাঝে মিলন সেতু হলো সালাত ত্যাগ করা । [ সহীহ মুসলিম ] ২২ . যে ব্যক্তি লোক দেখানোর জন্যে সালাত পড়লো , সে শিরক করলো । [ আহমদ ] সাওম ২৩ . সাওম একটি ঢাল। [ মিশকাত ] শব্দার্থ : সাওম – রোজা। ২৪. সাওম এবং কুরআন বান্দার জন্যে সুপারিশ করবে । [ বায়হাকী ] ২৫. যখন রমযান শুরু হয় , তখন রহমতের দুয়ার খুলে দেয়া হয়। [ সহীহ বুখারী ] ২৬. তোমাদের মাঝে বরকতময় রমযান মাস এসেছে। আল্লাহ তোমাদের উপর এ মাসের সিয়াম সাধনা ফরয করে দিয়েছেন। [ নাসায়ী ] হজ্জ ও উমরা ২৭. হজ্জ ও উমরা পালনকারীরা আল্লার মেহমান। [ মিশকাত ] আল্লাহর পথে জিহাদ ২৮ . আল্লাহর পথে একটি সকাল কিংবা একটি সন্ধ্যা ব্যয় করা গোটা পৃথিবী এবং পৃথিবীর সমস্ত সম্পদের চেয়ে উত্তম। [ সহীহ বুখারী ] ২৯. যে লড়ে যায় আল্লাহর বাণীকে বিজয়ী করার জন্যে সেই আল্লাহর পথে ( জিহাদ করে ) । [ সহীহ বুখারী ] ৩০. অত্যাচারী শাসকের সামনে সত্য কথা বলা সবচেয়ে বড় জিহাদ। [ তিরমিযী ] জ্ঞানার্জন ৩১. রাত্রে ঘন্টাখানেক জ্ঞান চর্চা করা সারা রাত জেগে ( ইবাদতে নিরত ) থাকার চেয়ে উত্তম । [ দারমী ] ৩২. যে জ্ঞানের সন্ধানে বের হয় , সে আল্লাহর পথে বের হয়। [ তিরমিযী ] ৩৩. আমার পরে সবচেয়ে বড় দানশীল সে , যে কোনো বিষয়ে জ্ঞান লাভ করলো , অতপর তা ছড়িয়ে দিলো । [ বায়হাকী ] আল কুরআন ৩৪. সর্বোত্তম বাণী আল্লাহর কিতাব । [ সহীহ মুসলিম ] ৩৫. কুরআনকে আঁকড়ে ধরো , তাহলে কখনো বিপথগামী হবেনা। [ মিশকাত ] ৩৬. কুরআন পরিবারের লোকেরা আল্লাহর পরিবার এবং তাঁর বিশেষ লোক। [ নাসায়ী ] ৩৭. তোমরা আল্লাহর কিতাবকে আঁকড়ে ধরো। এর হালালকে হালাল বলে গ্রহণ করো এবং এর হারামকে হারাম বলে বর্জন করো । [ হাকিম ] ৩৮. যে আল্লাহর কিতাবের পথ ধরে সে দুনিয়াতে বিপথগামী হয়না এবং পরকালে হয়না দুর্ভাগা । [ মিশকাত ] ৩৯. আমার উম্মতের সম্মানিত লোক হলো কুরআনের বাহক আর রাতের সাথীরা [ বায়হাকী ] রসূল ও সুন্নাহ ৪০. সর্বোত্তম জীবন পদ্ধতি হচ্ছে মুহাম্মদ সাঃ প্রদর্শিত পদ্ধতি। [ সহীহ মুসলিম ] ৪১. যে আমার আনুগত্য করলো সে আল্লাহর আনুগত্য করলো। [ সহীহ বুখারী ] ৪২. যে আমাকে অমান্য করলো সে আল্লাহকে অমান্য করলো । [ সহীহ বুখারী ] ৪৩. যে আমার সুন্নতকে ভালোবাসলো সে আমাকে ভালোবাসলো । [ সহীহ মুসলিম ] ৪৪. যে আমার সুন্নত থেকে বিমুখ হলো , সে আমার লোক নয়। [ সহীহ মুসলিম ] ৪৫ . আমি আল্লাহর কাছে শেষ নবী হিসেবে লিখিত আছি। [ শরহে সুন্নাহ ]
টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর

283,685 টি প্রশ্ন

368,219 টি উত্তর

111,047 টি মন্তব্য

153,123 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...