124 জন দেখেছেন
"ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে করেছেন (4 পয়েন্ট)
বন্ধ

4 উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (5,687 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর
আল্লাহ তাআলা সুলাইমান (আঃ)-কে অনেক বৈশিষ্ট্য দান করেছিলেন, ঠিক তেমন আল্লাহ তাআলা মানুষকে সেরকম বৈশিষ্ট্য দান করলে মানুষের পক্ষেও জিনকে বসে এনে ভালো এবং খারাপ কাজ করানো সম্ভব।

আল্লাহ তাআলা বায়ু প্রবাহকে সুলাইমান (আঃ)-এর অনুগত করে দিয়েছিলেন। তাঁর হুকুম মত বায়ু তাঁকে তাঁর ইচ্ছামত স্থানে বহন করে নিয়ে যেত। তিনি সদলবলে বায়ুর মাধ্যমে নিজ সিংহাসনে সওয়ার হয়ে দুমাসের পথ একদিনে পৌঁছে যেতেন।

যেমন আল্লাহ তাআলা বলেনঃ এবং সুলাইমানের বশীভূত করে দিয়েছিলাম প্রচণ্ড বায়ুকে, সে বায়ু তার আদেশক্রমে প্রবাহিত হত সে দেশের দিকে যেখানে আমি কল্যাণ রেখেছি, প্রত্যেক বিষয় সম্পর্কে আমি সম্যক অবগত। (সূরা আম্বিয়া ২১:৮১)

তামার ন্যায় শক্ত পদার্থকে আল্লাহ তাআলা সুলাইমান (আঃ)-এর জন্য তরল ধাতুতে পরিণত করেছিলেন।

জিন জাতিকে তাঁর অনুগত করে দিয়েছিলেন। ফলে তিনি যখন কোন কাজের ইচ্ছা করতেন তখন সে কাজ তাঁর সামনে তাদের দ্বারা করিয়ে নিতেন। তারা সুলাইমান (আঃ)-এর ইচ্ছানুযায়ী প্রাসাদ, মূর্তি অর্থাৎ কাঁচের, তামার ইত্যাদির প্রতিচ্ছবি, বড় বড় পাত্র, ডেগ ইত্যাদি নির্মাণ করত এবং সাগরে ডুব দিয়ে তলদেশ থেকে মূল্যবান মণি-মুক্তা, হীরা তুলে আনত।

অন্যত্র আল্লাহ তাআলা বলেনঃ এবং শয়তানদের মধ্যে কতক সুলাইমানের জন্য ডুবুরীর কাজ করত, তা ব্যতীত অন্য কাজও করত, আমি তাদের রক্ষাকারী ছিলাম। (সূরা আম্বিয়া ২১:৮২)

আল্লাহ তাআলা আরো বলেন: এবং অধীন করেছিলাম শয়তানদেরকেও, যারা ছিল ইমারত নির্মাণকারী ও ডুবুরী। এবং আরও অনেককে, যারা শৃঙ্খলে আবদ্ধ থাকত। (সূরা সোয়াদঃ ৩৭-৩৮)
1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (268 পয়েন্ট)
হ্যা সম্ভব তবে আপনাকে ইহকাল এবং পরকাল দুটোর মধ্যে একটা বেছে নিতে হবে। তাই এটা না করাই ভালো কারন ভালোর চেয়ে ক্ষতিই বেশি হবে। 
করেছেন (4 পয়েন্ট)
কিন্তু ক্ষতি কেন হবে? আমিতো কোনো ক্ষতি করবো না। শুধু কিছুক্ষণের জন্য কথা বলতে চেয়েছি। 
1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (502 পয়েন্ট)
ভাইয়া এই কাজটা করা সম্ভব ।মানুষের পক্ষে জিন বস করা সম্ভব।তবে এগুলো শয়তানি কাজ।এগুলো বসে আনলে আল্লাহর সাথে নাফরমানি করা হয়।ধরুন, আল্লাহ আপনাকে যতটুকু ক্ষমতা দিয়েছে, তাতে আপনি সন্তুষ্ট নন।আপনি আল্লাহ তালার উপর মাতাব্বরি করে একটি ক্ষমতা পেতে যাচ্ছেন।এটা তো অবশ্যই কঠিন গুনাহের কাজ।আর নাফরমান কারিদের স্থান অবশ্যই জাহান্নামে।যানা গেছে যারা জিন বসে আনে,সে কম ক্ষতিগ্রস্থ হলেও তার পরিবার পরিবারের সদস্যরা নানা ভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে,তাই ভাইয়া এই নাফরমান কাজ গুলো করা থেকে অবশ্য অবশ্যই বিরত থাকবেন ।
1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (3,782 পয়েন্ট)
হ্যাঁ, জিন বশে আনা সম্ভব। যারা অভিজ্ঞ এবং আল্লাহওয়ালা তারা এগুলো করতে পারেন এবং ভালো কাজে তাদেরকে ব্যবহার করেন। মানুষের উপর যখন শয়তান জিন ভর করে তখন তারা ভালো জিনদের মাধ্যমে সেসব খারাপ জিনদেরকে শায়েস্তা করার ব্যবস্থা করেন। এগুলো মানুষের উপকারের জন্য করা জায়েয আছে; বরং ভালো।
টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

283,269 টি প্রশ্ন

367,719 টি উত্তর

110,791 টি মন্তব্য

152,832 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...