বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
449 জন দেখেছেন
"যৌন" বিভাগে করেছেন (11 পয়েন্ট)
করেছেন (7,586 পয়েন্ট)
প্রশ্নটি আরেকটু ক্লিয়ার করে বলুন!

1 উত্তর

+2 টি পছন্দ
করেছেন (4,429 পয়েন্ট)
অজাচার শব্দের অর্থ হচ্ছে অতি খারাপ আচরণ বা জঘন‍্য খারাপ কাজ। স্বামী-স্ত্রী ব‍্যতীত অতি নিকট আত্মীয়ের মধ‍্যে যৌনসঙ্গম করাকে অজাচার বা Incest বলে (সূত্রঃ বাংলা ইংরেজি ডিকশনারী)। ইসলামে শুধুমাত্র স্বামী-স্ত্রীর মধ‍্যে যৌনসঙ্গম বৈধ বা জায়েজ। ব‍্যভিচার, অজাচার, পরকীয়া, ধর্ষণ অবৈধ বা নাজায়েজ। স্বামী-স্ত্রী ব‍্যতীত পৃথিবীর যেকোনো পুরুষ বা মহিলার সাথে যিনা করাকে ব‍্যভিচার বা পরকীয়া বলে। অতি নিকট আত্মীয় যেমনঃ মা, বোন, ফুফু, খালা, চাচী, মামী, শ্বাশুড়ি, বাবা, ভাই, ফুফা, খালু, চাচা, মামা বা শ্বশুড়ের সাথে যিনা করাকে অজাচার বা Incest বলে। কারো সাথে জোর করে যৌন সঙ্গম করাকে ধর্ষণ বলে। বর্তমানে পারিবারিক পর্ণ দেখে বা পারিবারিক চটি গল্প পড়ে অনেকেই অজাচারে লিপ্ত বা আগ্রহী হয়ে পড়েছে। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ আমাদেরকে অশ্লীলতার ধারে-কাছে যেতে নিষেধ করেছেন এবং নামাজ অশ্লীলতা থেকে বান্দাকে দূরে রাখে। কেউ যদি অজাচার করতে গিয়ে ব‍্যর্থ হয়ে থাকে, তাহলে তার অবশ্যই আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করা উচিত। কারণ, আল্লাহ তাকে জঘন‍্য হারাম কাজ থেকে বিরত রেখেছেন। কেউ যদি অজাচার করতে গিয়ে ফিরে আসে এবং তওবা করে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চায়, তাহলে আল্লাহ তাকে ক্ষমা করে দিবেন। কেউ যদি অজাচার করে ফেলে এবং পরবর্তীতে ভুল বুঝতে পেরে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চায় এবং আল্লাহর পথে সর্বদা নিজেকে নিয়োজিত রাখে এবং অজাচারের বিষয়টি কারো কাছে প্রকাশ না করে, তাহলে আল্লাহ তাকে ক্ষমা করে দিতে পারেন, এটা একান্তই আল্লাহর ইচ্ছা। কেউ যদি অজাচার করে ফেলে এবং তা সমাজের কাছে প্রকাশ পেয়ে যায়, তাহলে জনসম্মুখে তাদের উভয়কে পাথর মেরে হত‍্যা করতে হবে (ইসলামী আইন মোতাবেক)। আশা করি, আপনি আপনার কাঙ্ক্ষিত উত্তর পেয়ে গেছেন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

4 টি উত্তর
আমি জিনা করেছিলাম।আমি আল্লাহর কাছে মনে মনে অনুতপ্ত হয়েছি,ক্ষমা চেয়েছি কিন্তু নামাজ পরে তওবা করিনি।আমি তখন জানতাম না যে এরকম ব্যভিচার করলে পবিত্র কাউকে বিয়ে করা যায়না।আমি আমার স্বামীকে বিয়ের আগে জানিয়েছিলাম যে আমার আগে একজনের সাথে সম্পর্ক ছিল কিন্তু জিনার কথা লজ্জায় বলিনি।বিয়ের কিছুিদন পর সে সব জেনে যায়।এখন সে আমাকে খুব সন্দেহ করে।আমি জানি সেটা তার দোষ না।কিন্তু আমাদের সংসার প্রায় ভেঙ্গে যাওয়ার পথে।আমি ইস্তেগফারের নামাজ পরে আল্লাহর কাছে মাফ চেয়েছি।আমি আমার স্বামীকে অনেক ভালোবাসি।কিন্তু কিভাবে সব ঠিক হবে বুঝি না।আমার জন্য দোয়া করবেন যেন আল্লাহ আমাকে মাফ করেন।?
06 জানুয়ারি 2016 "ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন সিমিন (11 পয়েন্ট)

311,549 টি প্রশ্ন

401,164 টি উত্তর

123,145 টি মন্তব্য

172,720 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...