225 জন দেখেছেন
"স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা" বিভাগে করেছেন (227 পয়েন্ট)
বন্ধ করেছেন
এই চিরকূট সহকারে বন্ধ করা হয়েছে : যথেষ্ঠ উত্তর

5 উত্তর

5 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (4,405 পয়েন্ট)

কী খাবার খেলে মোটা হওয়া যায় :

মোটা হতে চাইলে প্রচুর পরিমানে শাকসবজি খাওয়া শুরু করুন। যদি উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা না থাকে তাহলে ফ্যাট জাতীয় খাবার খান একটু বেশি। চকলেট, মেয়নিজ মাখন, দুধ ডিম একটু বেশি করে খেতে হবে। এসব খাবারে থাকা ফ্যাট, ক্যালরি ওজন বৃদ্ধির জন্য খুবই জরুরী। তবে উচ্চ রক্তচাপ থাকলে এসব না খাওয়াই ভালো শরীরের জন্য। সেক্ষেত্রে হালকা এক্সারসাইজ করা উচিত যাতে চর্বি অধিক মাত্রায় শরীরে না জমে। এবার দেখে নিন কি খাবার খেলে মোটা হওয়া যায় স্বল্প সময়ে।

আম দুধ প্রতিদিন ১-২টি করে পাকা আম খান এবং এরপর এক গ্লাস কুসুম গরম দুধ খান। আবার দিনে ১ বা ২ গ্লাস আম আর দুধ মিলিয়ে শেক বানিয়েও খেতে পারেন। মাস খানেকের মাঝেই উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন চোখে পড়বে।

কিশমিশ ও ডুমুর কিশমিশ ও শুকনো ডুমুর ফল উচ্চ ক্যালরি সম্পন্ন। ৬টি শুকনো ডুমুর ফল এবং ৩০ গ্রাম কিশমিশ পানি বা দুধে সারারাত ভিজিয়ে রেখে সেই পানিসহ ফল গুলো দুইবারে খাবেন। ২০-৩০ দিনের মাঝে ভালো ফল পাবেন।

ঘি আর চিনির মিশ্রণ ১ টেবিল চামচ ঘি এবং ১ টেবিল চামচ চিনি মিশিয়ে প্রতিবেলা খাবার আধা ঘণ্টা আগে খালি পেটে খান। এক মাস খাবার পরেই লক্ষণীয় পরিবর্তন চোখে পড়বে।

পিনাট বাটার পিনাট বাটারে রয়েছে অনেক বেশি ক্যালরি। তাই এটাও হতে পারে মোটা হওয়ার সহজ উপায় হিসাবে চমৎকার। তাই প্রতিদিনের খাবার তালিকায় পিনাট বাটার রাখুন।

আলু প্রচুর শর্করা আছে আলুতে। তাই নিশ্চিত ভাবেই বলা যায় নিয়মিত আলু খেলে ওজন বাড়বেই। আলু তরকারিতে দিয়ে, ভাজি করে, গ্রীল করে বাটার মিশিয়ে বা ভালো মানের তেল দিয়ে ফ্রেঞ্চ ফ্রাই করে নিয়মিত খান।

বাদাম প্রতিদিন সকালে উঠে ৬ থেকে ৭ টা কাজুবাদাম ও কিসমিস খালি পেটে খান। এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হয় যদি আগের দিন রাতে এক গ্লাস পানিতে কাজু এবং কিসমিস ভিজিয়ে রেখে পরের দিন সকালে ঐ পানি খাওয়া যায়।

ফ্যান ভাত   ফ্যানভাত বা যাকে আমরা ভাতের মাড় বলি তা খাওয়া যেতে পারে। ফ্যানভাত সাহায্য করে মোটা হতে এবং ওজন বৃদ্ধি করতে। সাধারণত ভাতের ফ্যানে বেশির ভাগ পুষ্টি ও ফ্যাট থাকে যা মাড় ফেলে দেওয়ার সাথে সাথে বেরিয়ে যায়। এই ভাতের মাড় একমাস নিয়ম করে খেতে পারেন।

মধু চেষ্টা করুন রোজ রাতে ঘুমনোর আগে এক গ্লাস ঘন দুধে একচা চামচ মধু মিশিয়ে খেতে। ওজন বাড়ানোর এক মোক্ষম উপায় এটা। নিয়মিত রাতে খেলে ওজন বাড়তে বাধ্য।

সবজি এবং ফল প্রচুর শাক সবজি ও ফল খান। ভাবছেন এগুলো তো ওজন কমাবার জন্য খাওয়া হয়, তাই না? ওজন বাড়াতেও কিন্তু আপনাকে সাহায্য করবে এই ফল আর সবজি। এমন অনেক ফল আর সবজি আছে যারা কিনা উচ্চ ক্যালোরি যুক্ত। আম, কাঁঠাল, লিচু, কলা, পাকা পেঁপে, মিষ্টি কুমড়া, মিষ্টি আলু, কাঁচা কলা ইত্যাদি ফল ও সবজি খেলে ওজন বাড়বে।

বিশেষ খাবার আপনার নিয়মিত খাবারের পাশাপাশি অবশ্যই কিছু উচ্চ ক্যালোরি সম্পন্ন খাবার যোগ করতে হবে খাদ্য তালিকায়, নাহলে ওজন বাড়বে কেন? উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা না থাকলে এই খাবার গুলো খেতে পারেন অনায়াসে। যেমন- ঘি/ মাখন, ডিম, চিজ/ পনির, কোমল পানীয়, গরু-খাসির মাংস, আলু ভাজা, মিষ্টি জাতীয় খাবার, চকলেট, মেয়নিজ ইত্যাদি।

ঘন ঘন খান আপনি যদি ওজন বাড়াতে চান তাহলে দিনে ৫ থেকে ৭ বার পরিমিত পরিমাণে খাবার খান। অামরা সচরাচর ৩ বার খেয়ে থাকি। আপনি দিনে ৬ বার খান কিন্তু পরিমাণটি নির্দিষ্ট করে। এতে করে আপনার খেতে কোনো সমস্যা হবে না। কলা, আম ইত্যাদি ফল বেশি পরিমাণে খাবেন। পাশাপাশি অন্যান্য ক্যালরিযুক্ত খাবারও গ্রহণ করুন। মনে রাখবেন আপনি যত পরিমাণে জাঙ্ক ফুড খাবেন আপনার দেহ থেকে তার চেয়েও বেশি পরিমাণে প্রোটিন বেরিয়ে যাবে। তাই ভাজা বাদ দিয়ে বাদাম, পরিমিত মিষ্টি, ঘরে তৈরি নানান খাবার খান।

সঠিক নিয়মে খান আপনি খাবার খাচ্ছেন কিন্তু কোনো নিয়ম মেনে খাচ্ছেন না এতে করে আপনার কোনো কাজই হবে না। আপনার ওজন কোনোভাবেই বাড়বে না। আপনি যদি নিয়ম করে খাবার তালিকা তৈরি করে খেয়ে থাকেন তাহলে আপনার ওজন বাড়তে সহায়ক ভূমিকা রাখবে। দিনের একটি বড় তালিকা তৈরি করুন ও সেটি পালন করুন ঘড়ি ধরে। মোটামুটি ভাবে ৪ সপ্তাহের মধ্যে একটি ইতিবাচক ফলাফল পাবেন। ওজন বাড়ে সহায়ক খাবার গুলো রোজ খাবেন ও পর্যাপ্ত ঘুমাবেন।

তথ্যসূত্র : 

https://www.justhints.com/%E0%A6%95%E0%A6%BF-%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%96%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A7%87-%E0%A6%AE%E0%A7%8B%E0%A6%9F%E0%A6%BE-%E0%A6%B9%E0%A6%93%E0%A6%AF%E0%A6%BC%E0%A6%BE-%E0%A6%AF/

করেছেন (2,737 পয়েন্ট)
ওয়েবসাইটে যেভাবে খাবারের নামগুলোর মাঝে ২ লাইন ফাঁকা আছে সেইভাবে লিখলে আরও সুন্দর দেখাত ও পড়তেও সহজ হতো ।
করেছেন (4,405 পয়েন্ট)
ভাই! জাগারও তো একটু ব্যাপার স্যাপার আছে, তাই না?
করেছেন (2,737 পয়েন্ট)
জায়গাতো আর কম নেন নি ।
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (1,089 পয়েন্ট)
প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার যেমনঃ দুগ্ধজাত খাদ্য, ডিম, মাংস ইত্যাদি। ঠিক মতো ঘুমাতে হবে। যতদূর সম্ভব দুশ্চিন্তা মুক্ত থাকতে চেষ্টা করতে হবে।
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (2,385 পয়েন্ট)
মোটা হওয়ার জন্য খাবারের প্রতি যত্নশীল হোন। যদি নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খান এবং রাতের ঘুম ঠিক রাখেন তাহলে আপনি তাড়াতাড়ি আপনার স্বাস্থ্য মোটা করতে পারবেন। না ঘুমাতে পারলে আপনার শরীর ক্যালরী ধরে রাখতে পারে না। রাতে তাড়াতাড়ি খাওয়া শেষ করুন এবং তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে পড়ুন। একটা নিদিষ্ট সময় ধরে খাবেন। সকালে ঘুম থেকে উঠে এক ঘন্টার মধ্যে সকালের নাস্তা শেষ করুন। সকালে প্রচুর পরিমাণে খেয়ে নিতে পারেন। হ্যাম বার্গার, ভাজাখাবার, চিকেন ব্রেস্ট খেলেও ক্ষতি নেই। সফ্ট ড্রিংকস্ এবং ফ্যাটি খাবার খেলে স্বাস্থ্য মোটা হয়। এতে হাই-ইন্সুলিন থাকে। ইন্সুলিন হরমোন তৈরি করে। যার সাহায্যে শরীরে কার্বোহাইড্রেট,প্রোটিন এবং ফ্যাট জমে। যখন ফ্যাটি ফুডস্ খাবেন তখন পানি পানকরুন; সফ্ট ড্রিংকস্ নয়। এমনকি ডায়েট সফ্ট ড্রিংকস্ও নয়। এটা খেলে আপনি ফ্যাটি ফুড খেতে পারবেন না। ০এনার্জি ফুড খেলেও আপনি মোটা হবেন। শরীরে যদি এনার্জি ফুড না থাকে তাহলে শরীরে শক্তিই থাকে নামোটা হওয়া তো দূরের কথা। আপনি কখনো ব্যাটারিতে ল্যাপটপ কম্পিউটার চালাতে পারবেন না যদি প্লাগ না দেন। শরীরও তার ব্যতিক্রম নয়। ০টেনশনমুক্ত থাকুন। নিয়মিত ব্যায়াম করুন। ব্যায়াম করলে ক্ষুধা বেড়ে যায় টেনশন দূরে করে।০প্রচুর ফল খান। ফল পুষ্টিকর খাবার এতে প্রচুর ক্যালরি পাওয়া যায়। প্রতিদিন ফল এবং ফলের রস খান। ফলের তৈরি বিভিন্ন সিরাপ, গাম, জ্যাম, জ্যালি খান এতে ফ্যাট আছে যা আপনার স্বাস্থ্য মোটা করবে। এ্যালকোহল পান করলে শরীর মোটা হয়। এটা আপনার মাংশপেশীতে হরমোন তৈরি করে। আপনার শরীরে যখনঅতিরিক্ত ক্যালরির প্রয়োজন হয়দিনের শেষে সন্ধ্যার দিকে তখন এ্যালকোহল পান করুন। এ্যালকোহলেপ্রচুর ক্যালরি পাওয়া যায়। রাতে এ্যালকোহল পান করে তাড়াতাড়ি রাতের খাবার সেরে ঘুমিয়ে পড়ুন।০আপনি খুব দ্রুত মোটা হয়ে যাবেন। আপনি কল্পনাও করতে পারবেন না কিভাবে এত দ্রুত মোটা হওয়া সম্ভব।.
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (1,125 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন
আপনি দৈনিক ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা ঘুমান। প্রচুর পানি পান করুন। নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খান দুধ, ডিম, মাছ, মাংস ও শাক সবজি জাতীয় খাবার বেশি করে খান এবং ডা: পরামর্শ অনুযায়ী হামদার্দ এর সিনকারা সিরাপটি খেতে পারেন এতে আপনার খাওয়ার রুচি বাড়বে।
করেছেন (8,659 পয়েন্ট)
আবার বানানে ভুল।  
করেছেন (1,125 পয়েন্ট)
কোন বানানটি ভুল হইছে বললে সম্পাদনা করতে সুভিদা হতো?
করেছেন (8,659 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন
আপনি বাংলা ব্যাকরণ বই পড়ুন।

শাক, জাতীয়,ডাক্টার, হামদার্দ, 
করেছেন (2,737 পয়েন্ট)
[email protected] করু, সাক, জাতিয় এই ৩ টা বানান ও মন্তব্যে হইছে, সুভিদা এইগুলা ভুল । ভবিষ্যতে আর যেন ভুল না হয় । তাহলে অনুমোদন পাবে না ।
করেছেন (2,737 পয়েন্ট)
জামিয়ার রাহমান [email protected] আপনিও বানানের প্রতি খেয়াল রাখবেন । পরুন না । পড়ুন ।
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (12 পয়েন্ট)
শসা ও খেজুর মিশিয়ে খেলে মোটা যাবে। যেমনটি আয়েশা (রা) এর মা নবী সা: এর সাথে বিয়ের পর খাইয়ে তাকে মোটা করেছিলেন।
টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর

282,826 টি প্রশ্ন

367,103 টি উত্তর

110,524 টি মন্তব্য

152,512 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...