121 জন দেখেছেন
"ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে করেছেন (67 পয়েন্ট)
বন্ধ করেছেন

মসজিদ-মন্দিরে সম্প্রীতির বন্ধন লালমনিরহাটে

মসজিদ-মন্দিরে সম্প্রীতির বন্ধন লালমনিরহাটে

বন্ধ

3 উত্তর

0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (3,782 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর
ইসলাম ধর্মে এ ধরনের সম্প্রীতির বন্ধন সমর্থন করে না। কারণ মসজিদ হলো আল্লাহর ঘর। এখানে একনিষ্ঠভাবে নিভৃতে আল্লাহর তাআলারই ইবাদত করা হয়।

পক্ষান্তরে মন্দির সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উপাসনালয়। তাদের উপসনার সরঞ্জামাদির মধ্যে অন্যতম হলো বাদ্যযন্ত্র, গান-বাজনা ইত্যাদি।

এমতাবস্থায় যদি দুইটা বিপরীতমুখী ইবাদতখানা একই সাথে একই স্থানে নির্মাণ করা হয়, তাহলে দ্বিতীয় পক্ষের কোন সমস্যা না হলেও প্রথম পক্ষের ইবাদতে একনিষ্ঠতা সম্ভব নয়। এমনকি তাতে যদি প্রথম পক্ষ তথা মসজিদে ইবাদতকারীগণ তাদের কিছু বলতে যায়, তাহলে সেটা ধীরে ঝগড়ার দিকে মোড় নেয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। আবার এতে আল্লাহ তাআলার ঘরের পবিত্রতা রক্ষা হয় না, যেটা ইসলাম ধর্মের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ মসজিদের সামনে দিয়ে মূর্তি ইত্যাদি বহন করে নেয়াও তো মসজিদের সাথে বেয়াদবি করার নামান্তর।

অতএব এহেন পরিস্থিতিতে একই স্থানে এমনকি এতটুকু নিকটে যেখান থেকে মন্দিরের গীতাপাঠ বা বাদ্যের আওয়াজ মসজিদে পৌঁছে সেখানে মসজিদ ও মন্দির নির্মাণ করা বিলকুল ঠিক হয়নি।
করেছেন (2,552 পয়েন্ট)
ইসলামে অন্য ধর্মের ধর্ম পালনে বাধা দেয়া হয়নি। আপনি যা বললেন তা কিসের ভিক্তিতে? রেফারেন্স করুন।

মহানবী (সঃ) এক প্রতিবেশি পুজা করত,মদ খেত, শব্দ সৃষ্টি করত, কই শুনিনিতো যে নবী (সঃ) তাকে নিষেধ করেছেন বা অন্য কিছু? পাশা পাশি থাকা যাবে বা যাবেনা কোন বিষয়ে বলা হয়নি। কিন্তু বিধর্মীদের যে অধিকার দেয়া হয়েছে তা থেকে বোঝা যায় যে নিষিদ্ধ নয়।
5 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (4,405 পয়েন্ট)
না, থাকার অধিকার নেই। কারণ এতে মসজিদ তথা আল্লাহ তাআলার ঘরের সম্মান ও আজমত রক্ষা হয় না। বরং এটা উদারতার নামে সংগোপনে মানুষকে মন্দিরের দিকে আহ্বান করাার কুট কৌশল অথবা, অজ্ঞান ও মূর্খ্য লোকদের নেতৃত্ব লাভ ও তাদের ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান না থাকার বিষ ফল। মহান আল্লাহ এধরনের জ্ঞানহীনতা থেকে হিফাজত করুন। তাদেরকে সঠিক বুঝ দান করুন। আমীন।
করেছেন (2,552 পয়েন্ট)
অধিকার নাই কোথায় পেলেন? রেফারেন্স দিন।
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (5,663 পয়েন্ট)

হিন্দুরা যদি মুসলমানদের ইবাদতে বিঘ্ন সৃষ্টি না করে তাহলে মন্দির এবং মসজিদ পাশাপাশি থাকা অস্বাভাবিক কিছু নয়।


পবিত্র কুরআনে এসেছে, যে ব্যক্তি আল্লাহর মসজিদ সমুহে তাঁর নাম উচ্চারণ করতে বাধা দেয় এবং সেগুলোকে উজাড় করতে চেষ্টা করে, তার চাইতে বড় যালেম আর কে?

তারা জমিনে ফাসাদ করে বেড়ায় , কিন্তু আল্লাহ তাআলা ফাসাদ সৃষ্টিকারীদেরকে পছন্দ  করেন না। (সূরা আল-মায়িদাহঃ ৬৪)

এজন্য আল্লাহ তাআলা জিহাদ এবং কেতালের মাধ্যমে এসব লোকের সৃষ্ট যাবতীয় অনাচার দূর করতে নির্দেশ দিয়েছেন।
টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
26 জানুয়ারি 2014 "যাকাত" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Rafia Begum (1,096 পয়েন্ট)

282,826 টি প্রশ্ন

367,103 টি উত্তর

110,524 টি মন্তব্য

152,512 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...