163 জন দেখেছেন
"ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে করেছেন (5 পয়েন্ট)
বিভাগ পূনঃনির্ধারিত করেছেন

4 উত্তর

3 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (4,426 পয়েন্ট)

ইসলমী শরীয়ত মতে ট্যাটু করা জায়েয নয়। কারণ হাদীসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ ধরনের কাজে জড়িত ব্যক্তিদের প্রতি মহান আল্লাহ তাআলা অভিসম্পাত করেন এমন সংবাদ প্রদান করে বলেন, মহান আল্লাহ উল্কি অংকনকারীনি ও অংকনকৃত মহিলার প্রতি অভিসম্পাত করেছেন। -সহীহ মুসলিম : হা. ২১২৫, সহীহ বুখারী : হা. ৪৮৮৬।

 

عن عبدالله قال : لعن الله الواشمات والمستوشمات... (الصحيح لمسلم و الصحيح للبخاري  (

 

করেছেন (2,737 পয়েন্ট)
এইখানে শুধু নারীর কথা বলা আছে । প্রশ্নকর্তা পুরুষ । সঠিক রেফারেন্স দিন ।
করেছেন (4,426 পয়েন্ট)

ভাই! এই নিন রেফারেন্স ( যে হাদীসগুলোতে পুরুষ-মহিলার কোন পার্থক্য করা হয় নি।  বরং সাধারণভাবেই উল্কিকে হারাম ও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে) আশাকরি আপনার উপকার হবে -

১.

عن عياش بن عباس القتباني عن أبي الحصين الهيثم بن شفي وقال أبو الأسود شفي إنه سمعه يقول خرجت أنا وصاحب لي يسمى أبا عامر رجل من المعافر لنصلي بإيلياء وكان قاصهم رجلا من الأزد يقال له أبو ريحانة من الصحابة قال أبو الحصين فسبقني صاحبي إلى المسجد ثم أدركته فجلست إلى جنبه فقال هل أدركت قصص أبي ريحانة فقلت لا فقال سمعته يقول نهى رسول الله صلى الله عليه وسلم عن عشر عن الوشر والوشم والنتف وعن مكامعة الرجل الرجل بغير شعار وعن مكامعة المرأة المرأة بغير شعار وأن يجعل الرجل أسفل ثيابه حريرا مثل الأعاجم أو يجعل على منكبيه حريرا أمثال الأعاجم وعن النهبى وعن ركوب النمور ولبوس الخواتيم إلا لذي سلطان.                                            سنن النسائي الصغرى - 5106

.

عن أبي الحصين الحميري أنه كان هو وصاحب له يلزمان أبا ريحانة يتعلمان منه خيرا قال فحضر صاحبي يوما فأخبرني صاحبي أنه سمع أبا ريحانة يقول : إن رسول الله صلى الله عليه وسلم حرم الوشر والوشم والنتف.

سنن النسائي الصغرى - 5125   

আরো দেখুন, সুনানে নাসাঈ (সুগরা); হাদীস নং ৫১২৬, ৫১২৭।  এছাড়া সুনানে নাসাঈ কুবরাতেও উক্ত হাদীস রয়েছে।  তাছাড়া মুসনাদে আহমাদ; হাদীস নং ১৭২০৮, ১৭২০৯, ১৭২১৪ ইত্যাদি।


হাদীসটির সরল অনুবাদ:
হযরত আবূ রায়হানা রাঃ বলেন, নিশ্চয় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দাঁতকে চিকন করতে উল্কি আঁকতে এবং চুল উপড়ে ফেলাকে হারাম করেছেন। 

 


1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (4,409 পয়েন্ট)

১. ইবনে ওমর রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ﻟَﻌَﻦَ ﺭَﺳُﻮﻝ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺻَﻠَّﻰ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﻭَﺳَﻠَّﻢَ ﺍﻟْﻮَﺍﺻِﻠَﺔَ ﻭَﺍﻟْﻤُﺴْﺘَﻮْﺹِﻟَﺔَ ﻭَﺍﻟْﻮَﺍﺷِﻤَﺔَ ﻭَﺍﻟْﻤُﺴْﺘَﻮْﺵِﻣَﺔَ যেসব মহিলা নকল চুল ব্যবহার করে এবং যারা অন্য মহিলাকে নকল চুল এনে দেয়, যেসব মহিলা উল্কি অঙ্কন করে এবং যাদের জন্য করে, রাসূল স. তাদের অভিশাপ দিয়েছেন। (বুখারী : ৫৫৯৮, মুসলিম : ৫৬৯৩) 


 ২. ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ﻟﻌﻦ ﺍﻟﻠﻪ ﺍﻟﻮﺍﺷﻤﺎﺕ ﻭﺍﻟﻤﺴﺘﻮﺷﻤﺎﺕ ﻭﺍﻟﻤﺘﻨﻤﺼﺎﺕ ﻭﺍﻟﻤﺘﻔﻠﺠﺎﺕ ﻟﻠﺤﺴﻦ ﺍﻟﻤﻐﻴﺮﺍﺕ ﺧﻠﻖ ﺍﻟﻠﻪ যেসব মহিলা সৌন্দর্য্যের জন্য উল্কি অঙ্কন করে এবং যাদের জন্য করে, যেসব মহিলা ভ্রু উৎপাটন করে এবং দাঁত ফাঁকা করে, আল্লাহ তা’আলা তাদের অভিসম্পাত করেছেন। (বুখারী : ৫৬০৪) 

 [তাই ট্যাটু হারাম]
করেছেন (2,737 পয়েন্ট)
এই ২ টা হাদীসেই নারীর কথা বলা আছে । এমন কোন রেফারেন্স দিতে পারবেন যেখানে নারী-পুরুষ উভয়ের কথা বলা আছে ? প্রশ্নকর্তা কিন্তু পুরুষ । আর ইসলামে নারী ও পুরুষের জন্য সকল ক্ষেত্রে বিধান এক না ।
1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (5,666 পয়েন্ট)
ইসলামে ট্যাটু করা যায়েজ নয়।

যে নিজেকে সুন্দর করার অভিলাষে আল্লাহর সৃষ্ট আকৃতির পরিবর্তন ঘটায় তাদেরকে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম লানত করেছেন।

আবূ জুহাইফাহ হতে বর্ণিত যে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রক্তের মূল্য, কুকুরের মূল্য ও যিনাকারীর উপার্জন গ্রহণ করতে নিষেধ করেছেন। আর তিনি সুদ গ্রহীতা, সুদদাতা, অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে উল্কি অঙ্কণকারী আর যে তা করায় এবং ছবি নির্মাতাকে অভিশাপ করেছেন। (সহীহ বুখারী হাদিস নম্বরঃ ৫৯৬২)

আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, সৌন্দর্যের জন্যে উল্কি অঙ্কণকারী ও উল্কি গ্রহণকারী, ভ্রূ উত্তোলনকারী নারী এবং দাঁত সরু করে মাঝে ফাঁক সৃষ্টিকারী নারী, যা আল্লাহর সৃষ্টিকে বদলে দেয়, তাদের উপর আল্লাহর অভিশাপ বর্ষিত হোক। রাবী বলেন আমি কেন তাকে অভিশাপ করব না, যাকে আল্লাহর রাসূল অভিশাপ করেছেন এবং তা আল্লাহর কিতাবে বিদ্যমান রয়েছে। (সহীহ বুখারী, হাদিস নম্বরঃ ৫৯৪৩)
করেছেন (2,737 পয়েন্ট)
এই হাদীসে নারীদের কথা বলা আছে । পুরুষের কথা বলা নেই । প্রশ্নকর্তা পুরুষ ।
করেছেন (5,666 পয়েন্ট)
আর তোমরা সালাত কায়েম কর, যাকাত দাও ও রাসূলের আনুগত্য কর, যাতে তোমাদের উপর রহমত করা যায়। (নুরঃ ৫৬)

এই আয়াতে মুজাক্কার বা মুয়ান্নাস বলেতো কোন শব্দ পাইনা। তাহলে কারা সালাত কায়েম করবে?
করেছেন (2,737 পয়েন্ট)
Sabisul [email protected] এটাই বলতে চাচ্ছি । এই আয়াত সকলের উদ্দেশ্যে । কিন্তু আপনার বর্ণিত হাদীস কেবল নারীদের উদ্দেশ্যে । হাদীসেই ব্যপারটা স্পষ্ট । আর অযথা উদাহরণ দিয়ে কথা ঘুরাবেন না । স্পষ্টভাবে নারীদের কথা বলা আছে । এখানে বিতর্কের কারণ দেখছি না ।
করেছেন (5,666 পয়েন্ট)
এখানে কোথাও কি নারীর কথা উল্লেখ আছে? আবূ জুহাইফাহ হতে বর্ণিত যে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রক্তের মূল্য, কুকুরের মূল্য ও যিনাকারীর উপার্জন গ্রহণ করতে নিষেধ করেছেন। আর তিনি সুদ গ্রহীতা, সুদদাতা, অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে উল্কি অঙ্কণকারী আর যে তা করায় এবং ছবি নির্মাতাকে অভিশাপ করেছেন। (সহীহ বুখারী হাদিস নম্বরঃ ৫৯৬২)
করেছেন (2,737 পয়েন্ট)
এই হাদীসটা ঠিক আছে । আগে দিলেই পারতেন ।
0 পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন (252 পয়েন্ট)
না,ইসলামে ট্যাটু করা যায়েজ না।অর্থাৎ আপনি যা,ই আকেন তা পশু হোক বা অন্য কিছু হোক তা জায়েজ না!!!!
টি উত্তর
২১ জানুয়ারি ২০১৯ "ক্যারিয়ার" বিভাগে উত্তর দিয়েছেন Ariful (৬৩৭৩ পয়েন্ট )
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
07 জানুয়ারি 2014 "ইসলাম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন ফাইজুল হাসান (133 পয়েন্ট)

282,929 টি প্রশ্ন

367,225 টি উত্তর

110,581 টি মন্তব্য

152,581 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...