35 জন দেখেছেন
"ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন (106 পয়েন্ট)

2 উত্তর

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন (3,704 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

মেসওয়াকের কতিপয় উপকারিতা নিম্নরূপ-

১. মিসওয়াক করা সুন্নত। যার ফযীলত উপমাহীন।
২. মিসওয়াক করলে দাঁত পরিষ্কার হয়।
৩. মুখের দুর্গন্ধ দূর হয়।
৪. দাঁতের গোড়া বা মাঢ়ি শক্ত হয়।
৫. হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়।
৬. মুখ পবিত্র থাকে।
৭. দন্তরোগ হয় না।
৮. মুখ হতে সুঘ্রাণ বের হয়।
৯. দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধি পায়।
১০. কফ দূর হয়।
১১. কুরআন শরীফ তাজবীদানুযায়ী শুদ্ধভাবে পড়ার ক্ষমতা তৈরি হয়।
১২. শয়তান নারাজ হয় এবং দূরে সরে থাকে।
১৩. পিত্তরোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।
১৪. শির রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।
১৫. ইন্তিকালের সময় কষ্ট থেকে মুক্তি লাভ হয়।
১৬. ১ রাকায়াতে ৭০ রাকায়াত নামাযের ফযীলত লাভ হয়।
১৭. বার্ধক্যজনীত দুর্বলতা থেকে মুক্তি লাভ হয়।
১৮. যাবতীয় রোগ হতে মুক্তি লাভ হয়, মৃত্যুরোগ ব্যতীত।
১৯. মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি মিলে।
২০. পুলছিরাত পাড়ি দেয়া সহজ হবে।
২১. হযরত ফেরেশতা আলাইহিমুস সালামগণ উনারা সন্তুষ্ট থাকেন ও দোয়া করেন।
২২. হযরত ফেরেশতা আলাইহিমুস সালামগণ উনারা মুছাফাহা করেন।
২৩. কণ্ঠস্বর সুস্পষ্ট হয়।
২৪. মিথ্যা কথা, গীবত, চোগলখোরী, মুনাফিক্বী, তোহমত, হারাম খাওয়া, অপ্রয়োজনীয় কথা বলা ইত্যাদি হারাম কাজ করতে কষ্টবোধ হয়।
২৫. ইন্তিকালের সময় কালিমা শরীফ ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহম্মদুর রসূলুল্লাহ’ পাঠ নসীব হয়। (ফাতাওয়া শামী, হাশিয়াতুত তাহত্ববী, খাদিমী ৪র্থ খণ্ড)

তথ্যসূত্র : http://www.old.al-ihsan.net/fulltext.aspx?subid=1&textid=3377

1 টি পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
উত্তর প্রদান করেছেন (817 পয়েন্ট)
মেসওয়াক মৃত্যু ব্যাতিত সব

রোগের শিফা।

মৃত্যুর সময় কালেমা স্বরণ

করিয়ে দেয়।

* বার্ধক্য বিলম্বিত করে !

* দৃষ্টি শক্তি প্রখর করে !

* মুখ পরিচ্ছন্ন রাখে !

* আল্লাহ্'র কাছে পছন্দনীয় হয় !

* ফেরেশতাদের উৎফুল্লকারী হয় !

* পাকস্তলি মজবুত করে !

* শয়তানকে রাগান্বিত করে !

* কফ দূর করে !

* মাথার শিরা স্থির রাখে ! রুহ

বের হওয়া সহজ করে !

* ক্ষয় রোধ করে !

নাহর নামক

গ্রন্থে আছে মেসওয়াকের

উপকারিতা ত্রিশের উর্দ্ধে যার

মধ্যে সর্ব নিম্ন

উপকারিতা হলো মুখের দুর্গন্ধ দূর

করে আর সব থেকে বড়

উপকারিতা হলো (নিয়মিত)

মেসওয়াক করা মৃত্যুর সময়

কালিমা স্মরণ করায় দেয়।

(শামী-১:১১৫, গুনতুল মুস্তামলী-৩৩,

মারাকিল ফালাহ-৩৬, আল ফিকহুল

ইসলামী ১:৪৫৮)।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
16 ডিসেম্বর "খাদ্য ও পানীয়" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Badshah Niazul (106 পয়েন্ট)
2 টি উত্তর
16 ডিসেম্বর "বিজ্ঞান ও প্রকৌশল" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Badshah Niazul (106 পয়েন্ট)
1 উত্তর
11 অক্টোবর "ধর্ম ও আধ্যাত্মিক বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Badshah Niazul (106 পয়েন্ট)

271,059 টি প্রশ্ন

354,211 টি উত্তর

105,118 টি মন্তব্য

143,823 জন নিবন্ধিত সদস্য



বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
* বিস্ময়ে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন বা উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তর কোনভাবেই বিস্ময় এর মতামত নয়।
...