বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
114 জন দেখেছেন
14 সেপ্টেম্বর 2018 "নিত্য ঝুট ঝামেলা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল

আমার একটা মান সম্মত রুটিন প্রয়োজন।

যে কারণে আপনাদের পরামর্শ আশা করছি।


আমার বিষয়ঃ

  • নার্সিং বই।
  • সাধারণ বিজ্ঞান বই ক্লাস ৯/১০
  • বিসিএস এর বই।
  • বাংলা ২য় পত্র ক্লাস ৯/১০.

আমার পরীক্ষার মান বণ্টনঃ
ছবি তে দেখে নিবেন দয়া করে।

আমার ফ্রি টাইমঃ
আমি প্রায় সব সময় ফ্রি থাকি।
শুধু মাত্র দুফুর ১২ টা থেকে দুফুর
২.৩০ মি. পর্যন্ত একটু ব্যাস্ত থাকি।

আপনাদের সকল এর পরামর্শ আশা করছি
রুটিন টা ঠিক কি ভাবে বানালে আমি অধিক
সময় লেখা করা করতে পারবো

বিঃদ্রঃ পরীক্ষাতে আমাকে ৯০% মার্ক পেতে হবে
তবেই আমি চান্স পাবো।

এখন ৯০% মার্ক পেতে হলে আমাকে কি ভাবে
পড়তে হবে.....!??

একটা মান সম্মত রুটিন আশা করছি  আপনাদের
থেকে।image
14 সেপ্টেম্বর 2018 মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (5,308 পয়েন্ট)
ইংরেজির জন্য কোনো বই পড়বেন না?
14 সেপ্টেম্বর 2018 মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন প্রশ্নকর্তা
বিসিএস এর বই টা

আর যে নার্সিং এর বই

টা পড়ছি।

আশা করছি এই ২ টা বই

পড়লেই কমন পাবো।
14 সেপ্টেম্বর 2018 মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (3,720 পয়েন্ট)
যেটাই পড়েন একটু ভাল করে পড়বেন।

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
14 সেপ্টেম্বর 2018 উত্তর প্রদান করেছেন (3,720 পয়েন্ট)
14 সেপ্টেম্বর 2018 নির্বাচিত করেছেন
 
সর্বোত্তম উত্তর

অন্যরা বা আপনি হয়ত টাইমিং রুটিন প্রত্যাশা করতেছেন, কিন্তু আমি টাইমিং রুটিন নিজেও পছন্দ করি না, তাই আপনাকেও সেই পরামর্শ দিব না। কারণ টাইমিং রুটিন মেইন্টেন করে চলাটা বেশ কঠিন কাজ। অনেক সময় দেখা যাচ্ছে সময় শেষ কিন্তু আপনার পড়া এখনো কিছুই হয় নি।  তারপরে আবার জরুরি ব্যস্ততা থাকলে পড়া মিস। আমি ট্রাই করব ভিন্ন একটা রুটিনের মডেল সাজেশন করার। যা আমি নিজেই ফিট করেছি।

-----------

★ প্রথমে আপনি হিসেব করে নিন আপনার কয়টা সাব্জেক্ট। আর এই সাব্জেক্টগুলো সর্বোচ্চ কত দিনে শেষ করতে পারবেন। 

★এটা যখন হয়ে গেল এবার একটা ক্যালকুলেশন করে নিন।  আপনি যত দিনে বইটা শেষ করতে পারবেন মনে হয় ঠিক তত সংখ্যা দিয়ে আপনার প্রত্যেকটি বইয়ের মোট পৃষ্ঠাকে ভাগ করে দিবেন। ভাগফলে যেটা আসবে সেটাই হবে আপনার দৈনন্দিন পড়ার সিলেবাস বা রুটিন। 

 *ধরেন আপনি ত্রিশ দিনে বই শেষ করতে পারবেন বলে মনে হয়, তখন আপনার বইয়ের মোট পেজকে ত্রিশ দিয়ে ভাগ না করে ২৫ দিয়ে ভাগ করবেন। ৫ দিন গ্যাপ। একমাসে শুধুমাত্র ৫ দিন স্টাডি ফাঁকা দিতে পারেন। কারণ আমরা দৈনন্দিন জিবনে নানা রকম ঝামেলায় পড়তেও পারি। যার কারণে সেদিন আপনার স্টাডি গ্যাপ থাকতে পারে। এতে কোনো সমস্যা নাই।

মনে করেন আপনার বইয়ের পেজের সংখ্যা যথাক্রমে ১০০, ১৩০, ৭০, ১১০। এ সমস্ত পেজের সংখ্যাকে ২৫ দিয়ে ভাগ করলে  দেখা যায় প্রত্যেকেটা বইয়ে ৪-৫ পৃষ্ঠা করে ভাগে পড়ে। মানে আপনার এগুলই ডেইলি পড়া।


এই রুটিনকে টাইমিং রুটিনের চাইতে বেশি সাপোর্ট করি এর কারণ হল এই রুটিনে সুবিধা পাওয়া যায় বেশি।  কারণ ♠টাইমিং রুটিনে সারাদিনে যে সময়টা আপনি বেঁধে দিবেন সেই সময়ে পড়তে হবে। টাইম মিস হলে সেই সাব্জেক্টা আর পড়া হবে না। কিন্তু এই রুটিনে এমনটা হওয়ার কোনো সুযোগ নাই। আপনি দিনের বেলা হোক আর রাতের বেলা হোক যখনই টাইম পাবেন তখনই বইটা নিয়ে পড়তে বসবেন,  আপনার ভাগে যে পেজগুলো পড়েছে সেটা মেকাপ করার চেষ্টা করবেন। এতে দেখা যাবে রাত জেগে পড়ার ভয়ে দিনের বেলায়ই আপনি পড়াটা অনেকটা এগিয়ে নিয়েছেন।  যার কারণে বেশিক্ষণ রাত জেগে থাকতে হবে না।

♠টাইমিং রুটিনে কোনো প্রকার ছুটি নাই, মানে প্রত্যেক দিনই পড়তে হবে। যার কারণে বিভিন্ন ঝামেলায় পরলে তখন যদি মিস হয় তাহলে অনেকটা পড়া পিছিয়ে যায়।  আমার দেওয়া রুটিনটাতে এমনটা মোটেও হবে না। কারণ সেখানে মাসে ৫ দিন গ্যাপ রাখা হয়েছে। মাঝে মাঝে ঝামেলায় পরলে স্টাডি ওইদিনের জন্য ফাঁকা রাখলেও কোনো প্রব্লেম হবে না। শুধু খেয়াল রাখবেন মাসে যাতে ৫ দিনের বেশি ফাঁকা না থাকে। 

♠টাইমিং রুটিনে আপনার বইগুলো নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শেষ হতেও পারে নাও হতে পারে। কিন্তু আমার দেওয়া রুটিনে এমনটা হওয়ার কোনো সন্দেহ নাই। ১ মাসে আপনার বই শেষ হবেই সেই সাথে ৫ দিন ছুটি তো থাকছেই। 

♠দিনের বেলায় যখনই সময় পাবেন তখনই পড়াটা এগিয়ে নিলে আমার রুটিন অনুযায়ী পড়ার চাপটা অনেকাংশে কমে যাবে যার কারণে রাতে আর বেশি পড়তে হবে না।  রাতের বেলায় আপনি অনলাইন, খবর, টিভি ইত্যাদির সাথে জড়িত হওয়ারও সুযোগ পাবেন। টাইমিং রুটিনে এর কোনো চান্স নাই।


সর্বোপরি বলি আপনি টাইমিং রুটিন বাদ দিয়ে আমার সিস্টেমে রুটিনটা করে নিতে পারেন। আনন্দে আনন্দে পড়বেন, বই শেষ হওয়ার ব্যাপারে কোনো টেনশন নাই। কারণ হিসেব অনুযায়ী একক মাসে বই শেষ হবেই।  দিনে কোন বই কত পেজ পড়তে হবে তা অই বইয়ের কোথাও লিখে রাখতে পারেন। তাই বলে আপনি শুধু পৃষ্ঠা গুলো পার করে দিবেন তা কিন্তু হবে না। যেটা পড়বেন একেবারে ভালকরে পড়বেন। বইয়ের গোড়া থেকে শুরু করবেন।  কত পেজ থেকে কত পেজ পড়লেন তা চিহ্নিত করে রাখবেন। ইনশাল্লাহ! !! কাজে আসতে উপকারে আসতে বাধ্য। 


 বিঃদ্রঃ যেহেতু এটা একটা ভিন্ন টাইপের রুটিন তাই কোথাও অস্পষ্ট থাকাটা অস্বাভাবিক না। এমন কিছু অস্পষ্টতা থেকে থাকলে মন্তব্য করবেন। সলভ করার চেষ্টা করব।

14 সেপ্টেম্বর 2018 মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (9,163 পয়েন্ট)
আমি যে রুটিন টা ফলো করি সেটা 

এই রকমি।

তবে ব্যাপার হচ্ছে মনোযোগ হারিয়ে 

যায়। এটাই মূল সমস্যা আমার।
14 সেপ্টেম্বর 2018 মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (3,720 পয়েন্ট)
জ্বি,,এইরকম প্রব্লেম প্রায় সবার ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে। তাই আপনি একটা প্রশ্ন ছুঁড়ে মারেন বিস্ময়ে, সময় পেলে সাজেশন করব ইনশাআল্লাহ!!! তাহলে প্রত্যেকের উপকারে আসবে।
14 সেপ্টেম্বর 2018 মন্তব্য করা হয়েছে করেছেন (9,163 পয়েন্ট)
প্রশ্ন করেছিলাম যথাযথ পরামর্শ পাই নাই।
টি উত্তর

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি উত্তর
28 ডিসেম্বর 2018 "স্বপ্নের ব্যাখ্যা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Imran Kalomder (446 পয়েন্ট)
1 উত্তর
09 ফেব্রুয়ারি 2017 "ইন্টারনেট" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তুহিন মিয়া (538 পয়েন্ট)

305,275 টি প্রশ্ন

394,040 টি উত্তর

120,019 টি মন্তব্য

169,213 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...