বিস্ময় অ্যানসারস এ আপনাকে সুস্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং বিস্ময় পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন...
231 জন দেখেছেন
"মনোবিজ্ঞান" বিভাগে করেছেন (5,691 পয়েন্ট)

আমার জীবনেরই কিছু ঘটনা। যার ব্যাখ্যা পাই নি। 

  1. জীবনের প্রথম ক্যামেরা কেনার দুইদিনের মাথায় একজন তা পানিতে ফেলে দিল। নষ্ট হয়ে গেল। 
  2. প্রথম ডিপ ফ্রিজ কেনার পর কুরবানির ঈদে রাখা সব মাংস সহ ফ্রিজটি নষ্ট হয়ে গেল। 
  3. প্রথম ওভেন কেনার ৭ দিনের মাথায় ভেতরে আগুণ লেগে গেল। নষ্ট হয়ে গেল।
  4. প্রথম ওয়াশিং মেশিন কেনার ৩য় দিন সেটার নিচ থেকে পানি বের হতে লাগল। নষ্ট হয়ে গেল। 
  5. প্রথম এসি কেনার ১০ দিনের মাথায় তার কমপ্রেশর নষ্ট হয়ে গেল। 
  6. প্রথম গাড়ি কেনার ষষ্ঠ দিনের মাথায় অ্যাক্সিডেন্টে গাড়ি গুড়িয়ে গেল। নষ্ট হয়ে গেল। 
আল্লাহ আমাদের যে সচ্ছলতা দিয়েছেন তা নিয়ে কোনো অহংকার করি নি। যাকাত-ফিতরা কখনো কম দেওয়া হয় নি। অবৈধ একটি টাকাও আজ পর্যন্ত ঘরে আসে নি। মানুষের কাছে প্রতিটি জিনিস কিনেই দোয়া চেয়েছি। তারপরও জীবনের প্রথম জিনিস কখনো টেকে নি। 
সর্বশেষ গাড়িটি ছিল আমার জীবনের সবচেয়ে বড় চাওয়া। সচ্ছলতার তুলনাহ চাহিদা আমার ছিল সামান্য। গল্পের বই, ক্যামেরা, ইন্টারনেট, রুবিক্স কিউব, ইয়ো ইয়ো, মোবাইল আর হেডফোন। তাও হেডফোন, রুবিক্স কিউব, গল্পের বই, ইয়ো ইয়ো সবসময় নিজের জমানো টাকায় কিনেছি। বাকিগুলি বাবা-মায়ের দেওয়া। আর গাড়ি ছিল সেই ২-৩ বছর থেকে আমার একমাত্র চাওয়া যা পূরণ হতে না হতেই হারিয়েছি। 
কেন এমন হলো আমার সাথে? এই শোক আমি কীভাবে কাটাব? কীভাবে ফিরে আসব স্বাভাবিক জীবনে? আপনার কী পারবেন তার উত্তর দিতে?
করেছেন (8,271 পয়েন্ট)
আল্লাহ যাদেরকে সবচেয়ে বেশি ভালোবাসেন তাদেরকে তিনি বেশি বেশি পরীক্ষা করেন। আমি অবশ্যই তোমাদেরকে কিছু না কিছু দিয়ে পরীক্ষায় ফেলবোই। মাঝে মধ্যে তোমাদেরকে বিপদের আতঙ্ক, ক্ষুধার কষ্ট দিয়ে, সম্পদ, জীবন, পণ্য-ফল-ফসল হারানোর মধ্য দিয়ে। আর যারা কষ্টের মধ্যেও ধৈর্য-নিষ্ঠার সাথে চেষ্টা করে, তাদেরকে সুখবর দাও। [আল- বাক্বারাহ ১৫৫]
করেছেন (340 পয়েন্ট)
গাড়ি যদি গুড়িয়ে যেয়ে থাকে তাহলে যে ব্যক্তি গাড়ির ভিতর ছিল তার কি অবস্থা?
করেছেন (5,691 পয়েন্ট)
গাড়ি বামপাশই মূলত শেষ। সেখানে থাকা আমার নাকের হাড় সরে গিয়েছে। আর সাধারণ ধাক্কা, কাটা-কুটি আছেই। নানুর হাত আর পা ভেঙে গিয়েছে। ছোট একটা বোনের মাথায় প্রচুর কাচ গেঁথে গেছে। কেউ মারা যায় নি।
করেছেন (5,691 পয়েন্ট)
@Sabirul Islam, ধন্যবাদ সুন্দর ব্যাখার জন্য। কিন্তু এত কঠিন পরীক্ষা?? তাও আমার এত অল্প বয়সে? আমি কীভাবে সহ্য করব?
করেছেন (8,271 পয়েন্ট)
দিশা হারাবেন না। নিশ্চয়-ই আল্লাহ সবরকারীদের সঙ্গে রয়েছেন।
করেছেন (5,015 পয়েন্ট)
বিষয় গুলো সত্যিই কষ্টকর এবং মানতেও খুবই কষ্ট হবে । তারপরও মানতেই হবে । বাস্তবতা না মানলে কষ্ট বেড়েই যাবে ।

সাবিরুল ভাই এর উল্লেখিত আয়াতের ব্যাখ্যার সাথে আমিও তাল মিলিয়ে বলতে চাই ।

পৃথিবীতে যা কিছু ঘটে বা ঘটছে সব কিছুই সৃষ্টিকর্তা মহান আল্লাহর ইচ্ছেতেই । 

মহান আল্লাহ কাউকে অনেক বেশি কষ্টের মধ্যে দিয়ে নিয়ে পরীক্ষা করেন আবার কাউকে অনেক বেশি সুখী করেও পরীক্ষা করেন । মহান আল্লাহর দেয়া অগ্নী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারলেই আসে সুফল ।

দেখুন না, কিছু কিছু একসিডেন্ট অথবা বড় ধরনের কোন রোগের কারণে পরিবারের একমাত্র উপার্জন ক্ষম মানুষটি পৃথিবী থেকে চলে যাচ্ছে । সেই কঠিন বাস্তব টাও কিন্তু মেনে নিতেই হয় । এরকম অনেক খবর প্রতিদিনিই পাওয়া যায় । সম্প্রতিই দুটো এমন ঘটনা ঘটে গেছে যেমন, কক্সবাজার এর কমিশনার ইকরাম এর মৃত্যু এবং ঈদের এক দিন পরেই আমার এক পরিচিত মানুষ মারা যায় । তিনারও ছোট এক ছেলে ও মেয়ে আছে । তাদের পরিবারেরও কিন্তু মেনে নিতেই হবে । 

তাই হাজার কষ্ট হওয়া সত্বেও মেনে নেয়ার চেষ্টা করুন এবং সৃষ্টি কর্তার নিকট শুকরিয়া জ্ঞাপন করুন যে, তিনি আপনাদের জীবিত রেখেছেন আলহামদুলিল্লাহ । 

নামাজ আদায় করুন এবং মাহান আল্লাহর ফয়সালা মেনে নেন , ইনশাআল্লাহ সুধীন সামনেই ।
করেছেন (5,691 পয়েন্ট)
আমার সাথে কেন এমন হলো আবার এত বড় অ্যাক্সিডেন্টের পর আমি কীভাবে বেঁচে আছি সেটাই বুঝে পাই না। এত বিচিত্র পরিস্থিতির সম্মুখীন আমি জীবনে প্রথমই হলাম!

1 উত্তর

0 টি পছন্দ
করেছেন (1,528 পয়েন্ট)
সম্পাদিত করেছেন

ঘটনাসমূহ অত্যন্ত কাকতালীয় , জানি বিশ্বাস করতে কষ্ট হবে কিন্তু এইটাই সত্যি। একজন বিজ্ঞান বিভাগে অধ্যয়নরত ব্যাক্তি হিসেবে আমি যুক্তি সহকারে সবকয়টি ঘটনার বাস্তবিক ব্যাখ্যা দিচ্ছি।




  1. এটার উত্তর আপনিই দিয়েছেন। একজন মানুষ ক্যামেরাটি পানিতে ফেলে দিয়েছে। এটি অবাস্তবিক কোন ব্যাপার নয়।
  2. প্রতিটি ডিপ ফ্রিজের একটি লিমিট থাকে। যেমন আমার বাসার ফ্রিজে সেই লিমিট ১৫ কেজি। এখন আমি যদি ১৫ কেজি ৫০০ গ্রাম মাংস রাখি তাহলেও আমার ফ্রিজটি নষ্ট হতে পারে। এর কারণ ধারণ ক্ষমতার বাইরে যেকোনো যন্ত্র নষ্ট হতে পারে। ( উদাহরনঃ একটি টিভির ফিউজ ৫ অ্যাম্পিয়ার। কেউ টিভি টাকে একটি ১০ অ্যাম্পিয়ার সকেটে লাইন দিলেই টিভিটির ফিউজ কেটে যাবে এবং ব্র্যান্ড নিউ টিভিটি নষ্ট হবে।ইলেকট্রিক বা যান্ত্রিক জটিলতায় ও ইটা হতে পারে।)  
  3. অনেকেই ওভেন কিনে সঠিকভাবে ব্যাবহার করতে পারে না ফলে নষ্ট নয়ে যায়। ওভেনের বিভিন্ন মডেল থাকে। সকল ওভেন সব রকমের ম্যাটেরিয়াল সাপোর্ট করে না। আপনি হয়ত আপনার ওভেনে এমন কোনও বাটি রেখেছেন যা সেটি সাপোর্ট করে না। অথবা কারেন্ট এর শক খেয়েছিল ওভেনটি (আমি ২য় পয়েন্টে ব্যাখ্যা করেছি)  
  4. ইলেকট্রনিক ডিভাইস সমূহ অত্যন্ত সেন্সেটিভ জিনিস।আপনার ওয়াশিং মেশিনটি হয়তো বা আপনি ভালভাবে সেট করতে পারেন নি। আর যদি আপনার মেশিনটি আগে থেকেই সব কিছু সেট করা থাকে তাহলে আপনার বাসায় দোকান থেকে বস্তুটি যাবার পথে সমস্যা হয়েছে। এটি অত্যন্ত স্বাভাবিক ব্যাপার। রাস্তায় উঁচু-নিচু, বা সামান্য ধাক্কা খাওয়াতেই বাটির মুভমেন্ট হতে পারে ফলে পানি পরে যেতে পারে। এখন বলতে পারেন যদি ওয়াটার বোলের মুভমেন্ট এ এটা হয়েছে তবে ১ম দিন কেন হলো না ? ১ম দিন হল না কারণ তখন আপনার বাটিটি সম্পূর্ণ ভাবে সরে যায়নি। আসতে আসতে প্রতি ওয়াশে এটি একটু একটু করে সরে গিয়েছে। 
  5.  ৪ এবং ৫ এর কারণ একই। 
  6. এতো মূল্যবান একটি বস্তু হারিয়ে ফেলায় সত্যিই কষ্ট হবার কথা কিন্তু কিছু কষ্টকর হলেও এটাই সত্যি যে গাড়ির এক্সিডেন্ট অত্যন্ত স্বাভাবিক ব্যাপার (আমার ভাবার বাইরের থেকেও স্বাভাবিক ব্যাপার এইটা) প্রতিবছর পৃথিবীতে ১৩ লক্ষ গাড়ির এক্সিডেন্ট হয় । তার মানে, ৩৬০০ গাড়ির এক্সিডেন্ট হয় প্রতিদিন। অর্থাৎ পৃথিবীর প্রতিটি দেশে প্রত্যেকদিন সর্বনিম্ন ১৮টি দুর্ঘটনা হয়। আপনাকে দুঃখ এবং কষ্ট হলেও মেনে নিতে হবে যে সেইদিন আপনি ছিলেন সেই ১৮ জনের ১জন।   


ভাগ্য বলতে কিছু নেই। সবই ব্যাক্তি ও বস্তুর দ্বারা প্রভাবিত কর্মের ফল। আমি কোনো ধর্ম বা সৃষ্টিকর্তাকে অপমান করছি না, কিন্তু বাস্তবতা আপনাকে মানতেই হবে টা যতটাই কষ্টকর হোক না কেন।   

করেছেন (5,691 পয়েন্ট)
ডিপ ফ্রিজ লিমিটের মধ্যেই রাখা ছিল। আমাদের ডিফেক্ট মাল দিয়েছিল। 

ওভেনপ্রুফ পাত্রে ২ মিনিটের জন্য ভাত গরম করতে দেওয়া হয়েছিল। 

ওয়াশিং মেশিন এ লোক ডাকার পর তা বলেছিল অতিরিক্ত পানি যোগ করায় সমস্যা যা আমরা করি নি। 

এসিও ডিফেক্ট মাল দিয়েছিল। 

আর গাড়ি!!!! গত আট বছর ধরে আব্বুর অফিসের হাজার রকমের গাড়িতে উঠছি। কার নিয়ে সাজেক ভ্যালিতে উঠেছি, মানুষের মানা উপেক্ষা করে। তারপরও কিছু হয় নি। আর যে গাড়ির জন্য আমি ১০ বছর ধরে অপেক্ষা করছি সেই গাড়ির এই পরিণতি!!! 

তাহলে এগুলোকে কী শুধু কাকতালীয় ঘটনাই বলে উড়িয়ে দেওয়া যায়! আমার জীবনের সবচেয়ে দামি জিনিসটা যে আমার কাছে আর নেই সত্য সহ্য করার ক্ষমতাও আমার নেই। আপনার দেওয়া ব্যাখ্যাগুলো পড়ার সময়ই বাস্তব মনে হয়, কিন্তু পরক্ষণে ভাবতে বসায়। জীবনের কোনো জিনিস প্রথমবার কিনে ভোগ করতে পারি নি। কেনার পর সেটা সার্ভিসিং নাইলে বদলে নিতে হয়েছে। কেন?
করেছেন (1,528 পয়েন্ট)
এটা একটু জটিল প্রশ্ন, বোন। হয়তো বেহা খুজে বের করা যাবে একদিন, কিন্তু টা এখন নয়। আপাতত আপনাকে বাস্তবতা মেনে নিতে হবে ^_^ 
করেছেন (3,680 পয়েন্ট)
দেবলীনা, ভাগ্য বলতে কিছু নেই কথাটা ঠিক নয়। নিশ্চয়ই আল্লাহ মানুষকে নির্ধারিত তাকদীর দিয়ে পাঠিয়েছেন।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

2 টি উত্তর
21 সেপ্টেম্বর 2018 "সাধারণ" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Mowgli (11 পয়েন্ট)

322,725 টি প্রশ্ন

413,241 টি উত্তর

128,056 টি মন্তব্য

177,737 জন নিবন্ধিত সদস্য

বিস্ময় বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। এখানে আপনি আপনার প্রশ্ন করার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে অবদান রাখতে পারেন অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য সবথেকে বড় এবং উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে।
...